বৃহস্পতিবার ০৬ আগস্ট ২০২০
Online Edition

ইউরোপে নব্য জাতীয়তাবাদের উত্থান

৫ ডিসেম্বর, ডেইলি মেইল : ইউরোপে এখন উত্থান হয়েছে নব্য জাতীয়তাবাদের। বেক্সিটের পর সময় এখন ‘ইতালেক্সিট’ এর। ইতালীর বর্তমান প্রধানমন্ত্রী ম্যাটেও রেনজি পদত্যাগের ঘোষণা দেওয়ার পর দেশটির ক্ষমতোা এখন পপুলিস্টদের হাতে। পপুলিস্টরা চায় ইতালী ইউরোপিয় ইউনিয়ন থেকে বের হয়ে যাক।
ইতালীর প্রধানমন্ত্রী রেনজি পদত্যাগের ঘোষণায বলেন, ‘হারের সব দায়দায়িত্ব নিয়ে আমি পদত্যাগ করছি।’ এই জয় ব্রিটেনে ব্রেক্সিট ও যুক্তরাষ্ট্রে ডোনাল্ড ট্রাম্পের মতোই নতুন জাগরণ এনেছে। ক্ষমতোা কুক্ষিগত হতে চলেছে পপুলিস্টদের হাতে। পপুলিস্টদের নেতা ও কমোডিয়ান বেপে গ্রিলো ভোটারদের উদ্দেশ্যে বলেছেন, বুদ্ধি নয়, সাহস নিয়ে পথ চল’। গ্রিলো ইউরো থেকে বের হওয়ার জন্যও আন্দোলন করছেন। গ্রিলোর ব্রাসেলসবিরোধী জাতীয়তাবাদী আন্দোলন ব্যাপক জনপ্রিয়তার মুখে টিকতে পারলেন না রেনজি।
আনুষ্ঠানিক পদত্যাগের সময় রেনজি বলেন,‘আমাদের আরো একটি সুযোগ আছে, কিন্তু সংখ্যাগরিষ্ঠকে বোঝানো সম্ভব নয়। আমরা মিলিয়ন ভোট পেয়েছি, কিন্তু যথেষ্ঠ নয়, আমি সব দায় নিজের কাধেঁ নিচ্ছি। আমার সরকারের অভিজ্ঞতার এখানেই শেষ। আমি পরিবর্তন চেয়েছিলাম। কিন্তু পারি নি। তাই পদত্যাগ করছি।’
আবেগঘন এই মুহূর্তের পরপরই ইউরোজোনের তৃতীয় বৃহত্তম অর্থনীতির দেশ ইতালীতে ইউরোর দরপতন হয়েছে। ডলারের বিপরীতে ইউরোর দাম এক শতাংশ পড়ে গেছে। যুক্তরাষ্ট্র এবং এশিয়ার সূচকগুলোও নিম্নগামী। বিনিয়োগকারীরা এখন ইউরোজোনের মধ্যে ইতালীকেই সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ মনে করছেন। রেনজির সরকারের পদত্যাগের ফলে দেশটিতে রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক অস্থিরতা বাড়বে। এতে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হবে বিনিয়োগকারী,ব্যবসায়ী ও দেশটির ব্যাংকিং খাত। এই প্রভাব পড়তে পারে ইউরোপেও।
ইতালীর অর্থনীতি পুররুদ্ধারে বেশ কিছু শর্ত বেঁধে দিয়েছিল ইউরোপীয় ইউনিয়ন। এর প্রতিবাদেই ইইউ বিরোধী জনপ্রিয় আন্দোলন গড়ে তোলেন বেপে গ্রিলো। ইউরো মুদ্রার পরিবর্তে ইতালীয় মুদ্রা ‘লিরা’র জন্য আন্দোলন করছে পপুলিস্ট’রা। ক্ষমতোা পাওয়ার পর ইউরো মুদ্রা থেকে বের হতে চেষ্টা করবেন গ্রিলো। ব্রিটেনের মতো ইইউ থেকে বের হয়ে যেতে পারে ইতালীও।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ