ঢাকা, মঙ্গলবার 29 September 2020, ১৪ আশ্বিন ১৪২৭, ১১ সফর ১৪৪২ হিজরী
Online Edition

লঞ্চের অগ্রিম কেবিন বুকিং নেওয়া শুরু হয়েছে

অনলাইন ডেস্ক:দেশের ৪১টি নৌ-পথে ঈদে ঢাকা থেকে লঞ্চ যাতায়াতে যাত্রীদের সুবিধার্থে শনিবার (২৫ জুন) থেকে অগ্রিম টিকিট বিক্রি শুরু হয়েছে।

রোববার (২৬ জুন) লঞ্চের অগ্রিম কেবিন বুকিংয়ের বিষয়টি জানিয়েছেন বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ চলাচল যাত্রী পরিবহন সংস্থার হিসাব রক্ষক মো. হান্নান খান।

তিনি বলেন, আগের ভাড়াতেই ঈদের অগ্রিম কেবিন বুকিং দিচ্ছে লঞ্চ কর্তৃপক্ষ। 

লঞ্চের ডেকের যাত্রীদের জন্য অগ্রিম টিকিটের কোনো ব্যবস্থা নেই। শুধু কেবিন যাত্রীদের জন্য অগ্রিম বুকিংয়ের ব্যবস্থা রেখেছে লঞ্চ কর্তৃপক্ষ।

এদিকে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহন কর্তৃপক্ষ’র (বিআইডব্লিউটিএ) পরিবহন পরিদর্শক মো. মাহফুজ বলেন, দেশের ৪১টি নৌ-পথে ঢাকা থেকে লঞ্চ ছেড়ে যায়। এসব রুটে বর্তমানে প্রায় ১৮০টি লঞ্চ চলাচল করে।

অন্যদিকে ঈদ উপলক্ষে আরও চার থেকে পাঁচটি নতুন লঞ্চ আসবে। আর এ নতুন লঞ্চগুলো ফিটনেস, টাইম ও রুট পার্মিট পেলেই ঈদ যাত্রায় যুক্ত হবে বলে জানান তিনি।

ঢাকা-বরিশাল রুটের প্রায় প্রতিটি লঞ্চে ১৫০ থেকে ১৮০টি কেবিন রয়েছে। এছাড়া অন্য সব রুটের লঞ্চে ৮০ থেকে ১২০টি কেবিন থাকে।

বর্তমানে ঢাকা-বরিশাল রুটের লঞ্চে ডেকের ভাড়া ১৫০ টাকা। আর কেবিন ডাবল (এসি) ১৮শ’ টাকা, কেবিন ডাবল (নন এসি) ১৬শ’ টাকা। কেবিন সিঙ্গেল (এসি) এক হাজার টাকা, কেবিন সিঙ্গেল (নন এসি) ৮৫০ টাকা।

এছাড়া ঢাকা-হুলারহাট রুটে বর্তমান ডেকে ভাড়া ২৫০ টাকা। কেবিন ডাবল ১৮শ’ টাকা, কেবিন সিঙ্গেল এক হাজার টাকা।

তবে ঈদ উপলক্ষে বর্তমান ভাড়াতেই টিকিট পাবেন যাত্রীরা এমন কথা জানান বিআইডব্লিউটিএ পরিবহন পরিদর্শক মো. মাহফুজ।

এদিকে ঈদ উপলক্ষে যাত্রী সুবিধার জন্য অত্যাধুনিক চারটি লঞ্চ ঢাকা-বরিশাল, ঢাকা-পটুয়াখালী, ঢাকা-চাঁদপুর রুটে চলাচল করবে।

ঢাকা-বরিশাল রুটের লঞ্চ সুন্দরবন-১০ ও পারাবত-১২। ঢাকা-পটুয়াখালী রুটে এ আর খান এবং ঢাকা-চাঁদপুর রুটে বোগদাদিয়া-৭।

তবে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ-চলাচল যাত্রী পরিবহন সংস্থার হিসাব রক্ষক মো. হান্নান খান জানান, ঈদ উপলক্ষে ১০ থেকে ১২টি নতুন লঞ্চ সদরঘাট থেকে ছেড়ে যাবে।

অন্যদিকে দ্রুতগতির লঞ্চ গ্রিনলাইন ঈদের সময় তাদের নির্ধারিত সময় অনুযায়ী চলাচল করবে। এ লঞ্চের যাত্রীদের জন্য পূর্ব নির্ধারিত ভাড়া বহাল থাকবে বলে জানা গেছে বিআইডব্লিউটএ সূত্রে।

বর্তমানে গ্রিনলাইনের ভাড়া ৭শ’ থেকে এক হাজার টাকা। লঞ্চটি সদরঘাট থেকে বরিশালের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যাবে সকাল ৮টা এবং দুপুর ৩টায়।

ঈদ উপলক্ষে এসএম গ্রুপ পাঁচটি লঞ্চ দেশের বিভিন্ন নৌ রুটে চলাচলের জন্য আনবে বলে জানিয়েছেন নৌ নিরাপত্তা ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা বিভাগের বিআইডব্লিউটিএ যুগ্ম পরিচালক মো. জয়নাল আবেদিন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ