শুক্রবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০
Online Edition

সংশয় কেটে গেল হকির টার্ফ নিয়ে

স্পোর্টস রিপোর্টার : অবশেষে ঢাকায় হকির নতুন টার্ফ স্থাপন নিয়ে সংশয় কেটে গেল। আগামী সেপ্টেম্বরে আবার ঢাকা আসবেন আন্তর্জাতিক হকি ফেডারেশনের (এফআইএইচ) সভাপতি লিয়েন্দ্রো নেগ্রে। তখনি নতুন টার্ফ স্থাপন সংক্রান্ত সমঝোতা চুক্তিস্বাক্ষর হবে। গতকাল বাংলাদেশ অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশনের (বিওএ) ডাচবাংলা অডিটরিয়ামে এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান বাংলাদেশ হকি ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক খাজা রহমতউল্লাহ। এ সময় উপস্থিত ছিলেন ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী বীরেন সিকদার, এফআইএইচ সভাপতি লিয়েন্দ্রো নেগ্রে ও স্পোর্টস ইভেন্ট ইন্টারন্যাশনালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক স্টিফেন ইভেন। রহমতউল্লাহ বলেন, ‘১০২টি স্কুলের অংশগ্রহণে জাতীয় স্কুল প্রতিযোগিতা দেখে মুগ্ধ লিয়েন্দ্রো। মূলত এত সংখ্যক স্কুলের অংশগ্রহণের কথা শুনেই তিনি ঢাকায় এসেছেন। আর তিনি আসাতেই বেশ কিছু সমস্যার সমাধানও হয়েছে’, কথাগুলো বলেন রহমতউল্লাহ। তিনি যোগ করেন, ‘সকালে ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী বীরেন সিকদার ও বিকেলে বিওএ’র মহাসচিব সৈয়দ শাহেদ রেজার সঙ্গে কথা বলেছেন নেগ্রে। ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী এফআইএইচের দেয়া টার্ফ ঢাকায় আনার বিষয়ে সকল সহযোগিতার কথা বলেছেন। তবে সবকিছু চূড়ান্ত হবে আগামী সেপ্টেম্বরে। তৃতীয়বারের মতো লিয়েন্দ্রো নেগ্রে ঢাকায় আসার পর। তখন বাংলাদেশ হকি ফেডারেশন ও আন্তর্জাতিক হকি ফেডারেশন এই দু’পক্ষের মধ্যে একটি সমঝোতা চুক্তি সই হবে। যেখানে সম্পূর্ণ বিনামূল্যে বাংলাদেশ ৪০/৪০ মিটার দৈর্ঘ্যরে আরেকটি নতুন সেন্ড টার্ফ (বালির টার্ফ) পাবে। যা বিকেএসপিতে বসবে।’ সাধারন সম্পাদক আরও বলেন, ‘সাভারে বাংলাদেশ ক্রীড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠান (বিকেএসপি) দেখে নেগ্রে খুব খুশি হয়েছেন। তাই এরকম সেন্ড ফিল্ড বিকেএসপিতেও বসানোর সহযোগিতার কথা বলেছেন নেগ্রে।’ স্কুল হকির আয়োজন দেখে মুগ্ধ নেগ্রে মনে করেন, এশিয়ার যে দেশে খুদে হকি খেলোয়াড়দের এত অংশগ্রহণ, সেখানে এশিয়ার যে কোন দেশেই এশিয়ান স্কুল হকি টুর্নামেন্টের আয়োজন করা যেতে পারে। এদিকে লিয়েন্দ্রো নেগ্রে বলেন, ‘পুনরায় বাংলাদেশে আসতে পেরে আমি খুশি। দ্বিতীয়বার আসার কারণ দু’টি। এক, আমার প্রতিশ্রুতি রক্ষা করা। দ্বিতীয়ত, হকি উন্নয়নে বাংলাদেশ কতটা এগুলো, তা দেখা। আমি সন্তুষ্ট।’ আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিলের (আইসিসি) রাজস্ব আয়ের বেশিরভাগই দাবী করেছে ভারত, অস্ট্রেলিয়া ও ইংল্যান্ড। এরকম কোন মোড়ল হকিতে রয়েছে কিনা জানতে চাইলে বিশ্ব হকির এই কর্তা বলেন, ‘আইসিসির বিষয়ে আমি কোন মন্তব্য করতে চাই না। তবে হকিতে এরকম কোন বিষয় নেই। বিশ্বের ১২৮টি দেশকেই আমরা রাজস্বের সমান ভাগ দিয়ে থাকি।’ তিনি যোগ করেন, ‘সেপ্টেম্বরে যে সমঝোতা চুক্তি সই হবে তার শর্তের মধ্যে রয়েছে, চার লাখ ডলার টার্ফের মূল্যের অর্ধেক দেবে অলিম্পিক কাউন্সিল এশিয়া (ওসিএ), বাকি অর্ধেকের একভাগ দেবে আন্তর্জাতিক হকি ফেডারেশন। আর বাকি একভাগ দেবে বাংলাদেশ। যার মূল্য প্রায় ৬৫ লাখ টাকা।’

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ