ঢাকা, মঙ্গলবার 29 September 2020, ১৪ আশ্বিন ১৪২৭, ১১ সফর ১৪৪২ হিজরী
Online Edition

গাজীপুরে স্কুল ছাত্রী মারিয়া হত্যা মামলা: বাড়ির দু’কর্মচারীর ফাঁসি ও এক নারীর কারাদন্ড

গাজীপুর সংবাদদাতা, ৯ ফেব্রুয়ারি ॥ গাজীপুরে চতুর্থ শ্রেণীর ছাত্রী মারিয়া হত্যার ঘটনায় বাড়ীর দু’কর্মচারীকে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদন্ড এবং হত্যাকান্ডের তথ্য গোপন করার দায়ে অপর এক নারীকে ৫ বছরের সশ্রম কারাদন্ডের আদেশ দিয়েছে আদালত। এছাড়াও তাদের প্রত্যেককে অর্থদন্ডে দন্ডিত করা হয়েছে। মঙ্গলবার বিকেলে গাজীপুরের জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক এ কে এম এনামুল হক এ রায় ঘোষণা করেন। ফাঁিসর দন্ড প্রাপ্তরা হলো ফরিদপুর জেলার মাইজা মিয়ার ডাঙ্গী গ্রামের আক্কাছ আলীর ছেলে মোঃ সুমন শেখ (২০) ও বাড়ীর সিকিউরিটি গার্ড সিরাজগঞ্জ জেলার ধুকুরিয়া বেড়া গ্রামের মৃত গোলাম মুর্তজার ছেলে আব্দুল আলীম (৪৩)। অপর দন্ডিত হলো আব্দুল আলীমের স্ত্রী শেফালী বেগম (৩২)। রায় ঘোষণাকালে মামলার বাদী ও দুই আসামী আলিম ও শেফালী আদালতে উপস্থিত ছিলো। মৃত্যুদন্ড প্রাপ্ত অপর আসামী সুমন জামিন লাভের পর থেকে পলাতক রয়েছে।

মামলার বিবরণে জানা গেছে, গাজীপুর মহানগরীর কোনাবাড়িস্থিত আজিজ ফুড কারখানার ম্যানেজার আক্তারুজ্জামান স্থানীয় হরিনাচালা এসরারনগর এলাকার নিজ বাড়ি ছয় তলা ভবনের তৃতীয় তলায় স্বপরিবারে থাকেন। তার এক ছেলে ও এক মেয়ের মধ্যে মারিয়া আক্তার (১০) ছোট। মারিয়া বাড়ির পার্শ্ববর্তী গাজীপুর শাহীন ক্যাডেট একাডেমি’র চতুর্থ শ্রেণীতে লেখাপড়া করত। বাড়ির নীচ তলায় কারখানার কর্মচারী ও বাড়ির কেয়ার টেকার সুমন এবং স্ত্রী শেফালী বেগমকে নিয়ে বাংলালিংক টাওয়ারের কর্মী ও বাড়ির সিকিউরিটি গার্ড আলিম বসবাস করে। গত ২০১৪ সালের ১৪ জুলাই বিকেলে স্কুল ছুটির পর বাড়ী ফেরার পথে মারিয়া নিখোঁজ হয়। স্থানীয়রা খোঁজাখুঁজি করে মারিয়াকে কোথাও না পেয়ে বাড়ির গ্যারেজে খুঁজতে যায়। এসময় সুমন, আলিম ও শেফালী স্থানীয়দের বাঁধা দেয়। পরে রাতে এলাকাবাসি ওই তিনজনের কাছ থেকে জোর করে চাবি নিয়ে তল্লাশী চালিয়ে গ্যারেজের ভিতর পানির রিজার্ভ টাংকি থেকে নিখোঁজ মারিয়ার স্কুল ব্যাগ ও বইপত্র এবং সুমনের চৌকির নীচ থেকে গলায় টি-সার্ট পেঁচানো মারিয়ার লাশ উদ্ধার করে। এসময় সুমন, আলীম ও শেফালীকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করলে তারা মারিয়াকে হত্যা করার কথা স্বীকার করে। পরে আটককৃতদের পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়। এ ব্যাপারে পরদিন মারিয়ার পিতা বাদী হয়ে জয়দেবপুর থানায় মামলা দায়ের করেন। তদন্ত শেষে পুলিশ গত বছরের (২০১৫ইং) ১৬ ফেব্রুয়ারি ওই তিন আসামীর বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। আদালত স্বাক্ষ্য গ্রহণ ও উভয় পক্ষের শুনানী শেষে মঙ্গলবার রায় ঘোষণা করেন। রায়ে উল্লেখ করা হয়, আসামী সুমন শেখ ও আব্দুল আলীমের বিরুদ্ধে পেনাল কোডের ৩০২/৩৪ ধারার অভিযোগে দোষী সাব্যস্ত হওয়ায় তাদেরকে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদন্ডসহ প্রত্যেককে ১০ হাজার টাকা জরিমানা এবং তথ্য গোপন করায় পেনাল কোডের ২০১ ধারায় শোফলী বেগমকে ৫ বছর সশ্রম কারাদন্ড ও ৫ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরো ১ মাসের সশ্রম কারাদন্ড প্রদান করা হলো।

রায় ঘোষণার পর মামলার বাদী ও বাদী পক্ষের আইনজীবিগণ সন্তোষ প্রকাশ করেন এবং রায় দ্রুত কার্যকরের দাবী জানান।
আদালতে বাদী পক্ষে মামলা পরিচালনা করেন পিপি হারিছ উদ্দিন ও বিবাদী পক্ষে ছিলেন স্টেট ডিফেন্স জিয়ারত হোসেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ