রবিবার ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২১
Online Edition

মান্নার জামিনের বিরুদ্ধে সরকারের দু’আপিলের শুনানি ২৭ নবেম্বর 

স্টাফ রিপোর্টার : নাগরিক ঐক্যের আহবায়ক মাহমুদুর রহমান মান্নার রাষ্ট্রদ্রোহ মামলার জামিনও স্থগিত করেছেন সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ। আগামী ২৭ নবেম্বর পর্যন্ত মামলাটিতে তার জামিন স্থগিত করে সর্বোচ্চ আদালত সরকারের করা দুটি আবেদন একসঙ্গে শুনানির দিন নির্ধারণ করেছেন। ওইদিন রাষ্ট্রদ্রোহ ও সেনা বিদ্রোহে উস্কানির দুটি মামলায় জামিনের বিষয়ে সরকারের আবেদনের ওপর শুনানি হবে।

গতকঅল বৃহস্পতিবার প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার নেতৃত্বে আপিল বিভাগের চার বিচারপতির বেঞ্চ এই দিন ধার্য করেছেন। 

৩০ আগস্ট রাষ্ট্রদ্রোহের অভিযোগে করা মামলায় মাহমুদুর রহমান মান্নাকে জামিন দিয়েছিলেন হাইর্কোট। এ আদেশের বিরুদ্ধে সরকার পক্ষ আবেদন করলে গত ৪ সেপ্টেম্বর এই মামলায় আপিল বিভাগ প্রথম দফায় ৩০ অক্টোবর পর্যন্ত তার জামিন স্থগিত করেন। পাশাপাশি নিয়মিত লিভ টু আপিল করতে বলেন। এর ধারাবাহিকতায় গতকাল বৃহস্পতিবার বিষয়টি শুনানির জন্য আসে।

আদালতে মাহমুদুর রহমান মান্নার পক্ষে ছিলেন আইনজীবী ইদ্রিসুর রহমান। সরকার পক্ষে ছিলেন অতিরিক্ত এটর্নি জেনারেল মুরাদ রেজা।

গত ১৪ নবেম্বর সেনা বিদ্রোহে উসকানির মামলায়ও হাইকোর্টের দেয়া জামিন ২৭ নবেম্বর পর্যন্ত স্থগিত করেছিলেন আপিল বিভাগ। এখন আগামী ২৭ নবেম্বর এ দুটি মামলায়ই তার জামিনের বিষয়ে একসঙ্গে শুনানি অনুষ্ঠিত হবে।

২০১৫ সালে রাজনৈতিক সংকট নিরসনে মাহমুদুর রহমান মান্নার সঙ্গে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান সাদেক হোসেন খোকা এবং অজ্ঞাত পরিচয়ের এক ব্যক্তির টেলিফোনে কথা বলার দুটি অডিও ক্লিপ প্রকাশ হওয়ার পর ‘নিখোঁজ’ হন তিনি। দু’দিন পর ২০১৫ সালের ২৫ ফেব্রুয়ারি এক সাংবাদিক সম্মেলনে পুলিশ মাহমুদুর রহমান মান্নাকে গ্রেফতারের বিষয়টি নিশ্চিত করে। এর মধ্যে সেনা বিদ্রোহে উষ্কানি দিয়ে সরকার উৎখাতের ষড়যন্ত্রের অভিযোগে ২০১৫ সালের ২৪ ফেব্রুয়ারি একটি মামলা হয় মান্নার বিরুদ্ধে। পরবর্তীতে ৫ মার্চ রাষ্ট্রদ্রোহের অভিযোগে আরও একটি মামলা করা হয়।

এই দুই মামলায় গত ২ ও ৭ মার্চ নিম্ন আদালতে মাহমুদুর রহমান মান্নার জামিন আবেদন নামঞ্জুর হয়। পরে তিনি স্বাস্থ্যগত কারণ দেখিয়ে হাইকোর্টে জামিনের আবেদন করেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ