বুধবার ১২ আগস্ট ২০২০
Online Edition

সাক্ষীর বয়স কম থাকায় ট্রাইব্যুনালের টেন্ডার্ড ঘোষণা

স্টাফ রিপোর্টার : মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে আটক বাগেরহাটের শেখ সিরাজুল হক ওরফে সিরাজ মাস্টার, আব্দুল লতিফ তালুকদার ও খান আকরাম হোসেনের বিরুদ্ধে ষষ্ঠ সাক্ষীর সাক্ষ্য গ্রহণ করা হয়েছে। সরকার পক্ষের ষষ্ঠ সাক্ষী হিসেবে সাক্ষ্য দিয়েছেন নন্দলাল দাস।পরে এ মামলায় আগামী ১৪ ডিসেম্বর রোববার সপ্তম সাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহণের দিন ধার্য করেছেন ট্রাইব্যুনাল-১।
গতকাল বুধবার সাক্ষী নন্দলাল দাস (৫৫) বলেন, তিনি বাগেরহাটের রণজিৎপুর গ্রামের বাসিন্দা। তার বাবার নাম শহীদ নিশিকান্ত দাস ও মায়ের নাম কনকলতা দাস। ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় তার বয়স ছিল ১১/১২ বছর। পূর্বের সাক্ষীদের অনুরূপ সাক্ষ্য হওয়ায় এ সাক্ষীকে টেন্ডার্ড ঘোষণা করেন প্রসিকিউটর সৈয়দ সাইয়্যেদুল হক সুমন। এ কারণে সাক্ষীকে জেরা করেননি রাষ্ট্র নিযুক্ত আসামীপক্ষের আইনজীবী আবুল হাসান। এর আগে তিনি পঞ্চম সাক্ষী অরুণ দাসের অসমাপ্ত জেরা শেষ করেন। 
গত ৩ ডিসেম্বর সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হওয়ার পর সিরাজ-লতিফ-আকরামের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দিয়েছেন আরও পাঁচজন সাক্ষী। তারা হচ্ছেন দিলীপ দাস, শৈলেন্দ্র নাথ দাস, শহীদজায়া কমলা রানী চক্রবর্তী, তপন কুমার দাস এবং অরুণ দাস।
গত ৩ ডিসেম্বর তিন আসামীর বিরুদ্ধে সূচনা বক্তব্য (ওপেনিং স্টেটমেন্ট) উপস্থাপন করেন প্রসিকিউটর  সাইয়্যেদুল হক সুমন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ