শুক্রবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০
Online Edition

টেস্ট শর্ট বলে ভারতকে পরাস্ত করতে চায় নিউজিল্যান্ড

ওয়ানডে সিরিজে শর্ট পিচ বলে ভারতীয় ব্যাটসম্যানদের দুর্বলতা ছিল চোখে পড়ার মত এবং নিউজিল্যান্ড কোচ মাইক হেসন বলেন, ৬ ফেব্রুয়ারি শুরু হওয়া আসন্ন টেস্ট সিরিজেও কিউইরা একই কৌশল অবলম্বন করবে। কিউই বোলাররা শর্ট পিচ বল বেশি ব্যবহার করায় ভারতীয় ব্যাটসম্যানরা স্বভাব সুলভভাবে আক্রমণাত্মক ভঙ্গিতে খেলতে গিয়ে বার বার পরাস্ত হয়েছে। মূলত স্বাগতিকদের এমন কৌশলের কাছে পরাস্ত হয়ে পাঁচ ম্যাচের সিরিজে ৪-০-তে হার মানতে হয় সফরকারী ভারতকে। হেসন বলেন, দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজেও একই কৌশল আবারো ব্যবহার করা হবে। “হাঁ, কন্ডিশনের সঙ্গে খাপ খেলে আমরা এটা ব্যবহার করব” বলে স্বীকার করেন হেসন। তিনি বলেন, “শেষবার বেসিন রিসার্ভে খেলার সময় আমরা এটা দেখিয়েছি এবং ওয়েস্ট ইন্ডিজকে আমরা যেভাবে সমস্যায় ফেলেছি- ভারতের বিপক্ষেও আমরা সেটা অব্যাহত রাখতে চাই।” টেস্ট সিরিজ শুরু হওয়ার আগে ভারতীয়রা এখন দুই দিনের প্রস্তুতি ম্যাচ খেলছে। হেসন বলেন, ওয়ানডে সিরিজ জয়ের পর অবশ্যই কিউইরা এখন দারুণ ছন্দে রয়েছে। হেসন বলেন, “এমন একটা দলের বিপক্ষে আমরা প্রতিদ্বন্দ্বিতা সৃষ্টি করতে পারি- অবশ্যই ছেলেদের মধ্যে এখন সে আত্মবিশ্বাস রয়েছে। তবে এটা একটা কঠিন ফর্মেট- আমরা সেটা জানি। আমাদের দলে কয়েকজন নতুন মুখ থাকবে। কিন্তু ওয়ানডে সিরিজ জয় থেকে কিছুটা আত্মবিশ্বাস নিয়েই আমরা এ সিরিজ শুরু করব।” তিনি আরো বলেন, “এমন একটি দলের বিপক্ষে ৪-০ ব্যবধানে জয়ের কথা আমরা কখনো ভাবিনি। সব কিছুই পরিকল্পনামত হয়েছে। কিন্তু এ সকল পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করতে দরকার গুণগত মানসম্পন্ন খেলোয়াড়। খেলোয়াড়রা তাদের দায়িত্ব সম্পর্কে বুঝতে পেরেছে এবং বিশেষ ওই ভূমিকার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছে।” অকল্যান্ডে একটি ম্যাচে টাই করা ছাড়া পুরো সিরিজেই ভারতীয়রা সব দিকে পরাস্ত হয়েছে। বিশ্বকাপ চ্যাম্পিয়ন দলটি এ সফরে এখনো কোন ম্যাচ জয় করতে পারেনি। ব্যাখ্যা করে হেসন বলেন, “এমনকি টাই করা ম্যাচটির পরও আমরা খুব ভাল খেলেছি। কিন্তু ওই ম্যাচে অশ্বিন ও রবীন্দ্র জাদেজা যেভাবে খেলেছে তাতে অবশ্যই তাদের প্রশংসা করতে হয়। কিছু সুখস্মৃতি হারিয়েছি বলে কখনোই আমাদের মনে হয়নি এবং সব সময়ই আমাদের মনে হয়েছে আমরা খুব ভাল খেলছি।” ভারতকে হোয়াইটওয়াশ করা দলের কোচ বলেন, “এরপর হ্যামিলটনের ব্যতিক্রমর্ধী পিচে উপমহাদেশের দলটির বিপক্ষে ম্যাচটা আমাদের জন্য বেশ কঠিন ছিল। কিন্তু আমরা জয়ের ধারা অব্যাহত রেখেছি।

অনেকেই এটাকে মরা উইকেট (ওয়েলিংটনের শেষ ম্যাচে) মনে করে। আমরা হেরে যাব ভেবেছিলেন। কিন্তু আমরা হারিনি। এজন্য আমরা ভালভাবে প্রস্তুতি নিয়েছিলাম।” চেতেশ্বর পুজারা, মুরালি বিজয়, জহির খান, উমেশ যাদব ও রিদ্ধিমান সাহা দলের সঙ্গে যোগ দেয়ায় টেস্ট সিরিজে ভারতীয় দলের ঘুরে দাঁড়ানোর সম্ভাবনা রয়েছে। এর আগে দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে ভারতীয় দলের জন্য টেস্ট সিরিজটা ছিল একটা টার্নিং পয়েন্ট এবং দীর্ঘ ভার্সনে নতুন খেলোয়াড়দের হুমকি সম্পর্কে সচেতন হেসন। তিনি বলেন, “জহির ও পুজারা ভাল পারফরমেন্স করা খেলোয়াড়। বিশেষ করে দেড় বছর আগে আমাদের ভারত সফরকারে পুজারা খুব ভাল করেছিলেন। সে সময় তিনি দারুন ছন্দে ছিলেন। “আজ সে উঁচু মানসম্পন্ন একজন খেলোয়াড় এবং অবশ্যই তার রেকর্ড সে কথাই বলে। জহির বেশ কিছু দিন যাবত দলে ছিলেন না। তবে এমন কন্ডিশনে অবশ্যই সে খুব ভাল খেলোয়াড়। সুতরাং আমাদের জন্য এটা একটা চ্যালেঞ্জ।”

ওয়ানডে সিরিজে ভারতীয় বোলাররা কিউইদের খুব বেশি সমস্যায় ফেলতে পারেনি ঠিকই। তবে হেসনের মতে প্রতিপক্ষ বোলারদের সমীহই করেছেন তারা। হেসন বলেন, “ওয়ানডে সিরিজে ভারতীয় পেস আক্রমণ আমরা বেশ ভালভাবে সামাল দিয়েছি। কন্ডিশন বিশেষ করে টেস্টের প্রথম ইনিংসে কন্ডিশন কিছুটা ভিন্ন হবে। ভারতীয় পেসাররা খুবই ভাল বোলার বিশষ করে উইকেট যদি কিছুটা মন্থর থাকে। “সে অনুযায়ী আমাদের প্রস্তুত থাকতে হবে এবং অবশ্যই এটা ভিন্ন ফর্মেটের খেলা, সুতরাং দ্রুত কন্ডিশনের সঙ্গে আমাদের মানিয়ে নিতে হবে। টেস্টে আমাদের ওপেনাররা ঘরোয়া ক্রিকেটে বেশ ভাল পারফরমেন্স করে আসছে। সুতরাং আশা করছি তারা ভাল করবে।” সম্ভবত বাংলাদেশ সফর ছাড়া আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে বছরটা নিউজিল্যান্ডের জন্য খুবই ভাল কেটেছে। এখন তারা বড় হুমকি ভারতের জন্য। আসন্ন টেস্টের আগে ৪-০ ম্যাচে ভারতকে হোয়াইটওয়াশ করার কথা উলে¬খ করে সব শেষে হেসন বলেন,  “বাংলাদেশ সফরে আমাদের ভিন্নধর্মী খেলোয়াড় ছিল। যেহেতু দলে অনেক নতুন মুখ ছিল এবং তারা ভাল করেছে তাই এরপর শ্রীলংকা সফরটা আমাদের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ ছিল। দীর্ঘদিন পর আমরা আমাদের প্রথম ম্যাচ জয় করেছিলাম এবং অনভিজ্ঞদের নিয়েই আমারা সেটা করেছিলাম। “সেই দলটির কিছু খেলোয়াড় এখন দলে খেলছে। তবে পুরো দল এখনো পাইনি। সুতরাং আমরা যখন পুরো দল ফিরে পাব তখন দেখব আমরা কতটা ভাল করতে পারি।” ইন্টারনেট।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ