সোমবার ১৩ জুলাই ২০২০
Online Edition

যশোরে ঘুম থেকে তুলে শিবিরের ৭ কর্মী আটক : মিথ্যা মামলায় আদালতে সোপর্দ

যশোর অফিস : পুলিশ যশোর শহরের একটি ছাত্রাবাসে হানা দিয়ে ইসলামী ছাত্রশিবিরের ৭ কর্মীকে আটক করে সাজানো মামলায় আদালতে চালান দিয়েছে। এ সময় ছাত্রাবাসে ব্যাপক ভাঙচুর এবং মালামাল লুট করা হয় বলে শিবির অভিযোগ করেছে।

মধ্যরাতে জানা গেছে, শনিবার বিপুলসংখ্যক পুলিশ যশোর সরকারি এমএম কলেজ সংলগ্ন মুন্সিবাড়ি ছাত্রবাসে হানা দেয়। এ সময় সেখানে বসবাসকারী ছাত্ররা ঘুমিয়ে ছিলেন।  পুলিশ ছাত্রাবাসে ঢুকে ঘুমন্ত ছাত্রদের ডেকে তুলে বেধড়ক পেটাতে থাকে। এ সময় তারা টিভি সেট, আলমারি, ফ্রিজ, বাইসাইকেল ও আসবাবপত্র ভাঙচুর এবং তল্লাশি চালায়। প্রায় দু’ঘন্টা অভিযান চালাবার পর পুলিশ ৭ শিবিরকর্মীকে গাড়িতে তুলে নিয়ে আসে। যাবার সময় পুলিশ ১টি ল্যাপটপ, ২টি ডিজিটাল ক্যামেরা, ১১টা মোবাইল ফোন ও নগদ টাকাসহ অন্যান্য মালামাল নিয়ে যায়। পরে বিস্ফোরক দ্রব্য আইনে একটি সাজানো মামলায় তাদের আদালতে চালান দেয়া হয়। আদালত তাদের  জেলহাজতে প্রেরণ করেছে। ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছেন জামায়াতের জেলা আমীর অধ্যাপক আব্দুর রশিদ, ভারপ্রাপ্ত সেক্রেটারি ও  উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান  ইদ্রিস আলী, শিবিরের শহর সভাপতি জাহিদুল ইসলাম ও সেক্রেটারি আজাহারুল ইসলাম।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ