রবিবার ১৮ এপ্রিল ২০২১
Online Edition

এবার মডেল পেট্রোল পাম্প প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ নিল বিপিসি

স্টাফ রিপোর্টার : বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশন (বিপিসি) মুজিববর্ষ উপলক্ষে মডেল পেট্রোল পাম্প প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ নেয়। খোঁজ নিয়ে দেখা গেছে বছর শেষে মাত্র ৫টি মডেল পেট্রোল পাম্প প্রতিষ্ঠার কার্যাদেশ দিয়েছে বিপিসি। প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান বলছেন, এটা এমন কোনও বড় বিষয় নয়। অন্যদিকে পেট্রোল পাম্প মালিকদের সংগঠনের তরফ থেকে বলা হচ্ছে অনেকে কাজ নিলেও নানা সীমাবদ্ধতার কারণে আদৌ কেউ শুরু করতে পারেনি।
সরকারের পক্ষ থেকে বলা হয়, দেশের প্রচলিত পেট্রোল পাম্পে বিশ্বের অন্য দেশগুলোর মতো গ্রাহকসেবার ব্যবস্থা থাকে না। কিন্তু এই মডেল পেট্রোল পাম্পগুলোতে সেবার সব আয়োজন থাকবে।
মডেল পাম্পে থাকবে আধুনিক ফার্মেসি, খাবারের দোকান ও শৌচাগার। যাত্রীরা লম্বা রাস্তা ভ্রমণ করতে গিয়ে যাতে ক্লান্ত লাগলে বিশ্রাম নিতে পারেন সে আয়োজনও থাকবে কোনও কোনও পেট্রোল পাম্পে। সাধারণত ইউরোপ ও আমেরিকার স্টেশনগুলোতে এ ব্যবস্থা থাকে।
জ্বালানি বিভাগ থেকে জানানো হয়, তারা ৯টি মডেল পেট্রোল পাম্প স্থাপনের বিষয়ে অনাপত্তিপত্র দিয়েছে। এরমধ্যে ৩টি তেল বিপণন কোম্পানির অর্থায়নে আর ৬টি ডিলারের অর্থায়নে নির্মাণ করা হবে। ডিলারের অর্থায়নে পদ্মা অয়েল কোম্পানির (পিওসিএল) মাধ্যমে ২টি, যমুনা অয়েল কোম্পানির (জেওসিএল) মাধ্যমে ২টি এবং মেঘনা পেট্রোলিয়াম লিমিটেড (এমপিএল)-এর মাধ্যমে ১টি- মোট ৫টি মডেল পেট্রোল পাম্প নির্মাণের জন্য লেটার অব ইনটেন্ট (এলওআই) বা প্রাথমিক সম্মতিপত্র ইস্যু করা হয়েছে। প্রতিটি কোম্পানিকে কমপক্ষে একটি করে মোট ৩টি মডেল ফিলিং স্টেশন স্থাপনের লক্ষ্যমাত্রা ঠিক করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে বিপিসির চেয়ারম্যান আবু বকর ছিদ্দীক বলেন, যতদূর জানি এ নিয়ে কাজ চলছে। আমি নতুন। তাই বেশি কিছু জানি না। তবে এটা এমন কোনও বড় বিষয় নয়।
এদিকে পেট্রোল পাম্প ওনার্স এসোসিয়েশনের সভাপতি সৈয়দ সাজ্জাদুল করিম বলেন, মডেল পেট্রোল পাম্প করার প্রথম সমস্যা হচ্ছে এটি করতে প্রায় দশ বিঘা জমি দরকার। যা ব্যয়বহুল। বিশাল বিনিয়োগ করতে হবে। এটি আমাদের দেশের জন্য উপযোগী নয়।
তিনি বলেন, অনেক মালিক ঋণ করে পাম্প দেন। সেই ঋণের সুদ দিতেই তাদের গলদঘর্ম হতে হয়। এখন বাড়তি এত কিছুর পেছনে বিনিয়োগ করতে বলাটা অমানবিক বটে। এদিকে নিরাপত্তার বিষয়টি নিয়েও আমরা ভাবছি। এ রকম সুবিধা থাকলে অনেক লোকই পাম্পে আসবে। পাম্পে নগদ টাকা থাকে। সেটিও বিবেচনা করতে হবে। এ ছাড়া এ কাজের জন্য যে জমির কথা বলা হচ্ছে তা হাইওয়ের পাশে পাওয়া আরও কঠিন। জমির দামও বেশি পড়বে। এখন কারোরই এত বড় জমি নেই।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ