বুধবার ০৫ আগস্ট ২০২০
Online Edition

মানবাধিকার দূরের কথা দেশে কোনো অধিকারই নেই

স্টাফ রিপোর্টার : সুপ্রিম কোর্ট বার এসোসিয়েশনের সভাপতি ও সিনিয়র আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন বলেছেন, দেশে মানবাধিকারতো দূরের কথা কোনো অধিকারই নেই। চলছে শেখ হাসিনার শাসন। সরকার আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর জোরে ক্ষমতায় আছে। ঐক্যবদ্ধভাবে এই স্বৈরাচারী সরকারের পতনের জন্য মাঠে নামতে হবে।
গতকাল বুধবার দুপুরে বিশ্ব মানবাধিকার দিবস উপলক্ষে সুপ্রিম কোর্ট বার এসোসিয়েশন আয়োজিত মানববন্ধনে সভাপতির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন। সুপ্রিম কোর্ট বার ভবনের সামনে বাংলাদেশে আইনের শাসন ও মানবাধিকারের দাবিতে এই মানববন্ধন করা হয়।
মানববন্ধনে জাতিসংঘের উদ্দেশে খন্দকার মাহবুব হোসেন আহ্বান জানান, আপনারা আসুন, দেখুন বাংলাদেশের কোথায় মানবাধিকার আছে। হাজার হাজার মানুষ নির্যাতনের শিকার হচ্ছে, হত্যা-গুম হচ্ছে। আইনজীবী এম ইউ আহমেদকে হত্যা করা হয়েছে। সুপ্রিম কোর্টে আইনজীবী ভাই বোনদের উপর হামলা করা হয়েছে। তিনি বলেন, সরকার এখন আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর জোরে ক্ষমতায় আছে।
মানববন্ধনে সিনিয়র আইনজীবী ও বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়া, বারের সম্পাদক ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন, ঢাকা বারের সাবেক সভাপতি এডভোকেট সানাউল্লাহ মিয়া, বারের সাবেক সম্পাদক ব্যারিস্টার বদরুদ্দোজা বাদল, বারের সহ-সভাপতি এডভোকেট  এম খালেদ আহমেদ ও রফিকুল ইসলাম মেহেদী, এডভোকেট আবেদ রাজা, সাবেক কোষাধ্যক্ষ এডভোকেট ফাহিমা নাসরিন মুন্নী, সাবেক সহ-সম্পাদক এডভোকেট মো.সাইফুর রহমান, ব্যারিস্টার কায়সার কামাল, ব্যারিস্টার রাগীব রউফ চৌধুরী, এডভোকেট তাজুল ইসলাম, এডভোকেট গাজী কামরুল ইসলাম সজল, এডভোকেট মির্জা আল মাহমুদ প্রমুখ। মানবন্ধন পরিচালনা করেন বারের সহ-সম্পাদক এ কে এম রেজাউল করিম খন্দকার।  
ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়া বলেন, গত আট মাসে ৫২ জন গুম হয়েছে। গুম হওয়াদের পরিবার জানতে চায় তারা কোথায়, কোথায় তাদের মাটি চাপা দেয়া হয়েছে। তিনি বাংলাদেশে মানবাধিকার লঙ্ঘন ও গুম হওয়াদের খুঁজে বের করতে জাতিসংঘকে সরকারের উপর চাপ দেয়ার আহ্বান জানান।
ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন বলেন, পুলিশ, দুদক নেমেছে দেশের মানুষের বিরুদ্ধে। বিচার বিভাগকেও সরকার নিয়ন্ত্রণে নেয়ার চেষ্টা করছে। তিনি বলেন, সরকার মানবাধিকার লংঙ্ঘন ও মানবতাবিরোধী অপরাধ করছে। এই সরকার মানবতাবিরোধী অপরাধের বিচারের জন্য যে ট্রাইব্যুনাল করেছে আগামীতে সেখানেই তাদের বিচার করা হবে মানবতাবিরোধী অপরাধ করার কারণে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ