বুধবার ০৫ আগস্ট ২০২০
Online Edition

মানবাধিকার লঙ্ঘন রেকর্ড ছাড়িয়েছে

স্টাফ রিপোর্টার : অতীতের যে কোনো সময়ের চেয়ে দেশে বর্তমানে মানবাধিকার লঙ্ঘন রেকর্ড ছাড়িয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না। তিনি  বলেন, বিশ্ব মানবাধিকার দিবসে দেশের ১৬ কোটি মানুষের দায়িত্ব হচ্ছে সরকারকে আসামীর কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়ে তাদের জবাবদিহিতার ব্যবস্থা করা। যারা অবৈধভাবে ক্ষমতায় থেকে মানুষের অধিকারকে হরণ করছে তাদের কাছে জবাব চাই।
গতকাল বুধবার আন্তর্জাতিক মানবাধিকার দিবস উপলক্ষে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে বাংলাদেশ জাতীয় মানবাধিকার সমিতি আয়োজিত এক মানববন্ধনে তিনি এ মন্তব্য করেন।
সংগঠনের মহাসচিব মঞ্জুর হোসেন ঈশার সভাপতিত্বে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন এনডিপির চেয়ারম্যান খোন্দকার গোলাম মোর্ত্তজা, লেবার পার্টির চেয়ারম্যান ড. মোস্তাফিজুর রহমান ইরান, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ব্যারিস্টার হায়দার আলী প্রমুখ।
মান্না বলেন, বিশ্ব মানবাধিকার দিবসে দেশের ১৬ কোটি মানুষের দায়িত্ব হচ্ছে সরকারকে আসামীর কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়ে তাদের জবাবদিহিতার ব্যবস্থা করা। যারা অবৈধভাবে ক্ষমতায় থেকে মানুষের অধিকারকে হরণ করছে তাদের কাছে জবাব চাই।
গত নয় মাসে ৮২টি খুন, গুমের ঘটনা ঘটেছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘যা অতীতের যে কোনো সময়ের রেকর্ড ছাড়িয়ে গেছে। খুন, গুমের শিকার পরিবারগুলো সরকারের কাছে তাদের স্বজনদের খুঁজে পাওয়ার জন্য সরকারকে ব্যবস্থা নেয়ার অনুরোধ করলে সরকারের পক্ষ থেকে এখনও কোনো জবাব দেয়া হয়নি। আজ খুন, গুমের সবচেয়ে বড় অভিযোগ হচ্ছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর বিরুদ্ধে।
সরকারের উদ্দেশে মান্না বলেন, ‘দিন গুণতে শুরু করেন। যারা পুলিশকে ব্যবহার করে জনসমর্থন হারিয়ে গায়ের জোরে ক্ষমতায় থাকার চেষ্টা করেন, মানুষের অধিকার পায়ের নিচে পিষে ফেলে রামরাজত্ব চালাবেন, সেইদিন শেষ। এটা সেই দেশ নয়। বিশ্বের কোথাও কোনো দেশ এরকম মানবাধিকার  লঙ্ঘন সহ্য করে নাই।
মানবাধিকার লঙ্ঘনের বিরুদ্ধে দেশের মানুষকে শপথ নেয়ার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আজকের এই দিনে আমাদের শপথ নেয়ার সময়, সিদ্ধান্ত নেয়ার সময়। সব দ্বিধাদ্বন্দ্ব ভয় ভুলে আমাদের ঐক্যবদ্ধ হয়ে লড়াই করবার সময়।’
ডাকসুর সাবেক এই নেতা বলেন, ‘আমরা গভীরভাবে উদ্বিগ্ন ও চিন্তিত। যখন সরকারের দায়িত্ব ও কর্তব্য হচ্ছে মানুষের জানমালের নিরাপত্তা বিধান করা, মানেুষের সুন্দর জীবনের নিরাপত্তা বিধান করা, তখন সরকারি বাহিনী এভাবে সরাসরি নির্যাতন করছে, মানুষকে গুম করে ফেলছে, খুন করে ফলছে। অথচ যখন এ ব্যাপারে প্রশ্ন করা হচ্ছে তখন তারা সরাসরি অস্বীকার করছে।
মান্না বলেন, যেরকম করে দুর্নীতি দমনের নামে দুদক সকল দুর্নীতিবাজকে একের পর এক দেশপ্রেমিক সার্টিফিকেট দিয়ে যাচ্ছে ঠিক তেমনি করে আমাদের দেশের আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা জনগণের মৌলিক অধিকার, গণতান্ত্রিক ও রাজনৈতিক অধিকার খর্ব করছে। তারা সরাসরি সরকারের অবৈধ কাজগুলোকে বৈধতা দেয়ার চেষ্টাও করছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ