শনিবার ১৫ আগস্ট ২০২০
Online Edition

হিলারিকে ভোট দিয়ে ৯৬ বছরের আক্ষেপ ঘুচবে...

৪ নবেম্বর, বিবিসি : মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে আজ মঙ্গলবার লাখো নারী এমন কিছু করবেন, যা এর আগে করার কখনোর সুযোগ পাননি তারা। ভোটাধিকার পাওয়ার পর এই প্রথম তারা প্রেসিডেন্ট পদে কোনো নারী প্রার্থীকে ভোট দেবেন। ১৯২০ সালের ১৮ আগস্টের আগ পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্রের নারীদের কোনো ভোটাধিকার ছিল না। মার্কিন সংবিধানের ১৯তম সংশোধনী পাস হওয়ার পর নারীরা ভোটাধিকার অর্জন করেন। তাই নারীকে প্রার্থীকে ভোট দেওয়ার সুযোগের জন্য তাদের অপেক্ষা করতে হয়েছে ৯৬ বছর। তাদেরই একজন এসটেল শুলৎজ। বয়স ৯৮ বছর।
গত অক্টোবরেই এসটেল তার পোস্টাল ব্যালটে ভোট দিয়েছেন। বলেন, তিনি বুঝতে পারছেন পরিস্থিতি কতটা হৃদয়স্পর্শী হতে পারে। তাই তিনি তার নাতনি সারাহ বুইনিন বেনরকে তাঁর পোস্টাল ব্যালটসহ একটি ছবি ফেসবুকে দিতে বলেন। কারণ, তিনি কম্পিউটার চালাতে পারেন না।এই ছবি ফেসবুকে পোস্ট করার পর শত শত লাইক পড়ে। অনেকে সারাহ ও তাঁর পরিবারকে এ ধরনের আরও ঘটনা খুঁজতে বলেন। এরপরই সারাহ ও তাঁর দুই বন্ধু মিলে ‘আই ওয়েটেড নাইনটি সিক্স ইয়ারস’ নামে একটি ওয়েবসাইট খোলেন। সেখানে দাদির ছবিটি পোস্ট করা হয়। কয়েক দিনের মধ্যে সেখানে ১ হাজার ৬০০ লাইক পড়ে। আর নারীর ভোটাধিকার যুগের আগে জন্ম নেওয়া নারীদের মন্তব্যে ভরে যায়। তাঁরা সবাই হিলারি ক্লিনটনের সমর্থক। অনেকের আবার বয়স এতটাই যে নারীদের ভোটাধিকার পাওয়ার বিষয়টি তাঁদের মনে নেই। ম্যাসাচুসেটসের ১০৩ বছর বয়সী জুলিয়েট বার্নস্তেইনেইর জন্ম ১৯১৩ সালে। তিনি বলেন, ‘আমার মনে আছে, নারীরা ভোটাধিকার পাওয়ার পর প্রথম যেবার নারীরা ভোট দিতে গেলেন, সেবার মায়ের সঙ্গে ঘোড়ায় চড়ে ভোটকেন্দ্রে গিয়েছিলাম।’ শিকাগোর ৯৮ বছর বয়সী বেতরাইস লাম্পকিন বলেন, ‘যেসব নারী প্রথম তাঁদের চুল ছোট করেন এবং লম্বা স্কার্ট থেকে ছোট স্কার্ট পরতে শুরু করেন, তাঁদের মধ্যে একজন আমার মা।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ