শনিবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০
Online Edition

সাঁওতালদের উপর হামলায় স্থানীয় আ’লীগ এমপির ইন্ধনের অভিযোগ

স্টাফ রিপোর্টার : গাইবান্ধায় সাঁওতাল সম্প্রদায়ের ওপর সহিংস হামলায় আওয়ামী লীগের স্থানীয় এমপি ও ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ইন্ধন জুগিয়েছেন বলে অভিযোগ করেছেন সাঁওতাল সম্প্রদায়ের লোকজন।

গতকাল রোববার রংপুর বিভাগের আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মোজাম্মেল হকের নেতৃত্বে পাঁচ সদস্যের একটি প্রতিনিধিদল ঘটনাস্থল সরেজমিন পরিদর্শনে যায়। পরে গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার মাদারপুর গির্জার সামনে এক সমাবেশের আয়োজন করা হয়। ওই সমাবেশে সাঁওতাল সম্প্রদায়ের মানুষেরা এসব কথা বলেন।

সমাবেশে সাঁওতালদের পক্ষে বক্তৃতা দেন রুমিলা হেমব্রম, মিনা মাড্ডি, মেথিয়াস মাড্ডি, বার্না দাস টুডু ও শ্যামল মার্ডি।

সাঁওতাল জনগোষ্ঠীর এ অভিযোগের পর সেখানে উপস্থিত আওয়ামী লীগের নেতারা বলেছেন, এই সহিংস ঘটনায় যাঁরা ইন্ধন জুগিয়েছেন, তাঁরা যে দলেরই লোক হোক না কেন, তাঁদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সাঁওতাল সম্প্রদায়ের ওপর সহিংস হামলার ঘটনার বর্ণনা দিতে গিয়ে সমাবেশে তাঁরা বলেন, ‘চিনিকলের সঙ্গে জমি নিয়ে যে বিরোধ, এই বিরোধ মেটানোর জন্য আওয়ামী লীগের স্থানীয় সংসদ সদস্য ও ইউপি চেয়ারম্যানের সহযোগিতায় আমরা চার বছর আগে এই আন্দোলন শুরু করি। এখন তাঁরা আমাদের কাছ থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়ে সহিংস ঘটনার ইন্ধন জুগিয়েছেন। আমাদের ঘরবাড়ি পুড়িয়ে দিয়েছেন। সহিংস ঘটনায় আমাদের লোক মারা গেছেন। তাঁরা আমাদের নামে মামলা করেছে। আমরা এর সুষ্ঠু তদন্ত চাই, বিচার চাই। আমাদের বাপ-দাদার জমি ফেরত দেয়ার দাবি জানাই।’

এ সময় আওয়ামী লীগের প্রতিনিধিদলের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন। প্রতিনিধিদলে ছিলেন রংপুর বিভাগের আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মোজাম্মেল হক, খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, টিপু মুনশি, সুজিত রায় নন্দী ও উম্মে কুলসুম।

আওয়ামী লীগের নেতারা বলেন, ‘আমরা ঘটনাস্থলে এসে সরেজমিন ঘুরেছি। সাঁওতালদের ঘরে ঘরে গিয়েছি। তাঁদের কাছ থেকে ওই দিনের সহিংস ঘটনার খবর জানতে পেরেছি। আমরা এর প্রকৃত বিচার করবো বলে আশা করি।’ তাঁরা আরও বলেন, ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী নিজে কমিটি করে দিয়ে আমাদের এখানে পাঠিয়েছেন। তিনিও চান, এ ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত করে প্রকৃত ঘটনা উদ্ঘাটন করা হোক।’

আওয়ামী লীগের নেতারা বলেন, ১৯৫৫-৫৬ সালে এই জমি চিনিকলের ছিল। তখন চুক্তি ছিল, এই চিনিকলের জমিতে আখ চাষ হবে। ওই সব জমিতে আখ ছাড়া অন্য ফসলের চাষ হলে প্রকৃত মালিকদের জমি ফেরত দিতে হবে।

বক্তারা বলেন, ‘আমরা ক্ষতিগ্রস্ত সাঁওতাল পরিবারের তালিকা তৈরি করে ঘর করে দেবো, সহজ শর্তে ঋণ দেবো। তাঁদের নিরাপত্তা দেবো। আমরা জানতে পেরেছি, সাঁওতাল পরিবারের সন্তানরা স্কুল-কলেজে যেতে পারছে না। এখন থেকে সব সন্তানই স্কুলে যাবে। নিরাপত্তার বিষয়টি সরকার কঠোরভাবে দেখবে। এ ঘটনায় যাঁরা উসকানি দিয়েছেন এবং এখনো দিচ্ছেন, তাঁদের খুঁজে বের করে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

ওই সভায় সহিংস ঘটনায় নিহত ব্যক্তিদের আত্মার শান্তি কামনা করে দুই মিনিট নীরবতা পালন করা হয়।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ