শুক্রবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০
Online Edition

পার্বত্য বাঙ্গালি ছাত্রপরিষদের রজত জয়ন্তী উদযাপিত 

বিপুল উৎসাহ ও উদ্দিপনার মধ্য দিয়ে রজত জয়ন্তী পালন করেছে পার্বত্য বাঙ্গালি ছাত্র পরিষদ। ২৫ বছর পূর্তি ও রজত জয়ন্তী  উপলক্ষে পার্বত্য বাঙ্গালি ছাত্র পরিষদ ঢাকা মহানগর শাখার উদ্যোগে  গত শনিবার রাজধানীর তোপখানায় বাংলাদেশ শিশুকল্যাণ পরিষদের অডিটরিয়ামে এক আলোচনা সভা ও সম্মাননা পদক প্রদান অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে বাঙ্গালি ছাত্র পরিষদের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি, পার্বত্য নাগরিক পরিষদের চেয়ারম্যানও ৫ বাঙ্গালি সংগঠনের আহবায়ক ইঞ্জিঃ আলকাছ আল মামুন ভুঁইয়াকে সম্মাননা পদক তুলে দেন পার্বত্য বাঙ্গালি ছাত্র পরিষদ, ঢাকা মহানগর শাখার সভাপতি শাহাদৎ ফরাজি সাকিব এবং প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক ও পার্বত্য নাগরিক পরিষদের মহাসচিব এড. এয়াকুব আলী চৌধুরীর হাতে রজত জয়ন্তী সম্মাননা পদক তুলে দেন ছাত্রপরিষদের ঢাকা মহানগর কমিটির সাধারণ সম্পাদক এড. সারোয়ার। অনুষ্ঠান শেষে পার্বত্য চট্টগ্রামকে নিয়ে স্বরচিত কবিতা আবৃতি করেন পার্বত্য নাগরিক পরিষদের নেত্রী, কবি ও লেখক ফাতেমা আক্তার রুনা।

সাহাদাৎ ফরাজি সাকিবের সভাপতিত্বে ও ইব্রাহিম মনিরের সঞ্চালনায় ,উক্ত সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অবঃ) সৈয়দ মোহাম্মদ ইবরাহিম (বীর প্রতিক)। বিশেষ অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টির সহ-সভাপতি সহিদুল ইসলাম তামান্না, পার্বত্য গণপরিষদের মহাসচিব এড. আলম খান, নাগরিক পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক শেখ আহম্মেদ রাজু, পার্বত্য নাগরিক পরিষদের কেন্দ্রীয় নেতা আবদুল হামিদ রানা ও ইসমাইল নবী শাওন, বাঙ্গালি ছাত্র পরিষদের ভারপ্রাপ্ত কেন্দ্রীয় সভাপতি ইঞ্জিঃ সভাপতি আব্দুল মজিদ, পার্বত্য বাঙ্গালি ছাত্র পরিষদের সাধারণ সম্পাদক সারোয়ার জাহান খান, পার্বত্য বাঙ্গালি ছাত্র পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক ছাদেকুর রহমান, ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় নেতা মো: মিজানুর রহমান সুমন ও মো: নূরুল ইসলাম ছোটন, বিএন পি নেতা আশরাফ আলী মৃধ (টুটুল) সাংবাদিক মো: ফারুক আজম, আবুল কালাম এবং এনামুল হক প্রমুখ। 

মেজর জেনারেল (অব) সৈয়দ মোহাম্মদ ইবরাহিম (বীর প্রতীক) বলেন, পার্বত্য বাঙ্গালি ছাত্র পরিষদ একটি ঐতিয্যবাহী আর্দশ ছাত্র সংগঠন। এসময় তিনি পার্বত্য অঞ্চলের বিভিন্ন তিক্ত অভিজ্ঞতার কথা তুলে ধরে বলেন, পার্বত্য অঞ্চলে বসবাসরত ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠিদের তুলনায় পাহাড়ে বাঙ্গালিরা দিন দিন পিছিয়ে পড়ছে। এমতস্থায় তিনি পার্বত্য অঞ্চলের বসবাসরত সকল জাতিস্বত্তার সমান অধিকার নিশ্চিত করার দাবি করেন। ইঞ্জি. আলকাছ আল মামুন ভুঁইয়া বলেন, আমাদের আন্দোলন কোন উপজাতি বা সম্প্রদায়ের বিরুদ্ধে নয়,আমাদের আন্দোলন অধিকার আদায়ের আন্দোলন। অধিকার বঞ্চিত জাতির জন্য বীরের মত মরতেও রাজি আছি। এ সময় তিনি অনেকটা আবেগাপ্লুুত হয়ে পড়েন। তিনি  ছাত্র পরিষদের প্রতিষ্ঠার ইতিহাস ও ঐতিহ্য তুলে ধরে বলেন, পার্বত্য বাঙ্গালি ছাত্র পরিষদের সাংগঠনিক রূপ দিতে আমাকে অনেক চড়াই উৎরাই পার করতে হয়েছে, সেই ১৯৯১ সালের ১লা নভেম্বর যাত্রা শুরু করে বাঙ্গালিদের সাংবিধানিক অধিকারের জন্য আন্দোলন সংগ্রাম দীর্ঘ সময় অতিক্রম করেছি। 

মাসব্যাপী কর্মসূচি ঘোষণা : ১৯শে নবেম্বর রাঙ্গামাটি জেলায় এবং ২৫শে নবেম্বর বান্দরবান জেলায় মতবিনিময়, ২৮শে নবেম্বর সকাল সাড়ে ১০ টায় প্রধানমন্ত্রী বরাবর ভুমি বিরোধ নিষ্পত্তি কমিশন আইন ২০১৬ বাতিলের দাবিতে স্মারকলিপি প্রদান এবং ২রা ডিসেম্বর ঢাকায় আলোচনা সভা। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ