ঢাকা, রোববার 20 September 2020, ৫ আশ্বিন ১৪২৭, ২ সফর ১৪৪২ হিজরী
Online Edition

নড়াইলে আরও ২৩ জনের করোনা শনাক্ত

সংগ্রাম অনলাইন ডেস্ক: নড়াইলে করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। প্রতিদিনই বাড়ছে করোনা রোগীর সংখ্যা। জেলায় গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে তিন পুলিশ সদস্য ও এক ব্যাংকারসহ ২৩ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সিভিল সার্জন ডাঃ মোঃ আবদুল মোমেন।

তিনি জানান, আক্রান্তদের মধ্যে নড়াইল সদর থানার এসআই মিহির কান্তি রায়, জেলা পুলিশ লাইনে কর্মরত রাকিব ইসলাম ও আশিকুর রহমান, নড়াইল ইসলামী ব্যাংকের সহকারি প্রকল্প কর্মকর্তা রবিউল ইসলামসহ সদর উপজেলায় ৭জন এবং লোহাগড়া উপজেলায় ১৬জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। আক্রান্তদের নিজ নিজ বাসায় আইসোলেশনে রাখা হয়েছে এবং তারা সুস্থ আছেন।

তিনি বলেন, এ নিয়ে নড়াইল জেলায় এ পর্যন্ত ২১জন পুলিশ সদস্য ও ৯জন চিকিৎসকসহ সর্বমোট ২২১জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এর মধ্যে ৮চিকিৎসকসহ ৬৭জন ইতিমধ্যে সুস্থ হয়েছেন এবং ৭জন মারা গেছেন।

এদিকে নড়াইল জেলায় লোহাগড়া উপজেলার পার ছাতরা গ্রামে গত ১৩ মে সৈয়দ সুজন নামের একজনের প্রথম করোনা শনাক্ত হয় । আক্রান্তের দিক দিয়ে লোহাগড়া উপজেলায় সবচেয়ে বেশী। এ পর্যন্ত লোহাগড়া উপজেলায় আক্রান্ত হয়েছে ১০১জন। করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ক্রমবর্ধমান হারে বৃদ্ধির কারণে এবং করোনা ভাইরাস সংক্রমণ রোধকল্পে স্থানীয় উপজেলা প্রশাসন গত ২৬ জুন লোহাগড়া পৌর এলাকায় লক ডাউন ঘোষণা করে। লকডাউন ঘোষণার পরেও লোহাগড়া উপজেলায় দিন দিন করোনা আক্রান্ত বৃদ্ধি পাচ্ছে।

করোনা বৃদ্ধির কারণ সর্ম্পকে লোহাগড়া উপজেলা স্বাস্থ্য পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ও উপজেলা করোনা সমন্বয়কারী ডাঃ শরীফ সাহাবুবুর রহমান বলেন, পৌর এলাকার লক ডাউন একটু কড়াকড়ি করতে হবে। অন্যথায় এ সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণ করা যাবে না। কারণ হালকা ভাবে লক ডাউন চললে জনসমাগম বেশী হবে। আর জনসমাগম বেশী হলেই করোনা সংক্রমণ বেশী হবে। এ জন্যই লক ডাউন কড়াকড়ি ভাবে করতে হবে। এ উপজেলায় আক্রান্ত ১০১জনের মধ্যে লোহাগড়া উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ফারহানা ইয়াসমিন ইতিসহ ৭৬জনই লোহাগড়া পৌর এলাকায়। গত ২৬জুন লকডাউন ঘোষণার সময় লোহাগড়া উপজেলায় আক্রান্তের সংখ্যা ছিল ৪০জন।

 

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ