সোমবার ১৩ জুলাই ২০২০
Online Edition

ইনকিলাবের জব্দকৃত মালামাল ফেরত দেয়ার নির্দেশ

কোর্ট রিপোর্টার : মিথ্যা সংবাদ প্রকাশের অভিযোগে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনে ইনকিলাবের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মামলায় জব্দকৃত মালামাল ফেরত দেয়ার নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। গতকাল রোববার ঢাকার সিএমএম আদালতের মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট শামসুল আরেফিন এ আদেশ দেন।

গতকাল পত্রিকার সিনিয়র রিপোর্টার আফজাল বারি মালামাল ফেরত চেয়ে আবেদন করেন। মালামাল ফেরত চেয়ে করা আবেদনের শুনানি করেন এডভোকেট তুহিন হাওলাদার। এর আগে গত ১৬ জানুয়ারি মিথ্যা সংবাদ প্রকাশের কারণে পত্রিকাটির বার্তা সম্পাদক রবিউল্লাহ রবি, সহকারী উপ-প্রধান প্রতিবেদক রফিক মোহম্মদ, কূটনৈতিক প্রতিবেদক আতিকুর রহমানকে আটক করা হয়। ওইদিন একই সময় দু’টি সিপিইউ, দুটি মনিটর, একটি ইউপিএস, একটি ট্রেসিং পেপার, খসড়া সংবাদের কপি জব্দ করা হয়। পরে ওই রাতেই তথ্য ও প্রযুক্তি যোগাযোগ আইনে রাজধানীর ওয়ারী থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) জাহাঙ্গীর আলম বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করেন।

গত ১৭ জানুয়ারি মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ডিবি ইন্সপেক্টর কেএম ফিরোজ গ্রেফতারকৃত সাংবাদিকদের আদালতে হাজির করে শুধুমাত্র আতিকুর রহমানকে ৫ দিনের রিমান্ডে নেয়ার আবেদন করেন। কিন্তু মামলার কেস ডকেট না থাকায় আদালতে রিমান্ড ও জামিন শুনানি না হওয়ায় বিচারক ২০ জানুয়ারি রিমান্ড ও জামিন শুনানির জন্য দিন ধার্য করেন। ওইদিন মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট এসএম আশিকুর রহমান ৫ দিনের রিমান্ড আবেদনের শুনানি শেষে সাংবাদিক আতিকুর রহমানের ২ দিন রিমান্ড মঞ্জুর করেন। একই সঙ্গে অপর দুই আসামির জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে জেলহাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেয়া হয়। এরপর গত ২৯ জানুয়ারি আতিকুর রহমান ২ দিনের রিমান্ড শেষে দোষ স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি করেছেন। মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট হারুন অর রশিদ ওই দোষ স্বীকার রেকর্ড করেন। ওইদিন মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ মারূফ হোসেন জামিন আবেদনের শুনানি শেষে তাকে জেলহাজতে পাঠানোর আদেশ দেন।

জানা গেছে, স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে আতিকুর রহমান বলেন, দৈনিক ইনকিলাবের সম্পাদক ও প্রধান প্রতিবেদকের নির্দেশে প্রতিবেদনটি তৈরি করা হয়েছিল। এছাড়া প্রতিবেদনের বিষয়বস্তু অনলাইন নিউজ পোর্টাল আমাদের সময় ডটকম, বিডিটুডে এবং সংবাদ সংস্থা ইউএনবি থেকে সংগৃহীত বলেও জানান তিনি। 

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ