শুক্রবার ১৪ আগস্ট ২০২০
Online Edition

ইংরেজি মাধ্যমের স্কুলে ভ্যাট অবৈধ ঘোষণার রায় বহাল

স্টাফ রিপোর্টার : ইংরেজি মাধ্যমের স্কুল শিক্ষার্থীদের টিউশন ফির ওপর সাড়ে ৭ শতাংশ ভ্যাট আরোপ অবৈধ ঘোষণার হাইকোর্টের রায় বহাল রেখেছেন আপিল বিভাগের চেম্বার জজ আদালত। সরকারের স্থগিতাদেশ চেয়ে করা আবেদনে আদালত ‘নো অর্ডার’ করেন। একই সঙ্গে বিষয়টি শুনানির জন্য আগামী ২ জানুয়ারি দিন নির্ধারণ করে পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চে পাঠিয়ে দিয়েছেন আদালত। ফলে হাইকোর্টের রায় বহাল থাকলো বলে জানিয়েছেন আইনজীবীরা।
হাইকোর্টের রায় স্থগিত চেয়ে আবেদন করলে শুনানি শেষে গতকাল বুধবার চেম্বার জজ বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন এই আদেশ দেন।
আদালতে সরকার পক্ষের শুনানি এটর্নি েেজনারেল মাহবুবে আলম। সঙ্গে ছিলেন ডেপুটি এটর্নি জেনারেল এ কে এম মনিরুজ্জামান কবির।
গত সোমবার বিচারপতি জুবায়ের রহমান চৌধুরী ও বিচারপতি মো. মজিবুর রহমান মিয়া সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট ডিভিশন বেঞ্চ ইংরেজি মাধ্যমের স্কুলশিক্ষার্থীদের টিউশন ফির ওপর সাড়ে ৭ শতাংশ ভ্যাট আরোপ অবৈধ ঘোষণা করে রায় দেন।
গত বছরের ৫ জুন জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) একটি পরিপত্র জারি করে। এর একটি অংশে ইংরেজি মাধ্যমের শিক্ষার্থীদের টিউশন ফির ওপর সাড়ে ৭ শতাংশ ভ্যাট আরোপ করা হয়। এর বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে রিট করা হয়েছিল। আদালত ভ্যাট কেন অবৈধ হবেনা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছিলেন। ওই রুল নিষ্পত্তি করে ভ্যাট অবৈধ ঘোষনা করা হয়। এর ফলে ইংরেজি মাধ্যমের শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে টিউশন ফির বিপরীতে ভ্যাট আদায় করা যাবে না।
সানিডেল ও সান বিম স্কুলের দুই শিক্ষার্থীর অভিভাবকের করা রিট আবেদনের প্রেক্ষিতে গত বছর ১৭ সেপ্টেম্বর বিচারপতি শামীম হাসনাইন ও বিচারপতি মোহাম্মদ উল্লাহ সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট ডিভিশন বেঞ্চ টিউশন ফির ওপর ভ্যাট ছয় মাসের জন্য স্থগিতের আদেশ দেন। একইসঙ্গে ভ্যাট আরোপের সিদ্ধান্ত কেন বেআইনি ঘোষণা করা হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করা হয়। জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) হাইকোর্টের ওই আদেশের বিরুদ্ধে চেম্বার জজ আদালতে গেলে হাইকোর্টের আদেশের কার্যকারিতা আট সপ্তাহের জন্য স্থগিত হয়ে যায়। ওই বছর বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়, মেডিকেল ও ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজের টিউশন ফিয়ের ওপর সাড়ে ৭ শতাংশ ভ্যাট আরোপ করা হলে তা প্রত্যাহারের আন্দোলনে নামে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। ‘নো ভ্যাট অন এডুকেশন’ শিরোনামে আন্দোলনের মুখে সরকার ওই ভ্যাট প্রত্যাহার করলেও ইংরেজি মাধ্যম স্কুলের ওপর ভ্যাট বহাল থাকে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ