রবিবার ৩১ মে ২০২০
Online Edition

অর্থ লুটপাটের ব্যবস্থা থাকায় দেশে সম্পদের বৈষম্য বাড়ছে

স্টাফ রিপোর্টার : লুটপাট ও অর্থ হাতিয়ে নেয়ার ব্যবস্থা থাকায় বাংলাদেশসহ বিশ্বে সম্পদ বৈষম্য বাড়ছে। পৃথিবীতে অভূতপূর্ব সম্পদ থাকলেও তা অধিকাংশ মানুষকে এগিয়ে নিতে পারেনি।

গতকাল মঙ্গলবার রাজধানী ঢাকার আগারগাঁওয়ে পিকেএসএফ ভবনে সমঝোতা স্মারক সই অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ পল্লী কর্ম সহায়ক ফাউন্ডেশন (পিকেএসএফ) চেয়ারম্যান ড. কাজী খলীকুজ্জমান এ কথা বলেন। অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন- আইডিইবির সভাপতি একেএমএ হামিদ, পিকেএসএফের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. আব্দুল করিম প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে দারিদ্র্য বিমোচনের উদ্দেশ্যে তৃণমূল পর্যায়ের উদ্যোক্তাদের মধ্যে প্রযুক্তি হস্তান্তরের লক্ষ্যে পিকেএসএফ এবং ইনস্টিটিউশন অব ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স বাংলাদেশ (আইডিইবি) এর মধ্যে সমঝোতা স্মারক সই হয়। পিকেএসএফের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. আবদুল করিম এবং আইডিইবির সভাপতি প্রকৌশলী এ কে এম এ হামিদ স্ব স্ব প্রতিষ্ঠানের পক্ষে সমঝোতা স্মারকে সই করেন।

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, আইডিইবির উদ্ভাবিত এবং দেশের কৃষি ও অকৃষি খাতের উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধিতে সহায়ক বিভিন্ন প্রযুক্তি এবং যন্ত্রপাতি তৃণমূল পর্যায়ের কৃষক ও উদ্যোক্তাদের মধ্যে ছড়িয়ে দেয়ার উদ্দেশ্যে এই সমঝোতা স্মারক সই হয়।

খলীকুজ্জমান বলেন, ধনী-দরিদ্র বৈষম্য কমিয়ে আনতে হবে। মানুষকে মানুষ হিসেবে দেখতে হবে। যারা মানুষকে নিয়ে কাজ করে, তাদের সঙ্গে সহমর্মিতা বাড়াতে হবে। 

তিনি বলেন, যত সমালোচনায় থাকুক, দেশে কৃষি শ্রমিকের মজুরি বেড়েছে। এখন একদিনের মজুরিতে ১০/১১ কেজি চাল কেনা যায়। আগে একদিনের মজুরিতে সাড়ে তিন কেজির বেশি চাল কেনা যেত না। কৃষি কীভাবে বিকশিত হয়েছে, তা না দেখলে বোঝা যাবে না। তবে অর্থনৈতিক উন্নয়নের পাশাপাশি এখন সামাজিক উন্নয়ন দরকার।

এই সমঝোতার মাধ্যমে পিকেএসএফের বাস্তবায়নাধীন বিভিন্ন কর্মসূচি ও প্রকল্পের সদস্যরা আইডিইবির উদ্ভাবিত নানাবিধ কৃষি ও অকৃষি প্রযুক্তি সহায়তা গ্রহণের সুযোগ পাবেন। সমঝোতা স্মারকের আওতায় পিকেএসএফ বিভিন্ন অর্থনৈতিক খাতের প্রযুক্তিগত বাধা চিহ্নিত করে তা দূরীকরণে প্রযুক্তি, কারিগরি সহায়তা, প্রশিক্ষণ ইত্যাদির চাহিদা নির্ধারণ করবে এবং আইডিইবি চাহিদা অনুযায়ী তাদের উদ্ভাবিত প্রযুক্তি, যন্ত্রপাতি প্রশিক্ষণ সহায়তা দেবে।

বিভিন্ন অর্থনৈতিক উপখাতের প্রযুক্তিগত প্রতিবন্ধকতা দূর করে ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের উৎপাদনশীলতা ও আয় বৃদ্ধিতে উভয় প্রতিষ্ঠানের একযোগে কাজ করার উদ্যোগ দারিদ্র্য দূরীকরণে নতুন মাত্রা যোগ করবে বলে আশা করছে প্রতিষ্ঠান দু’টি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ