ঢাকা, শুক্রবার 7 May 2021, ২৪ বৈশাখ ১৪২৮, ২৪ রমযান ১৪৪২ হিজরী
Online Edition

চুইংগাম: ভাল না খারাপ?

অনলাইন ডেস্ক: চুইংগামের ব্যবহার হয়ে আসছে হাজার বছর ধরে।বহু ধরনের এবং আকৃতির চুইংগাম রয়েছে।আধুনিক কালে বেশিরভাগ চুইংগাম তৈরি হয় এক ধরনের সিনথেটিক রাবার থেকে।

চুইংগামের কি কোন স্বাস্থ্যগত উপকার রয়েছে? অথবা রয়েছে কি কোন স্বাস্থ্যঝুঁকি? এ নিয়েই আজকের এই লেখা।

চুইংগাম কী?

চুইংগাম হল ক্রমাগত চিবাতে হয় এমন লজেন্স বিশেষ, যা এক প্রকার নরম রাবার জাতীয় বস্তু দিয়ে তৈরি। এটি চিবানো বা লেহনযোগ্য কিন্তু খাবারযোগ্য নয়।বিভিন্ন ব্রান্ডের চুইংগামের রেসিপির মধ্যে ভিন্নতা থাকলেও সব ধরনের চুয়িংগামের মধ্যেই নিম্নলিখিত মৌলিক উপাদানগুলো রয়েছে:

  • গাম: হজম অযোগ্য রাবার ধরনের বস্তু, যাকে চিবানোর উপযুক্ত করে তৈরি করা হয়।
  • রেসিন: সাধারণত গামকে অটুট এবং সংযুক্ত রাখার জন্য এটি মিশানো হয়।
  • ফিলারস: এটি এক ধরনের কেলসিয়াম কার্বোনেট বা টেলকম জাতীয় পদার্থ, যা গামকে বিন্যস্ত করতে ব্যবহার করা হয়।
  • প্রিজারভেটিভ: এগুলো মেশানো হয় গামের স্থায়িত্বকাল বৃদ্ধির জন্য। সাধারণত বাটিলেটেড হাইড্রোক্সিলিউন (বিএইচটি) নামক এক ধরনের অর্গানিক কম্পাউন্ড প্রিজারভেটিভই বেশি ব্যবহার করা হয়।
  • সফটনার্স: গামটি যেন নরম থাকে, শক্ত হয়ে না যায় এবং এর মধ্যে যাতে আদ্রতা বজায় থাকে সেজন্যেই এই উপাদানটি ব্যবহার করা হয়।
  • মিষ্টিকারক পদার্থ: চুইংগামকে মিষ্টি স্বাদ দেয়ার জন্য কেইন সুগার, বীট সুগার এবং কর্ন সিরাপই সবচেয়ে বেশি ব্যবহার করা হয়।আর সুগার ফ্রি চুইংগাম তৈরি করার জন্য ব্যবহার করা হয় জিলিটল জাতীয় এলকোহল অথবা এ্যাসপারটেম জাতীয় কৃত্রিম মিষ্টিকারক পদার্থ।
  • ফ্লেভার: চুইংগামে বিভিন্ন ধরনের সুঘ্রাণ দেয়ার জন্য বিভিন্ন ধরনের ফ্লেভার যুক্ত করা হয়। এটি হতে পারে ন্যাচারাল বা সিনথেটিক।

বেশিরভাগ চুইংগাম উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানই তাদের আসল রেসিপিগুলো গোপন রাখে।তবে উৎপাদন প্রক্রিয়ার  সকল উপাদানকেই ‘ফুড গ্রেড’ মান রক্ষা মানুষের ব্যবহারযোগ্য হতে হয়।

 ডি.স/আ.হু

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ