ঢাকা, সোমবার 12 April 2021, ২৯ চৈত্র ১৪২৭, ২৮ শাবান ১৪৪২ হিজরী
Online Edition

রায় ন্যায়ভ্রষ্ট, বুধ-বৃহস্পতি হরতাল - জামায়াতে ইসলামী

বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর সহকারী সেক্রেটারী জেনারেল এটিএম আজহারুল ইসলামকে হত্যার সরকারী ষড়যন্ত্রের নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে তিনিসহ আটক সকল জামায়াত নেতৃবৃন্দের মুক্তির দাবীতে আগামীকাল বুধবার ও পরের দিন বৃহস্পতিবার হরতাল কর্মসূচী ঘোষণা করেছেন বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর ভারপ্রাপ্ত আমীর জনাব মকবুল আহমাদ।
এক বিবৃতিতে তিনি বলেন,“সরকার পরিকল্পিতভাবে জামায়াত নেতৃবৃন্দকে হত্যা করার ষড়যন্ত্র করছে। সরকারের ধারাবাহিক ষড়যন্ত্রের শিকার জামায়াতের সহকারী সেক্রেটারী জেনারেল জনাব এটিএম আজহারুল ইসলাম। সরকার মিথ্যা, বায়বীয় ও কাল্পনিক অভিযোগে জনাব এটিএম আজহারুল ইসলামের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রমূলক মামলা দায়ের করে নিজেদের দলীয় লোকদের দ্বারা আদালতে মিথ্যা স্বাক্ষ্য প্রদান করে।
মাননীয় আদালত সরকারের দায়ের করা মিথ্যা মামলায়, সাজানো সাক্ষীর ভিত্তিতে আজ তার বিরুদ্ধে মৃত্যুদন্ডের যে রায় ঘোষণা করেছেন তা একটি ন্যায়ভ্রষ্ট রায়। এ রায়ে জনাব এটিএম আজহারুল ইসলাম ন্যায়বিচার পাওয়া থেকে বঞ্চিত হয়েছেন। এ রায়ের বিরুদ্ধে তিনি উচ্চ আদালতে আপীল করবেন। উচ্চ আদালত ন্যায়বিচার নিশ্চিত করলে তিনি খালাস পাবেন বলে আমরা গভীরভাবে বিশ্বাস করি।
সরকার রাজনৈতিক প্রতিহিংসা চরিতার্থ করার জন্য বিচারের নামে যে প্রহসনের আয়োজন করেছে, দেশে-বিদেশে তার কোন গ্রহণযোগ্যতা নেই। সরকারের মন্ত্রী ও দলীয় নেতাদের বক্তব্যে প্রতীয়মান হয় যে, আদালতের বিচার কার্যক্রম সরকারের নিয়ন্ত্রণে পরিচালিত হচ্ছে। আমাদের প্রতিবাদ ও গণতান্ত্রিক কর্মসূচী সরকারী ষড়যন্ত্র ও চক্রান্তের বিরুদ্ধে। আর সরকারের যে কোন ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানানো আমাদের সাংবিধানিক অধিকার। সরকার ট্রাইব্যুনালে পরিচালিত বিচার কার্যক্রমকে নানাভাবে প্রভাবিত করার চেষ্টা করেছে।
সরকারী পৃষ্ঠপোষকতায় শাহবাগে গণজাগরণ মঞ্চ স্থাপিত হওয়ার পর স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী ‘গণজাগরণ মঞ্চের দাবী বিবেচনায় নিয়ে রায় দেয়ার’ জন্য বিচারপতিদের প্রতি আহ্বান জানান। ২০১৩ সালে তদানীন্তন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মিশর সফরে গিয়ে আল্লামা সাঈদী ও আব্দুল কাদের মোল্লার মামলায় রায়ের দিন ও তারিখ ঘোষণা করে বক্তব্য দেন।  বিচার কার্যক্রম সম্পন্ন হবার পূর্বেই সরকার ফাঁসিতে ঝুলানোর ঘোষণা দেন। মাওলানা নিজামীর রায় ঘোষণার পর সরকারের আইনমন্ত্রী প্রকাশ্যভাবে বক্তব্য রেখেছেন ‘ট্রাইব্যুনালের রায় আপীল বিভাগে বহাল রেখে দ্রুত তা কার্যকরের ব্যবস্থা করা হবে’। জনাব কামারুজ্জামানের মামলার রায় ঘোষণা করার পর পূর্ণাঙ্গ জাজমেন্ট স্বাক্ষরিত হওয়ার পূর্বেই আইনমন্ত্রী ফাঁসি কার্যকরের জন্য কারাকর্তৃ পক্ষকে নির্দেশ দিয়েছিলেন। তিনি আরো বলেছিলেন, ‘রিভিউর সুযোগ নেই’। অথচ: আপীল বিভাগ জনাব আব্দুল কাদের মোল্লার রিভিউর পূর্ণাঙ্গ রায়ে বলেছেন রিভিউ করার সুযোগ আছে। সরকারের ও আইনমন্ত্রীর বক্তব্যে দেশবাসীর কাছে প্রতীয়মান হয়েছে সরকার নানাভাবে বিচার প্রক্রিয়াকে প্রভাবিত করেছে। সরকার বিচারের নামে জামায়াতে ইসলামীর নেতৃবৃন্দকে হত্যা করার জন্য যে ষড়যন্ত্র করছে তা জনগণ নিরবে মেনে নিতে পারে না।
আমরা জামায়াতের সহকারী সেক্রেটারী জেনারেল জনাব এটিএম আজহারুল
ঘোষিত কর্মসূচী শান্তিপূর্ণভাবে সফল করে তোলার জন্য জামায়াতে ইসলামীর সকল শাখা ও কৃষক, শ্রমিক, ছাত্র, শিক্ষক, বুদ্ধিজীবী, সুশীল সমাজ ও পেশাজীবীসহ সকল শ্রেণী-পেশার মানুষ তথা দেশের আপামর জনতার প্রতি আমি উদাত্ত আহ্বান জানাচ্ছি।”
তবে এ্যাম্বুলেন্স, লাশবাহী গাড়ী, হাসপাতাল, ফায়ার সার্ভিসের গাড়ী হরতালের আওতামুক্ত থাকবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ