শুক্রবার ০৫ মার্চ ২০২১
Online Edition

বিদেশী বাণিজ্যিক জাহাজটি দু’দিনেও উদ্ধার হয়নি খালাস কাজ শুরু করতে লাইটারসহ শ্রমিক নিয়োগ

খুলনা অফিস : মংলা বন্দরের অদূরে বঙ্গোপসাগরের ডুবো চরে আটকেপড়া লবণ বোঝাই বিদেশী বাণিজ্যিক জাহাজটি গত দু’দিনেও উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি। বেতার বার্তায় সাহায্য চাওয়ার বার্তা পেয়ে মংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের পাইলট ঘটনাস্থলে পৌঁছে ডুবো চর থেকে জাহাজটি নামাতে পারেনি। বর্তমানে বিদেশী ওই জাহাজটি ডুবো চরে কিছুটা ঝুকিপূর্ণ অবস্থায় থাকলেও বন্দর চ্যানেল নিরাপদ রয়েছে। একই সাথে চ্যানেলে বাণিজ্যিক জাহাজ নির্বিঘেœ আগমন নির্গমন করছে বলে জানিয়েছে মংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের হারবার বিভাগ।
এদিকে জাহাজটি দ্রুত ডুবোচর থেকে সরাতে লাইটার যোগে লবণ খালাসের উদ্যেগ নেয়া হয়েছে। আর লবণ  খালাস করা শুরু হলে শংকামুক্ত এবং নিরাপদে জাহাজটি ডুবোচর থেকে নামানো সম্ভব হবে বলে আশা প্রকাশ করেছেন সংশ্লিষ্টরা। 
মংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের মাস্টার কমান্ডার ওয়ালিউল্ল্যহ জানান, ‘এমভি তানভিন’ নামের এ জাহাজটি ১৮ হাজার ৭শ’ মেট্রিকটন লবন নিয়ে ভারতের কানলা বন্দর থেকে গত মঙ্গলবার মংলা বন্দরের অদূরে ফেয়ারওয়ে বয়া এলাকায় অবস্থান করছিল। পরে বন্দরের নির্দেশনা পেয়ে বুধবার ভোর রাতে পশুর চ্যানেলে প্রবেশকালে মাস্টার ভুলবশত নৌপথ হারিয়ে জাহাজটি ডুবোচরে উঠিয়ে দেয়। ফেয়ারওয়ের ১৩ ও ১৪ নম্বর বয়া এলাকার মাঝামাঝি স্থানের ডুবো চরে জাহাজের বর্তমান অবস্থা রয়েছে। তিনি আরও জানান, সমুদ্র পথে আগমন-নির্ঘমনের চ্যানেল থেকে লবণ বোঝাই এ জাহাজটি প্রায় এক কিলোমিটার বাইরে রয়েছে। আর মূল চ্যানেল দিয়ে বাণিজ্যিক জাহাজ যাতায়াতে কোন সমস্যা নেই।
বিদেশী বাণিজ্যিক জাহাজটি স্থানীয় শিপিং এজেন্ট কসমস শিপিং লাইন্স এর খুলনাস্থ ম্যানেজার সিরাজুল ইসলাম জানান, ভিয়েতনামের পতাকাবাহী ‘এমভি তানভিন’ নামের এ জাহাজটি আটকে পড়া চরা থেকে নিরাপদে সরানোর চেষ্টা করা হচ্ছে। আর এ জন্য শ্রমিক নিয়োগ নিয়োগকারী প্রতিষ্ঠান স্টীভিডরর্স ‘মেসার্স গ্রীণ এন্টারপাইজ’কে কার্যাদেশসহ লবণ খালাসের অনুমতি দেয়া হয়েছে।
স্টিভিডরস কোম্পানির স্থানীয় প্রতিনিধি মো. মাহবুবুর রহমান জানান, ফেয়ারওয়ে বয়া এলাকায় ডুবো চরে আটকে পড়া জাহাজের লবণ খালাসের জন্য রাতের পালায় শ্রমিক নিয়োগ করা হয়েছে। রাতেই প্রয়োজনীয় শ্রমিকসহ বেশ কয়েকটি লাইটার ঘটনাস্থলে গিয়ে পুরোদমে খালাস প্রক্রিয়া শুরু করতে পারবে। বিদেশী এ জাহাজটিতে মাস্টারসহ ২২ জন বিদেশী নাবিক রয়েছে বলে জানা গেছে। তারা সবাই নিরাপদে রয়েছেন। ডুবো চরে আটকে থাকা  জাহাজ ও নাবিকদের নিয়মিত খোজ খবর রাখছেন বলে জানিয়েছেন মংলা বন্দরের দায়িত্বশীল কর্মকর্তারা।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ