বুধবার ০৫ আগস্ট ২০২০
Online Edition

৩ দিন পর খোয়া যাওয়া অস্ত্র উদ্ধার কারারক্ষী আটক

গাজীপুর সংবাদদাতা : গাজীপুরের কাশিমপুর হাইসিকিউরিটি কেন্দ্রিয় কারাগারের অস্ত্রাগার থেকে খোয়া যাওয়া চাইনিজ রাইফেলটি তিন দিন পর একটি ক্ষুদে বার্তার সূত্র ধরে বুধবার জেলখানার একটি পুকুর থেকে উদ্ধার করা হয়েছে। এ ঘটনায় জড়িত আরিফুল ইসলাম (২৫) নামের এক কারারক্ষীকে কর্তৃপক্ষ আটক করেছে। তার বাড়ি মৌলভীবাজার জেলায়। অস্ত্র খুঁজে পাওয়ায় এক কারারক্ষীকে ১০ হাজার টাকা পুরষ্কৃত করেছে কর্তৃপক্ষ। অস্ত্র খোঁয়া যাওয়ার ঘটনায় ইতোমধ্যে দু’টি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।
তদন্ত কমিটির প্রধান ডিআইজি (প্রিজন) মো. বজলুর রহমান জানান, বুধবার সকালে কারাগারের জেলার জান্নাতুল ফরহাদের মোবাইলে খোঁয়া যাওয়া অস্ত্রের খোঁজ জানিয়ে মৌলভী বাজার জেলা এলাকার একটি মোবাইল (বাংলা লিংকের নম্বর) থেকে একটি ক্ষুদে বার্তা আসে। এ বিষয়টি তদন্ত কমিটিকে জানানো হয়। পরে ওই বার্তার সূত্র ধরে সকাল সাড়ের ১১টার দিকে খোঁয়া যাওয়া অস্ত্রের সন্ধানে কারাগারের ব্যারাকসংলগ্ন পশ্চিম পার্শ্বের একটি পরিত্যক্ত পুকুরে ২৫/৩০ জন কারারক্ষীকে তল্লাশীর জন্য নামানো হয়। তল্লাশীর এক পর্যায়ে ওই পুকুরেই খোঁয়া যাওয়া চাইনিজ রাইফেলটি খুঁজে পান আল আমিন নামে এক কারারক্ষী। রাইফেলটি উদ্ধারের পর তাৎক্ষণিকভাবে কারারক্ষী আল আমিনকে পাঁচ হাজার টাকা করে মোট ১০ হাজার টাকা পুরস্কার দেন কর্তৃপক্ষ গঠিত তদন্ত কমিটির প্রধান ডিআইজি মো. বজলুর রহমান এবং হাইসিকিউরিটি কেন্দ্রিয় কারাগারের সুপার মোহাম্মদ মিজানুর রহমান। অস্ত্র উদ্ধারের পর হাইসিকিউরিটি কেন্দ্রিয় কারাগারে কর্মরত মৌলভী বাজার জেলার সকল কারারক্ষীদের জিজ্ঞাসাবাদের এক পর্যায়ে কারারক্ষী আরিফুল ইসলাম (২৫) ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে। পরে তাকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদকালে কর্তৃপক্ষকে সে জানায় মৌলভী বাজার এলাকার তার এক ভাগ্নের মোবাইলের মাধ্যমে ওই বার্তাটি পাঠানো হয়েছিল। তবে কেন বা কি কারণে সে অস্ত্রটি লুকিয়েছিল সে ব্যাপারে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। আরিফুল ইসলাম ২০০৮ সালে চাকরিতে নিয়োগ পায়। সে গত ২০১২ সালের ৭ ফেব্রুয়ারি হতে এ কারাগারে কর্মরত আছে।
হাইসিকিউরিটি কেন্দ্রিয় কারাগারের সুপার মোহাম্মদ মিজানুর রহমান জানান, সরকার ও কারাগারের বর্তমান সুশৃঙ্খল নানা কার্যক্রমকে ব্যাহত করতে একটি মহল ষড়যন্ত্র করে এ ঘটনা ঘটিয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। তবে এব্যাপারে ব্যাপক তদন্ত চলছে। অস্ত্র খোঁয়া যাওয়ার ঘটনায় ইতোমধ্যে কারাগারের তিন কারারক্ষীকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।
উল্লেখ্য, গত রোববার বিকেলে গাজীপুরের কাশিমপুরস্থিত হাইসিকিউরিটি কেন্দ্রীয় কারাগারের অস্ত্রাগারে অস্ত্র গণনার সময় একটি রাইফেল পাওয়া যায়নি। অস্ত্র খোঁয়া যাওয়ার ব্যাপারে সোমবার সন্ধ্যায় কারা কর্তৃপক্ষ জয়দেবপুর থানায় জিডি করে। এ ঘটনা তদন্তে ঘটনার রাতেই রাজশাহী বিভাগের ডিআইজি (প্রিজন) মো. বজলুর রহমানকে প্রধান করে চার সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। এছাড়াও ওই ঘটনায় গাজীপুর জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে সোমবার সন্ধ্যায় গাজীপুরের অতিরিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট মো. মোস্তফা কামালকে প্রধান করে দুই সদস্যের অপর একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। এছাড়াও অস্ত্র খোঁয়া যাওয়ার ঘটনায় অস্ত্রাগারের প্রধানসহ তিন কারারক্ষীকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। বরখাস্তকৃতরা হলো, কারারক্ষী মো. সিরাজ হাওলাদার, তৌহিদুল ইসলাম ও এহসানুল হক।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ