ঢাকা, বুধবার 5 August 2020, ২১ শ্রাবণ ১৪২৭, ১৪ জিলহজ্ব ১৪৪১ হিজরী
Online Edition

সীমান্ত বন্ধ করেছে হাঙ্গেরি, সার্বিয়া সীমান্তে জরুরি অবস্থা

ইইউ দেশগুলোতে শরণার্থীদের প্রবেশ ঠেকাতে সীমান্ত বন্ধ করে দিয়েছে হাঙ্গেরি। একইসঙ্গে দেশটি সার্বিয়ার সঙ্গে তাদের সীমান্তের দক্ষিণাঞ্চলীয় দু’টি কাউন্টিতে জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেছে।

শরণার্থীদেরকে ফেরত পাঠানোর হুমকি দিয়ে তাদেরকে ধরপাকড়ের নতুন কঠোর আইনও প্রয়োগ করতে শুরু করেছে হাঙ্গেরি।

মঙ্গলবার শরণার্থীরা দলে দলে ইউরোপীয় ইউনিয়নে প্রবেশের চেষ্টায় সীমান্ত বেষ্টনীর কাছে গিয়ে হাঙ্গেরির দমনাভিযানের মুখে পিছু হটতে বাধ্য হয়।

সার্বিয়া সীমান্তে কাঁটাতারের বেষ্টনী ভেঙে ইইউ দেশগুলোতে ঢোকার চেষ্টা চালানোর সময় ৬০ শরণার্থীকে গেপ্তার করার কথা জানিয়েছে হাঙ্গেরির পুলিশ।

জরুরি অবস্থা জারি থাকার ফলে পুলিশ আরো বেশি ক্ষমতা পেয়েছে।পার্লামেন্টের অনুমোদন সাপেক্ষে সীমান্ত এলাকায় মোতায়েন করা যেতে পারে সেনাও।

শরণার্থীর স্রোতের মুখে ইউরোপের নানা দেশ সীমান্তে কড়াকড়ি শুরুর পরপরই সাবেক কমিউনিস্ট রাষ্ট্র হাঙ্গেরি কঠোর এ সমস্ত পদক্ষেপ নিয়েছে।

সোমবার মধ্যরাত থেকে নতুন সীমান্ত আইন কার্যকর  করতে শুরু করেছে হাঙ্গেরি।

স্থলপথে ইউরোপে প্রবেশের অন্যতম রুট হাঙ্গেরির মধ্য দিয়ে গেছে।

শরণার্থী ঠেকাতে সার্বিয়ার সঙ্গে হাঙ্গেরির ১৭৫ কিলোমিটার সীমান্ত জুড়ে নতুন করে নির্মাণ করা হয়েছে চার মিটার উঁচু কাঁটাতারের বেড়া।

কেউ ওই বেড়া নষ্ট করার চেষ্টা করলে তা অপরাধ বলেই গণ্য করা হচ্ছে।শাস্তি হিসাবে শরণার্থীদেরকে আটকে রাখা কিংবা দেশে ফেরত পাঠানোর বিধান রাখা হয়েছে। সীমান্তে কড়া পাহারার ব্যবস্থাও করা হয়েছে।

 মঙ্গলবার ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) শরণার্থীদের কিভাবে সদস্য দেশগুলোর মধ্যে ভাগ করা হবে সে বিষয়ে একমত হতে ব্যর্থ হয়েছে।

ওদিকে, সোমবার সীমান্ত বন্ধ হওয়ার আগ পর্যন্ত রেকর্ড ৯ হাজারের বেশি শরণার্থী হাঙ্গেরিতে প্রবেশ করেছে বলে জানিয়েছে দেশটির কর্তৃপক্ষ।

নতুন আইনে মঙ্গলবার থেকে কেউ অবৈধপথে সীমান্ত অতিক্রম করে হাঙ্গেরি প্রবেশ করলে তা দণ্ডনীয় অপরাধ বলে গণ্য হবে। ৩০ জন বিচারপতিকে এ বিষয়টি দেখভাল করার জন্য প্রস্তুত রাখা হয়েছে।

সীমান্ত বন্ধ হয়ে যাওয়ার পরও হাজার হাজার শরণার্থী কাঁটাতারের বেড়ার ওপাশে জমা হয়েছে। তাদের অনেকে ভেতরে ঢোকার পথ খুঁজছে।

অনেকে খাবার ও পানি ছুড়ে ফেলে ভেতরে ঢুকতে দেয়ার দাবিতে অবস্থান ধর্মঘটও শুরু করেছে।

হাঙ্গেরি সরকারের মুখপাত্র জোলতান কোভাক্স বলেন, “আমরা নতুন যুগের সূচনা করেছি। আমরা আমাদের সীমান্তে অবৈধ আশ্রয় প্রার্থীদের ঢল বন্ধ করব।” - বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ