শনিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০
Online Edition

কীর্তনখোলা নদীতে ভাসছে রহস্যজনক তেল

বরিশাল অফিস : বরিশাল কীর্তনখোলা নদীর বিস্তৃর্ণ এলাকাজুড়ে দুদিন ধরে রহস্যজনক তেল ভাসছে। নদী পাড়ের শত শত বাসিন্দা এই তেল সংগ্রহ করছেন। তবে তেলের উৎস সম্পর্কে কেউ কিছু জানাতে পারেনি। পরিবেশ অধিদফতরের পরিচালক সুকুমার বিশ্বাস গত বৃহস্পতিবার বেলা ১১টায় একটি টিম নিয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শনকালে তেলের  নমুনা সংগ্রহ করেছেন। প্রাথমিকভাবে তিনি জানিয়েছেন, এতে বড় ধরনের বিপর্যয়ের সম্ভাবনা নেই। তারপর পরীক্ষা করে দূষণের ভয়াবহতার বিষয়ে জানতে পারবেন। স্থানীয় সাব্বির হোসেন জানান, বুধবার বিকেল থেকে চাঁদমারী খেয়াঘাট থেতে দক্ষিণ দিকে ৫শ বর্গফুট এলাকাজুড়ে ডিজেল তেল ভাসতে দেখেন। স্থানীয় শত শত জনতা ফোম এবং বালতি ব্যবহার করে ভাসমান তেল সংগ্রহ করেছে।

এদিকে গরীরর চাদমারি খেয়াঘাটের  টোল আদায়কারী সাখাওয়াত হোসেন জানান কোথা থেকে এতো তেল আসছে সে সম্পর্কে তারা কিছুই বলতে পারছে না। এই স্থানে তেলবাহী নোংঙ্গর করা ট্যাঙ্কার দেখা গেলেও সেখান থেকে তেল পড়ার কোনো আলামত মেলেনি। তেল ছড়িয়ে পড়ার কাছাকাছি যমুনা অয়েল কোম্পানির ডিপো রয়েছে। ডিপো ম্যানেজার সৈয়দ হাবিবুর রহমান জানান, ডিপো থেকে তেল লিক হওয়ার কোনো সম্ভাবনা নেই। তাই এ সম্পর্কে তিনিও কিছু বলতে পারছেন না।

তবে স্থানীয়দের ধারণা রাতে তেলবাহী ট্যাঙ্কার থেকে সংঘবদ্ধ চক্র তেল চুরি করার সময়, নতুবা কৌশলে ট্যাঙ্কার থেকে তেল নদীতে ফেলে দেয়ায় এই ঘটনার ঙ্কৃষ্টি। এ ছাড়া নেপথ্যে অন্য কোনো কারণ দেখছেন না স্থানীয়রা। পরিবেশ অধিদফতরের উপপরিচালক সুকুমার বিশ্বাস জানান, এই তেল ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়েনি বলে খুব বেশি ক্ষতির কারণ নেই। তবে এটা ব্যাপক হলে বিপর্যয়ের সৃষ্টি করতে পারতো।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ