ঢাকা, মঙ্গলবার 29 September 2020, ১৪ আশ্বিন ১৪২৭, ১১ সফর ১৪৪২ হিজরী
Online Edition

১৫-১৬ জুলাই আসেম সামিট: যোগ দিবেন প্রধানমন্ত্রী

অনলাইন ডেস্ক : উলান বাটোরে ১৫-১৬ জুলাই অনুষ্ঠিতব্য একাদশ আসেম সামিটে যোগ দিতে মঙ্গোলিয়া সফরে যাচ্ছেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এশিয়া-ইউরোপ আন্তঃমহাদেশীয় আর্থ-সামাজিক-সাংস্কৃতিক অংশীদারিত্ব জোট Asia-Europe Meeting (ASEM)-এর দ্বিবার্ষিক এই সামিটে প্রধানমন্ত্রীর অংশগ্রহনের বিষয়টি বাংলাদেশ দূতাবাস বেইজিংয়ের দায়িত্বশীল সূত্র ২৮ জুন এই প্রতিবেদককে নিশ্চিত করেছে। মঙ্গোলিয়ার রাজধানীতে বহুজাতিক এই সামিটে ‘আসেম’ ভুক্ত ইউরোপ ও এশিয়ার ৫১টি দেশের রাষ্ট্র ও সরকার প্রধানরা যোগ দেবেন বলে আশা করা হচ্ছে। উলান বাটোর সামিটের মধ্য দিয়ে একইসাথে আসেম উদযাপন করতে যাচ্ছে তার ২ দশক পূর্তি।

একবিংশ শতাব্দীর চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় ইউরোপ ও এশিয়ার দেশসমূহের মধ্যে রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও শিক্ষা সংক্রান্ত সহযোগিতামূলক সম্পর্কের গভীরতা নিশ্চিত করতে ১৯৯৬ সালে থাইল্যান্ডে প্রতিষ্ঠিত হয় এশিয়া-ইউরোপ মিটিং (আসেম)। প্রতিষ্ঠাকালীন সময়ে ব্যাংককেই অনুষ্ঠিত হয় এর প্রথম সামিট। ৫১ টি রাষ্ট্র ছাড়াও ‘ইউরোপিয়ান কমিশন’ এবং ‘আসিয়ান সেক্রেটারিয়েট’ এই দু’টি আন্তর্জাতিক অর্গানাইজেশন ‘আসেম’-এর সদস্য হিসেবে কাজ করছে। ২০ বছর আগে আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরুর পর থেকে এশিয়া-ইউরোপ পালাক্রমে প্রতি দু’বছর পরপর বিভিন্ন দেশে গুরুত্বপূর্ণ ‘আসেম’ সামিট অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে।

১৯৯৮ সালে দ্বিতীয় আসেম সামিটটি হয় যুক্তরাজ্যে। তারপর ২০০০ সালে দক্ষিণ কোরিয়ায়, ২০০২ সালে ডেনমার্কে, ২০০৪ সালে ভিয়েতনামে, ২০০৬ সালে ফিনল্যান্ডে, ২০০৮ সালে চীনে, ২০১০ সালে বেলজিয়ামে, ২০১২ সালে লাওসে এবং সর্বশেষ ২০১৪ সালে ইতালীতে অনুষ্ঠিত হয় ‘আসেম’ সামিট। মঙ্গোলিয়াতে এবারের সামিট আসেমের জন্য একাদশ আয়োজন হলেও বাংলাদেশের জন্য তৃতীয় উপস্থিতি। ২০১২ সালে আসেমের সদস্যপদ লাভ করে বাংলাদেশ। ঐ বছর লাওসে বাংলাদেশের পতাকা তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ২০১৪ সালে ইতালীর বানিজ্যিক রাজধানী মিলানে অনুষ্ঠিত সর্বশেষ সামিটেও অংশ নেয়ার পর টানা তৃতীয় বারের মতো আসেম সামিটে যোগ দিতে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর এবারের মঙ্গোলিয়া মিশন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ