বুধবার ২০ অক্টোবর ২০২১
Online Edition

মেহেরপুরে লকডাউন ॥ দিশেহারা গরু খামারিরা ॥ পশুর হাট বন্ধ!

মেহেরপুর সংবাদদাতা: মেহেরপুর গাংনী উপজেলা বামন্দী নিশিপুর গরুর হাটে স্বাস্থ্যবিধি মানছেনা-গরুর-ব্যাপারীরা বামন্দী গো হাটে ইজারাদাদের নেই কোনো ভূমিকা!অঞ্চলের সবচেয়ে বড় পশু হাট বামন্দী-নিশিপুর গো হাটের আজ শুক্রবার সাপ্তাহিক হাটের দিন। চুয়াডাঙ্গা ও অন্যান্য জেলার সকল পশু হাট বন্ধ থাকায় এই হাটটিতে আজ ক্রেতা-বিক্রাদের চাপ বৃদ্ধি পেয়েছে। পার্শ্ববর্তী চুয়াডাঙ্গা ও কুষ্টিয়া জেলা থেকে বিপুল সংখ্যক গবাদি পশু আনা হচ্ছে বামন্দী হাটে।শুক্রবার সকাল থেকে বিভিন্ন সড়কে গরু বহনের যানের বহর দেখা যাচ্ছে। তবে দুঃখজন হলেও সত্য যে গরু ব্যাপারী, রাখাল ও গাড়ী চালকদের বেশিরভাগ মাস্ক ব্যবহার করছেন না। স্বাস্থ্যবিধির অন্যান্য বিষয়েও তারা উদাসিন।মেহেরপুর জেলা প্রশাসনের দুই সপ্তাহের কঠোর নির্দেশনার মধ্যে গো-হাটের বিষয়ে কিছুই বলা নেই। তবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে গো হাট চালানো যাবে বলে প্রশাসন সুত্রে জানা গেছে। গো হাটের ইজারাদের স্বাস্থ্যবিধি প্রতিপালনের বিষয়িটি নিশ্চিত করতে নির্দেশনা দিয়েছে প্রশাসন। কিন্তু বামন্দী গো হাটে ইজারাদাদের কোন ভুমিকা নেই। বিপুল সংখ্য মানুষের উপস্থিতিতে কেনাবেচা চলছে। এতে করোনা সংক্রমণ দ্রুত ছড়িয়ে পড়ার আশংকা করছেন চিকিৎসকরা।স্থানীয়রা জানান, উচ্চ সংক্রমণের কারণে চুয়াডাঙ্গা জেলার সব পশু হাট বন্ধ করা হয়েছে। বামন্দী-নিশিপুরের হাটটিতে তাই চুয়াডাঙ্গা জেলার ব্যাপারীরা জমায়েত হচ্ছেন। এতে মেহেরপুর জেলায় করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধি পাচ্ছে কি না ? তা নিয়ে চলছে নানা সমালোচনা। গবাদিপুশু পালনকারীরা জানান, সামনে কোরবানির ঈদ তাই গবাদি পশু বিক্রির ব্যবস্থা করতে হবে। কিন্তু গরু বিক্রি করতে গিয়ে যদি করোনা বেড়ে যায় সেটা সবার জন্যই ক্ষতির কারণ হয়ে যাবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ