শনিবার ১৬ অক্টোবর ২০২১
Online Edition

অত্যাচারী বাঘের পরিণতি 

শাকিব হুসাইন: সে অনেক দিন আগের কথা। উল্লুকপুর বনে তখন অনেক পশুপাখি বাস করত। বনটি দেখতে ছিল চমৎকার।  বনের ভিতর দিয়ে বয়ে গেছে ছোট্ট একটা নদী। বনের সবাই একসাথে বাস করতো। সবার মনে আনন্দ বিরাজ  করতো। সিংহ হলো তাদের রাজা। সিংহ সবাইকে সমান চোখে দেখতো। সবাইকে ন্যায়বিচার দিতো। হঠাৎ একদিন শিকারীর দল এসে সিংহকে খাঁচায় করে বন্দী করে নিয়ে গেল। সেদিনের পর থেকে আর সিংহ তাদের মাঝে ফিরে এলো না। ঠিক সেই সময়ই বনে ঢুকে পড়ল এক বাঘ। সে নিজেকে বনের রাজা মানতে লাগলো । সে দেখতে ছিল খুবই ভয়ানক। তার পায়ের নখগুলো ছিল ধারালো করাতের মতো। দাঁতগুলো ছিল এক একটা লোহার শিকের মতো। সে একবার গর্জন করলে পুরো বন কেঁপে উঠতো। বনের সবাই তাকে খুব ভয় করতো। একদিন বনের শান্ত প্রাণী খরগোশ পাশের নদীতে পানি পান করছিল। ঠিক তখনই ওই পথ দিয়ে অত্যাচারী বাঘটা যাচ্ছিল। খরগোশকে পিছন থেকে এক লাথি মেরে নদীতে ফেলে দিল। অত্যাচারী বাঘ বলল, বনের রাজাকে দেখে না দেখার ভান করা? আমাকে সম্মোধন না করে লেজ উঁচিয়ে পানি খাওয়া? এইবার তোমাকে ছেড়ে দিলাম বাছাধন, এর পরেরবার যদি আর একবার এরকম হয় তাহলে মেরে নদীতে ফেলে দেবো।

এই বলে অত্যাচারী বাঘ চলে গেল। এদিকে এই ঘটনা বনে ছড়িয়ে গেল। বনমোরগ চুপ থাকতে না পেরে পাখিদের নিয়ে সভায় বসল। কী উপায়ে অত্যাচারী বাঘের হাত থেকে পরিত্রাণ পাওয়া যায়। ঠিক তখনই ওই পথ দিয়ে অত্যাচারী বাঘটা যাচ্ছিল। সে বনমোরগের সব কথা শুনে রাগে গরগর করতে লাগল। পিছন থেকে ঝাঁপিয়ে পড়ল বনমোরগের উপর। সাথে সাথে বনমোরগের দেহটি ছিন্নবিচ্ছিন্ন করে দিলো। এই ঘটনা বনে ছড়িয়ে গেলে সবাই ভয়ে কাঁপতে থাকে। এভাবে অত্যাচারী বাঘটা একে একে একটা হরিণ, একটা খরগোশ ও একটা বনমোরগকে মেরে ফেলল। 

একদিন বনের সবাই জড়ো হলো শিয়াল পন্ডিতের গুহায়। তাদের সবার দাবি শিয়াল একটা না একটা বুদ্ধি  ঠিক বের করবে। কিছু সময় যাওয়ার পর শিয়াল একটা বুদ্ধি ঠিক বের করল। পরদিন শিয়াল চলল অত্যাচারী  বাঘের গুহায়। গুহার কাছে যেতেই অত্যাচারী বাঘকে সম্বোধন করে বলল, মহারাজ আপনি এখানে আর  ঐদিকে একটা ভয়ংকর বাঘ এসে মহারাজ দাবি করছে। শিয়ালের কথা শুনে অত্যাচারী বাঘ রেগে গরগর  করতে লাগল। শিয়াল বলল, আপনি আমাদের মহারাজ। আপনাকে ছাড়া অন্য কাউকে আমরা রাজা মানতে পারবো না। শিয়ালের কথা শুনে অত্যাচারী বাঘ বলল, কোথায় সে বাঘ নিয়ে চল তার কাছে আমাকে। শিয়াল অত্যাচারী বাঘকে জঙ্গলের শেষে একটা বড় কুয়ার কাছে নিয়ে গেল। শিয়াল বলল, দেখুন মহারাজ এই কুয়ার ভিতর আছে। অত্যাচারী বাঘ দেখল ঠিক তার মতোই । সে যেরকম করছে ঠিক সেরকমই করছে বাঘটা।  অত্যাচারী বাঘ ক্ষেপে গিয়ে দিলো কুয়াতে লাফ! সাথে সাথে অত্যাচারী বাঘটা তলিয়ে গেল। শিয়াল বলল, মুর্খ বাঘ নিজের প্রতিবিম্বকে বলছে অন্য বাঘ। এভাবে অত্যাচারী বাঘের হাত থেকে পরিত্রাণ পেল বনের সবাই। 

 

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ