সোমবার ১৭ জানুয়ারি ২০২২
Online Edition

হাভানায় ক্যাস্ত্রোর প্রতি লাখো মানুষের শেষ শ্রদ্ধা

৩০ নবেম্বর, নিউ ইয়র্ক টাইমস, গার্ডিয়ান : কিউবার হাভানায় রেভল্যুশন স্কয়ারে প্রিয়নেতা ফিদেল ক্যাস্ত্রোর প্রতি শেষ শ্রদ্ধা জানিয়েছেন দেশটির লাখ লাখ মানুষ ও বিশ্ব নেতারা।
স্থানীয় সময় গত মঙ্গলবার রাতে রেভল্যুশন স্কয়ারে হাজির হন মেক্সিকো, বলিভিয়া, ভেনিজুয়েলা, পানামা, দক্ষিণ আফ্রিকা ও ক্যারিবীয় অঞ্চলের বামপন্থি নেতারা। সমাবেশের আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয় ক্যাস্ত্রোর বিপ্লবের সময়কালের সাদা কালো ছবি প্রদর্শন ও দেশটির জাতীয় সংগীত পরিবেশনের মাধ্যমে।
এসময় কিউবায় স্বাস্থ্য ও শিক্ষা খাতে ক্যাস্ত্রের অবদানের কথা তুলে ধরেন বিশ্ব নেতারা। দেশটির রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যম জানায়, বিপ্লবী এ নেতার দেহভষ্ম সান্তিয়াগোতে নিয়ে যাওয়া হবে। এরপর সেখানেই তাকে সমাহিত করার কথা রয়েছে।
 স্মরণ অনুষ্ঠানে যোগদানে রাজনৈতিক বিভাজন
 এদিকে মার্কিন নেতৃত্বাধীন পুঁজিবাদী মুক্তবাজার অর্থনীতির বিপরীতে লাতিন আমেরিকা যে বিকল্প অর্থব্যবস্থা জারি করতে সক্ষম হয়েছে, তার নেপথ্যে ছিলেন কাস্ত্রো। ছিলেন প্রেরণা-সাহস আর সহায়তার উৎস হয়ে। লাতিন নেতাদের কাছে কাস্ত্রোর চলে যাওয়া তাই ‘ভাই হারানোর বেদনা’র সামিল।
হাভানার ঐতিহাসিক রেভ্যুলেশন স্কয়ারে লাতিন নেতারা ভাই কিংবা বন্ধুকে হারানোর বেদনার কথাই জানিয়েছেন। স্মরণ করেছেন বিগত স্মৃতি। কেবল লাতিন আমেরিকাই নয়, মতাদর্শিক বন্ধু আফ্রিকার দেশ জিম্বাবুয়ে ও দক্ষিণ আফ্রিকার শীর্ষ নেতাও যোগ দিয়েছেন ফিদেলের স্মরণ অনুষ্ঠানে। ভেনেজুয়েলার প্রেসিডেন্ট নিকোলাস মাদুরো, বলিভিয়ার প্রেসিডেন্ট ইবো মোরালেস, জিম্বাবুয়ের প্রেসিডেন্ট রবার্ট মুগাবে এবং দক্ষিণ আফ্রিকার প্রেসিডেন্ট জ্যাকব জুমার মতো বিশ্বনেতারা এবং বিশ্বের বিশিষ্ট ব্যক্তিরাও ওই স্মরণ অনুষ্ঠানে যোগ দেন।
তবে ভিন্ন মতাদর্শের পশ্চিমা নেতৃত্ব কাস্ত্রোর স্মরণসভায় যোগ দেননি। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম গার্ডিয়ানের প্রতিবেদনে বলা হয়, এ স্মরণ অনুষ্ঠানে যোগ দেওয়ার ক্ষেত্রেও বিশ্বনেতাদের রাজনৈতিক বিভাজন দেখা গেছে। ফিদেলের মতাদর্শের সঙ্গে সমিল থাকা বিশ্বনেতারা সরাসরি উপস্থিত হলেও এ স্মরণ অনুষ্ঠানে পশ্চিমা নেতারা তাদের প্রতিনিধি পাঠিয়েছেন।
স্মরণ অনুষ্ঠানে যোগ দিতে কিউবায় পৌঁছানোর পর বলিভিয়ার প্রেসিডেন্ট ইবো মোরালেস বলেন, ‘কিউবা অত্যন্ত মর্মাহত একটি ক্ষণ পার করছে। আমার ভাইকে, বন্ধুকে হারিয়ে এখন যে কষ্টের মুহূর্তগুলো পার হচ্ছে, তাতে যোগ দিতে এসেছি আমি।’
সাম্রাজ্যবাদীদের দিকে ইঙ্গিত করে ভেনেজুয়েলার প্রেসিডেন্ট নিকোলাস মাদুরো বলেন, ‘তারা ফিদেল কিংবা কিউবার জনগণ কিংবা এ মহান জাতির স্বপ্ন ও আকাক্সক্ষা কোনও কিছুকেই জয় করতে পারেনি।’
ফিদেল কাস্ত্রোর অবদানের কথা স্মরণ করে মাদুরো বলেন, ‘তিনি এ পৃথিবীতে তার লক্ষ্য পূরণ করতে পেরেছেন। এতো পরিপূর্ণ এবং এতো উজ্জ্বল জীবন খুব কমই আছে। তিনি অপরাজেয়ই থেকে গেছেন।’
এককালের গেরিলা যোদ্ধা এবং জিম্বাবুয়ের প্রেসিডেন্ট মুগাবে কিউবার স্বাস্থ্যব্যবস্থা এবং বিশ্বজুড়ে কিউবান ডাক্তারদের ভূমিকা স্মরণ করেন। কিউবানদের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘ফিদেল কেবল তোমাদের নেতা ছিলেন না। তিনি আমাদেরও নেতা। বিশ্বের সমস্ত বিপ্লবীর নেতা তিনি’। স্মরণসভায় কিউবার রাষ্ট্রীয় জনকল্যাণমূলক ভূমিকার কথা স্মরণ করেন জ্যাকব জুমা। হোয়াইট হাউস মঙ্গলবারই জানিয়ে দিয়েছিল, স্মরণসভায় কোনও প্রতিনিধি পাঠাবে না তারা। কিউবার মার্কিন রাষ্ট্রদূত সেখানে যোগ দেবেন। এদিকে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা কিউবার বিপ্লবী নেতা ফিদেল কাস্ত্রোর শেষকৃত্যে অংশগ্রহণ করবেন না বলে হোয়াইট হাউজের মুখপাত্র জশ আর্নেস্ট নিশ্চিত করেছিলেন।
যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট হিসেবে ওবামারই কাস্ত্রোর শেষকৃত্যে অংশ নেওয়ার কথা ছিল। কেন না কিউবার সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের কূটনৈতিক সম্পর্কের নতুন মাত্রা দেন প্রেসিডেন্ট ওবামা। যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে সমাজতান্ত্রিক কিউবার ৬৪ বছরের বিরোধের অবসান ঘটান।
মার্কিন প্রেসিডেন্ট ওবামা কাস্ত্রোর শেষকৃত্যে অংশগ্রহণ করবেন না হোয়াইট হাউজের এমন ঘোষণায় নতুন করে আর তেমন কোন সমালোচনা হয়নি। তবে আলোচনার বিষয় হয় যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিনিধি হয়ে কাস্ত্রোর শেষকৃত্যে কে যাবেন?
প্রেসিডেন্ট ওবামা কাস্ত্রোর শেষকৃত্যে অংশগ্রহণের জন্য হোয়াইট হাউজের কোন সাধারণ প্রতিনিধি পাঠাচ্ছেন না। হোয়াইট হাউজের শীর্ষ পর্যায়ের প্রতিনিধি কাস্ত্রোর শেষকৃত্যে অংশ নিতে কিউবার রাজধানীর হাভানায় যাবেন।
ওবামার নির্বাচিত প্রতিনিধিদের মধ্যে ডেপুটি নাশন্যাল সিকিউরিটি অ্যাডভাইজার বেনজামিন জে রডিস ও কিউবায় যুক্তরাষ্ট্রের কূটনৈতিক দূত জেফরি ডি লাউরেনটিস। তারা কাস্ত্রোর শেষকৃত্যে অংশ নেবেন বলে হোয়াইট হাউজের মুখপাত্র জশ আর্নেস্ট জানান।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ