মঙ্গলবার ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০
Online Edition

ইসরাইল ও ফিলিস্তিনীদের মধ্যে শান্তি স্থাপন করবেন ইভানকার স্বামী কুশনার

২৩ নবেম্বর, দ্য হিল, নিউইয়র্ক টাইমস/রয়টায় : যুক্তরাষ্ট্রে ডোনাল্ড ট্রাম্প প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওয়ার পর থেকেই তার মেয়ের জামাই জেরাড কুশনার কী দায়িত্ব পালন করবেন তা নিয়ে বেশ কয়েকদিন ধরেই গুঞ্জন চলছিলো। হোয়াইট হাউজে কোন গুরুত্বপূর্ন দায়িত্বে থাকা যায় কি-না তার আইনগত দিক গুলো খতিয়ে দেখছিলেন কুশনার নিজেও। তবে, এসব গুঞ্জনের সমাপ্তি টানলেন ট্রাম্প নিজেই। মঙ্গলবার তিনি ঘোষণা করেছেন, কুশনারই হচ্ছেন ইসরায়েল এবং ফিলিস্তিনের মধ্যে শান্তি স্থাপনের জন্য যুক্তরাষ্ট্রের নিয়োজিত মধ্যস্থতাকারী।
নিউ ইয়র্ক টাইমস’র একদল সাংবাদিককে ট্রাম্প বলেন, ‘মধ্যপ্রাচ্যের শান্তি আলোচনায় কুশনার কোন আনুষ্ঠানিক কাজ করবেনা। তবে, এ বিষয়ে সে গুরুত্বপূর্ন ভূমিকা পালন করবে।’
ট্রাম্প বলেন, ‘ইসরায়েল এবং ফিলিস্তিনিদের মধ্যে শান্তি স্থাপনের মতো গুরুত্বপূর্ন কাজে আমি বিশেষ একজনের কথাই ভাবছিলাম। অত্র এলাকায় শান্তি স্থাপন একটি গুরুত্বপূর্ন অর্জন হবে।’ যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টদের কাছে মধ্যপ্রাচ্যে শান্তিস্থাপন একটি গুরুত্বপূর্ন বৈদেশিক নীতি। তবে, ৩৫ বছর বয়সী কুশনার এই প্রক্রিয়ায় অংশ নিলে তিনিই হবেন প্রথম ব্যাক্তি, যিনি আন্তর্জাতিক সম্পর্কের ক্ষেত্রে এ যাবৎ রাষ্ট্রীয় কোন গুরুত্বপূর্ন দায়িত্ব পালন করেননি। তবে, নিউজার্সির স্থানীয় কুশনার একজন প্রতিষ্ঠিত আবাসন ব্যাবসায়ী। ট্রাম্পের নির্বাচনী প্রচারণায় তিনি অনেক অবদান রেখেছিলেন।
ট্রাম্পের ঘোষণা থেকে এটাই পরিষ্কার যে, তার জামাতা কুশনার হোয়াইট হাউজে শক্তিশালী অবস্থান নিতে যাচ্ছেন। তিনি একজন গোড়া ইহুদি। তার সঙ্গে এবং তার পরিবারের সঙ্গে ইসরায়েলি সরকার এবং ইসরায়েলপন্থী দলগুলোর বেশ ভালো যোগাযোগ। আমেরিকায় যেসব ইহুদি সংগঠন রয়েছে সেসবে নিয়মিত অর্থ সহায়তাও দেয় তার পরিবার। ব্রিটিশ গণমাধ্যম রয়চার্সের এক প্রতিবেদন থেকে জানা গেছে, গত বছর কুশনারই ইসরায়েলে ট্রাম্পের একটি সফরের পথ তৈরী করে দেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ