বৃহস্পতিবার ০৬ আগস্ট ২০২০
Online Edition

তিন শ্বেতাঙ্গের হাতে হেনস্থা মুসলিম মার্কিন শিক্ষার্থী

৫ ডিসেম্বর, দৈনিক খবরীন পাকিস্তান : ফের হিজাব পরা এক মুসলিম ছাত্রীকে হেনস্তার অভিযোগ উঠল য্ক্তুরাষ্ট্রে। ডোনাল্ট ট্রাম্প প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওয়ার পর এই ধরনের যে কয়েকটি ঘটনা ঘটেছে, তার মধ্যে এটি নতুন সংযোজন।
ম্যানহাটন যাওয়ার পথে সাবওয়ে ট্রেনের মধ্যেই ওই মুসলিম ছাত্রীকে কয়েকজন শ্বেতাঙ্গ যুবক হেনস্তা করে। তারা সকলেই মদ্যপ ছিল বলে ছাত্রীটির অভিযোগ। শুধু তাই নয়, ট্রাম্পের নামে ধ্বনি তুলে তাঁকে নিয়ে হাসিঠাট্টা করে। ‘জঙ্গি’ অ্যাখ্যা দিয়ে তার হিজাবও খুলে নেওয়ার চেষ্টা করে বলেও পুলিশের কাছে লিখিত অভিযোগে জানিয়েছেন ছাত্রীটি। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে আমেরিকার ঘৃণ্য অপরাধ দমন শাখা। ট্রেনের মধ্যে গোপন ক্যামেরার ভিডিও ফুটেজ খতিয়ে দেখে অভিযুক্তদের সন্ধান চালানো হচ্ছে বলে পুলিশ জানিয়েছে।
ঘটনার সূত্রপাত গত বৃহস্পতিবার। ইয়াসমিন সৌদ নামে ওই ছাত্রী সাবওয়ের ট্রেনে চেপে ম্যানহাটনে যাচ্ছিলেন। পুলিশকে ইয়াসমিন জানিয়েছেন, তাকে লক্ষ্য করে তিনজন শ্বেতাঙ্গ যুবক এগিয়ে আসে। তারা বারবার ট্রাম্পের নাম করে হাসতে থাকে। এবং তাকে উত্ত্যক্ত করতে থাকে। তিনি ট্রেনের অন্যদিকে চলে গেলেও যুবকরা তাঁর পিছু নেয়। ফের তাঁর মুখোমুখি দাঁড়িয়ে মস্করা জুড়ে দেয়। ইয়াসমিনের কথায়, এর পর আমি বিরক্ত হয়ে ওদের বলি, প্লিজ আমাকে একটু একা থাকতে দিন। ওরা তাতে কোনও কর্ণপাত না করেই হাসতে থাকে। আমার হিজাব টেনে ধরারও চেষ্টা করে। আমাকে জঙ্গিও বলতে ছাড়েনি ওরা। ওরা খুব সম্ভবত মদ্যপ ছিল।
ইয়াসমিনের অভিযোগ, আমাকে যুবকদের হাতে এভাবে হেনস্তা হতে দেখেও ট্রেনের কেউই সাহায্যের জন্য এগিয়ে আসেননি। আমি অবাক হয়ে গিয়েছি! ইয়াসমিনের বাবা-মা মিশরীয়। তার জন্ম আমেরিকাতেই। ইয়াসমিন ওই শ্বেতাঙ্গ যুবকদের কাছে নিজের পরিচয়পত্র দেখিয়ে এও বলেছিলেন, আমি একজন আমেরিকান।
আমি আমেরিকায় জন্মেছি, এখানেই বড় হয়েছি। কিন্তু ওরা আমার কোনো কথাই শোনেনি। বরং আমি ট্রেনের অন্যত্র চলে যাওয়ার চেষ্টা করতেই ওরা আমার পিছু নেয়। সেখানেও আমাকে চরম হেনস্তার মুখোমুখি হতে হয়। পরে ট্রেন থেকে নেই ইয়াসমিন সোজা পুলিশের কাছে গিয়ে অভিযোগ দায়ের করেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ