রবিবার ৩১ মে ২০২০
Online Edition

দুর্নীতির অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় স্টার জুট মিলের তিন কর্মচারী চাকরিচ্যুত

খুলনা অফিস : খুলনার দিঘলিয়ায় রাষ্ট্রায়ত্ত স্টার জুট মিলে দুর্নীতির অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় তিন কর্মচারীকে চাকরিচ্যুত করা হয়েছে। এর মধ্যে বৃহস্পতিবার দু’জনকে এবং গত ১০ অক্টোবর অন্যজনকে চাকরিচ্যুত করা হয়। চাকরিচ্যুতরা হলেন, ১নং মিলের ম্যাকানিক্যাল বিভাগের প্রধান পিনবয় মো. দেলোয়ার হোসেন ও একই বিভাগের পিনবয় কার্তিক চন্দ্র। মিলের প্রকল্প প্রধান আবুল কালাশ হাজারী স্বাক্ষরিত পত্রে এ আদেশ দেয়া হয়। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় এ সংক্রান্ত আদেশের কপি নোটিশ বোর্ডে টানিয়ে দেয়া হয়েছে। মিলের প্রশাসনিক শাখার সূত্র জানান, চাকরিচ্যুত দেলোয়ার হোসেন ও কার্তিক চন্দ্র ১নং মিলের ম্যাকানিক্যাল বিভাগের যন্ত্রাংশ (পিন) আত্মসাৎ করতে ব্যর্থ হয়ে ডাস্টবিনে ফেলে দেয়। এতে মিলের লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি হয়। তদন্তে এ অভিযোগের সত্যতা মেলায় তাদের টার্মিনেশন করা হয়। অপরদিকে, ২নং মিলের ব্যাচিং বিভাগের (১নং মিলের সমাপনী বিভাগের সময় রক্ষক হিসেবে কর্মরত) রমজান আলীকে ১০ অক্টোবর চাকরিচ্যুত করা হয়। মিলের উপ-ব্যবস্থাপক (শ্রম ও কল্যাণ) স্বাক্ষরিত পত্রে এ আদেশ দেয়া হয়। তার বিরুদ্ধে ভুয়া হাজিরা দেখিয়ে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় এ ব্যবস্থা নেয়া হয়। আদেশে উল্লেখ করা হয়, ‘বদলী শ্রমিক ইসমাইল ও ফিরোজের নামে ভুয়া হাজিরা দেখিয়ে অর্থ উত্তোলন করে আত্মসাতের ফলে মিল আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। যে কারণে তার গেট পাস বাতিল এবং মিল অভ্যন্তরে প্রবেশ নিষিদ্ধ করা হলো। এদিকে, গত বুধবার রাতে ১নং মিলের ম্যাকানিক্যাল বিভাগের প্রকৌশলী শাহ জামাল খানের অফিসের ছাদ থেকে কয়েক লাখ টাকা মূল্যের বিভিন্ন যন্ত্রাংশ উদ্ধার করা হয়। যা মিলের যান্ত্রিক বিভাগ থেকে পাচার করা হয়। 

সূত্র জানায়, মিল সিবিএ’র কতিপয় দুর্নীতিবাজ নেতা এবং কয়েকজন অসাধু কর্মকর্তা বিভিন্ন ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে যোগসাজশে টেন্ডার ছাড়াই মিলে মালাশাল সরবরাহ করেন। এর মধ্যে ফখরুল এন্টারপ্রাইজসহ নামে-বেনামে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান এ কর্মকান্ডের সঙ্গে যুক্ত বলেও সূত্র দাবি করেছে। বিষয়টি তদন্তে আরও বড় ধরনের দুর্নীতির চিত্র বেরিয়ে আসতে পারে বলেও সূত্রের ধারণা।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ