রবিবার ২৫ জুলাই ২০২১
Online Edition

এবার শেখ জামালকে হারালো রহমতগঞ্জ

স্পোর্ট রিপোর্টার : পজেবি বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে আবারো ছন্দে ফিরেছে জায়ান্ট কিলার খ্যাত রহমতগঞ্জ মুসলিম ফ্রেন্ডস সোসাইটি। বৃহস্পতিবার ময়মনসিংহের বীর মুক্তিযোদ্ধা রফিক উদ্দিন ভুইয়া স্টেডিয়ামে শেখ জামালকে ১-০ গোলে হারায় তারা। একমাত্র গোলটি করেন সিও জোনাপিও। টানা তিন ম্যাচ হারের পর আবারো জয় পেলো পুরানো ঢাকার দলটি। এই জয়ে ১৪ ম্যাচে ২৫ পয়েন্ট নিয়ে জামালকে নামিয়ে দিয়ে তৃতীয় অবস্থানে উঠে এসেছে রহমতগঞ্জ। 

ম্যাচের শুরু থেকে আক্রমণ-প্রতি আক্রমণে মাতে উভয় দল। তবে বল দখলের লড়াইয়ে এগিয়ে ছিলো জায়ান্ট কিলার খ্যাত রহমতগঞ্জ। প্রথম লেগের অন্তত দশটি ম্যাচে ঝলসে উঠেছিলো পুরান ঢাকার দলটি। কিন্তু ১১ তম ম্যাচ থেকেই ছন্দ হারাতে থাকে তারা। তবে বৃহস্পতিবার কিছুটা ব্যতিক্রম ছিলো তারা। প্রথমার্ধে আক্রমণের ধারটা রহমতগঞ্জেরই বেশি ছিলো। এই অর্ধে অন্তত তিনটি গোলের সুযোগ হাতছাড়া করেছে তারা। ১২ মিনিটে বা প্রান্ত দিয়ে বল নিয়ে বক্সে ঢুকে পোস্ট লক্ষ্য করে শট নিয়েছিলেন রহমতগঞ্জের কঙ্গোর ফরোয়ার্ড সিও জোনাপিও। কিন্তু খুব সহজেই বল গ্রিপে নিয়েছেন জামালের গোলরক্ষক হিমেল। ১৯ মিনিটে প্রতিপক্ষের দুই খেলোয়াড়কে কাটিয়ে বল নিয়ে বক্সে ঢুকে শট নিয়েছিলেন মেহবুব হাসান নয়ন। কিন্তু শট নিলেও বল জড়ায়নি জালে। ২৫ মিনিটে ডান প্রান্ত দিয়ে শট নিয়েছিলেন জামালের অভিজ্ঞ মিডফিল্ডার এনামুল হক। কিন্তু বক্সে বল  ক্লিয়ার করেছেন রহমতগঞ্জের অধিনায়ক শওকত রাসেল। ২৭ মিনিটে দারুণ একটা সুযোগ সৃষ্টি করেছিলেন জামালের ডিফেন্ডার লিংকন। দুই ডিফেন্ডারকে কাটিয়ে বল নিয়ে বক্সে ঢুকে পড়েছিলেন। কিন্তু শেষ পর্যন্ত ডিফেন্ডারদের বাধার মুখে শট নিতে পারেননি এই ডিফেন্ডার।

৩০ মিনিটে সিও জোনাপিও গোলের একটা সুযোগ সৃষ্টি করেছিলেন। কিন্তু তাকে বক্সে ট্যাকল করে বল ক্লিয়ার করেন জামালের আক্রমণ ভাগের খেলোয়াড় শিহাব। ৩৫ মিনিটে বক্সের বাইরে থেকে সতীর্থকে উদ্দেশ্য করে এনামুলের বাড়িয়ে দেয়া বল বক্সে ক্লিয়ার করেন রহমতগঞ্জের নাইজেরিয়ান ডিফেন্ডার এলিটা বেনজামিন জুনিয়র। ৩৯ মিনিটে এলিটা বেনজামিনের বাড়িয়ে দেয়া বলে বা পায়ে চমৎকার ভলি নেন গামবিয়ান ফরোয়ার্ড দাওদা সিসে। কোন মতে কর্ণারের বিনিময়ে দলকে এ যাত্রা রক্ষা করেন জামালের গোলরক্ষক। প্রথমার্ধে ধরা দেয়নি কাংখিত গোল। ফলে গোলশূন্য থেকেই বিশ্রামে যায় উভয় দল।

দ্বিতীয়ার্ধে আক্রমণের ধারটা বাড়ায় শেখ জামাল। ৬১ মিনিটে বক্সের বাইরে থেকে গামবিয়ান মিডফিল্ডার ল্যান্ডিং ডার্বোয়ের শট কোনমতে ক্লিয়ার করেন রহমতগঞ্জের গোলরক্ষক। ৬৪ মিনিটে পেনাল্টি এরিয়ার দুই-তিন গজ দূর থেকে এমেকা ডালিংটনের দূরপাল্লার শট অল্পের জন্য জড়ায়নি জালে। ৬৮ মিনিটে এগিয়ে যায় রহমতগঞ্জ। ফয়সাল মাহমুদের কর্নার থেকে বল পেয়ে বক্সে হেড নেন মিডফিল্ডার দিদারুল আলম। গোলরক্ষক হিমেল বল ফিরিয়ে দেন। ফিরতি বলে প্রায় ফাকা পোস্ট পেয়ে বা পায়ের দুর্দান্ত শটে লক্ষ্যভেদ করেন সিও জোনাপিও (১-০)। ৭৪ মিনিটে সুযোগ এসেছিলো জামালেরও। বক্সের খুব কাছেই ল্যান্ডিংকে ফাউল করেন এলিটা। রেফারি ফ্রি কিক ও হলুদ কার্ডের নির্দেশ দেন। ল্যান্ডিংয়ের দারুণ ভলি বারে লেগে ফেরত আসে। ফিরতি বলে চেষ্টা করেছিলেন বদলী মিডফিল্ডার সরোয়ার জামান নিপু। কিন্তু ভাগ্য সহায় হলো না শেখ জামালের, তাই গোল পায়নি তারা। শেষ পর্যন্ত পয়েন্ট খুইয়েই মাঠ ছেড়েছে লিগের বর্তমান চ্যাম্পিয়নরা।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ