মঙ্গলবার ২২ সেপ্টেম্বর ২০২০
Online Edition

চট্টগ্রাম পর্ব শেষে আবার ঢাকায় ফিরছে বিপিএল

স্পোর্টস রিপোর্টার : চট্টগ্রাম পর্ব শেষে আবার ঢাকায় ফিরছে বিপিএল। আগামীকাল থেকে মিরপুরে শুরু হবে বিপিএলের শেষ পর্ব। গত ৮ নবেম্বর ঢাকায় শুরু হয় বিপিএলের ৪র্থ আসর। প্রথম পর্বে ঢাকায় ১৩টি ম্যাচ শেষে ১৭ নবেম্বর থেকে চট্টগ্রামে শুরু হয় বিপিএলের ম্যাচ। চট্টগ্রামে হয় ১১টি ম্যাচ। চট্টগ্রাম পর্ব শেষে আবার ঢাকায় ফিরছে বিপিএলের শেষ পর্ব। আগামীকাল রংপুর রাইডার্স বনাম রাজশাহী কিংসের ম্যাচ দিয়ে মিরপুরে শুরু হবে শেষ পর্ব। তবে ঢাকার প্রথম পর্ব আর চট্টগ্রাম পর্ব শেষে জমে উঠেছে বিপিএল। বিপিএলে এখন পর্যন্ত ২৪ ম্যাচ শেষ হয়েছে। সবচেয়ে বেশি ৮ ম্যাচ এখন পর্যন্ত খেলেছে চিটাগং ভ্ইাকিংস। এছাড়া ৭টি করে ম্যাচ খেলেছে খুলনা টাইটান্স, ঢাকা ডায়নামাইটস, বরিশাল বুলস ও কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। ৬টি ম্যাচ খেলেছে রংপুর রাইডার্স ও রাজশাহী কিংস। ২৪ ম্যাচ শেষে রংপুর রাইডার্স ও খুলনা টাইটানস সর্বোচ্চ ১০ পয়েন্ট নিয়ে এগিয়ে আছে। তবে রান রেটে পয়েন্টের শীর্ষে আছে রংপুর রাইডার্স।
ঢাকা ডাইনামাইটস ও চিটাগাং ভাইকিংস ৮ পয়েন্ট করে নিয়ে আছে তৃতীয় ও চতুর্থ স্থানে। বরিশাল বুলসের ৬ পয়েন্ট, রাজশাহী কিংসের ৪ পয়েন্ট আর কুমিল্লা ভিক্টোরয়ান্স ২ পয়েন্ট নিয়ে আছে সবার নিচে। বিপিএল-এর চট্টগ্রাম পর্ব শেষে ব্যাটসম্যানদের শীর্ষ তালিকাতে জায়গা করে নিয়েছেন সব বাংলাদেশি তারকা। বিপিএল-এর চট্টগ্রাম পর্ব শেষে ব্যাটসম্যানদের শীর্ষ তালিকাতে জায়গা করে নিয়েছেন সব বাংলাদেশি তারকা। অন্যদিকে বোলারদের তালিকায় যৌথভাবে আছেন চিটাগং ভাইকিংসের স্পিনার মোহাম্মদ নবী ও ঢাকা ডায়নামাইটসের পেসার মোহাম্মদ শহীদ। বিপিএল-এর সর্বাধিক রানের তালিকায় শীর্ষ পাঁচটি স্থানই বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের দখলে। শীর্ষে আছেন ঢাকা ডায়নামাইটসের ওপেনার মেহেদী মারুফ।
৭ ম্যাচে ৪০.৬৬ গড়ে ২ হাফসেঞ্চুরিতে তার রান সংখ্যা ২৪৪। এরপর আছেন বরিশাল বুলসের অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম। ২ হাফসেগ্ররিতে তার রান সংখ্যা ২৩৯। একই দলের টপ অর্ডার ব্যাটসম্যান ২২৫ রান করা শাহরিয়ার নাফিস আছেন তৃতীয় স্থানে। আর চিটাগং ভাইকিংসের তামিম ইকবাল ২২৩ রান করে চতুর্থ ও রাজশাহী কিংসের মমিনুল হক ২১৬ রান করে আছেন পঞ্চম স্থানে। যদিও চিটাগং ভাইকিংস একটি ম্যাচ বেশি খেলেছে। বোলিংয়ে যৌথভাবে শীর্ষে আছেন ঢাকা ডায়নামাইটসের পেসার মোহাম্মদ শহীদ ও চিটাগং ভাইকিংসের স্পিনার মোহাম্মদ নবী। চিটাগংয়ের এই স্পিনার আট ম্যাচে ১১.৮৫ গড়ে ১৪ উইকেট নিয়ে শীর্ষে অবস্থান করছেন। এক ম্যাচ কম খেলে সমান সংখ্যক উইকেট নিয়ে দ্বিতীয় অবস্থানে আছেন মোহাম্মদ শহীদ। এছাড়া বাংলাদেশের বোলারদের মধ্যে আরও দাপট দেখিয়েছেন খুলনা টাইটানসের পেসার শফিউল ইসলাম। ৭ ম্যাচে তার উইকেট সংখ্যা ১৩টি। এরপরে থাকা পাকিস্তানি তারকা শহীদ আফ্রিদি ও জুনায়েদ খান নিয়েছেন ১১টি করে উইকেট।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ