রবিবার ৩১ মে ২০২০
Online Edition

গাজীপুরে কারারক্ষী খুনের ঘটনায় মামলা॥ প্রধান আসামী গ্রেফতার

গাজীপুর সংবাদদাতা : গাজীপুরের কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগারের অবসর-পূর্ব ছুটিতে থাকা (পিআরএল) সার্জেন্ট ইন্সট্রাক্টর রুস্তম আলী হাওলাদার কারা ফটকের সামনে গুলীতে নিহত হওয়ার ঘটনায় জয়দেবপুর থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। নিহতের স্ত্রী নাসরিন আক্তার বাদী হয়ে গতকাল মঙ্গলবার ওই মামলাটি দায়ের করেন। পুলিশ ওই মামলার প্রধান আসামীকে গ্রেফতার করেছে। গ্রেফতারকৃতের নাম মোঃ হিমেল (২২)। সে গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের দেওলিয়াবাড়ির হাসান আলীর ছেলে এবং রাজধানীর উত্তরা ইউনিভার্সিটির ছাত্র। এদিকে খুনের ঘটনার পর এলাকার মানুষের আতঙ্ক এখনো কাটেনি। ঘটনাস্থলের মার্কেটগুলো মঙ্গলবারও বন্ধ থাকে বলে এলাকাবাসী জানিয়েছে।

মামলায় বাদী উল্লেখ করেন, নিহতের ছোট ভাইয়ের মেয়েকে (ভাতিজি) উত্যক্ত ও অপহরণ করার হুমকি দিয়ে আসছিল বখাটে যুবক হিমেল। এসবের প্রতিবাদ করতেন বাদীর স্বামী রুস্তম আলী। এতে হিমেল ক্ষিপ্ত হয়ে সঙ্গীদের নিয়ে রুস্তম আলীকে নানা হুমকি দিতে থাকে। ওই ঘটনার জের ধরে পূর্বপরিকল্পিতভাবে এ হত্যাকাণ্ড ঘটানো হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। 

জয়দেবপুর থানার ওসি খন্দকার রেজাউল হাসান রেজা ও গাজীপুর ডিবি’র ওসি আমির হোসেন জানান, রুস্তম আলী হাওলাদার খুনের ঘটনায় নিহতের স্ত্রী বাদী হয়ে মঙ্গলবার মামলা দায়ের করেন। মামলায় হিমেলকে প্রধান আসামী করে ৪ জনের নাম উল্লেখ এবং আজ্ঞাত আরো ৪/৫ জনকে আসামী করা হয়েছে। মামলার আসামীরা হলো- গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের দেওলিয়াবাড়ির হাসান আলীর ছেলে মোঃ হিমেল (২২), একই এলাকার কাসেম আলী মাদবরের ছেলে আলতাফ (২৭), আব্দুস সালামের ছেলে আকাশ (২২) ও তাইজুদ্দিনের ছেলে সোহরাব (২২)। পুলিশ অভিযান চালিয়ে মামলার প্রধান আসামী হিমেলকে গ্রেফতার করেছে। এর আগে একই ঘটনায় নিহতের জামাতা সোহেল রানা (৩৫) এবং ঘটনাস্থল থেকে ফার্মেসীর মালিক সাইফুল ইসলাম ও পথচারী রফিককে সোমবার থানায় নিয়ে পুলিশ ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ করে। জিজ্ঞাসাবাদ শেষে ৩জনকে মঙ্গলবার ছেড়ে দেয়া হয়েছে। গাজীপুর ডিবি মামলাটির তদন্ত করছেন।

উল্লেখ্য, গাজীপুরের কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগারের প্রাক অবসর ছুটিতে থাকা (পিআরএল) সার্জেন্ট ইন্সট্রাক্টর রুস্তম আলী (৫৯) সোমবার সকালে কারা ফটকের সামনে ফার্মেসীর দোকানে দুর্বৃত্তদের গুলীতে নিহত হন। তার দেহে মোট ৬টি গুলী বিদ্ধ হয়। এঘটনায় পুলিশ তাৎক্ষণিকভাবে নিহতের জামাতা সোহেল রানা, ফার্মেসীর মালিক সাইফুল ইসলাম ও পথচারী রফিককে আটক করে থানায় নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে। এঘটনা তদন্তের জন্য গাজীপুর জেলা পুলিশ এবং কারা কর্তৃপক্ষ পৃথক দু’টি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে। এর মধ্যে ডিআইজি প্রিজন গোলাম হায়দারকে প্রধান করে কারা কর্তৃপক্ষের পক্ষ থেকে ৩ সদস্যের একটি এবং অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ সোলাইমানকে প্রধান করে গাজীপুর জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে ৪ সদস্যের একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। নিহত রুস্তম আলী হাওলাদার (৫৯) কুমিল্লা জেলার কতোয়ালী থানার দক্ষিণ চরতা গ্রামের আব্দুল মান্নান হাওলাদারের ছেলে। তবে তার জন্মস্থান পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া থানার চড়গাছিয়া এলাকায়।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ