রবিবার ০৪ ডিসেম্বর ২০২২
Online Edition

লুটপাটের মুখে কর্মসৃজন প্রকল্পের শ্রমিকদের টাকা

জাকির আহমেদ, মদন (নেত্রকোনা): সরকার অতি হতদরিদ্রের জন্য কর্মসৃজন কর্মসূচি প্রকল্পের (ইজিপিপি) মাধ্যমে ৪০ দিনের কর্মসূচির কাজ চালু করেছে। এ প্রকল্পে কাজ করে প্রত্যেক শ্রমিক দৈনিক হাজিরা বাবদ ২০০ টাকা করে ৪০ দিনে প্রকল্পকালীন ৮ হাজার টাকা পারিশ্রমিকের বিধান রয়েছে। প্রতি সপ্তাহেই শ্রমিকদের মজুরী পরিশোধের নিয়ম থাকলেও নেত্রকোনার মদন উপজেলার ৮ ইউনিয়নের শ্রমিকদের মজুরী কাজ শুরু থেকে  শেষ হওয়ার ৫ মাস অতিবাহিত হলেও পরিশোধ করা হয়নি। অভিযোগ উঠেছে  প্রকল্পে কাজ না করে প্রকৃত শ্রমিক বাদ দিয়ে জনপ্রতিনিধিরা নিজেদের আত্মীয়-স্বজদের নাম দিয়ে শ্রমিক তালিকা করে প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) ও জন প্রতিনিধিদের যোগসাজশে কর্মসৃজন কর্মসূচির শ্রমিকদের মজুরীর টাকা লুটপাট করার পায়তার করছে।
স্থানীয়রা জানান, শ্রমিকরা কাজ করলে তো মজুরী পাবে। কাজ না করে টাকা লুটপাটের পায়তারা করায় প্রকল্পের কাজ শেষ হওয়ার ৫ মাস অতিবাহিত হলে এখনো বিল উত্তলণ হয় নি। এ ব্যাপারে জানতে চাইলে ইউপি সচিব হিরণ মিয়া জানান, যারা কাজ করেছে তাদেরই মাষ্টাররোল তৈরী করা হয়েছে। কোন স্বজন-প্রীতি করা হয়নি। ১২৫ জনের মজুরির অভিযোগের বিষয়ে বলেন, এতদিন তারা (অভিযোগকারী) কোথায় ছিল। নায়েকপুর ইউপি চেয়ারম্যান আতিকুর রহমান রোমান জানান, যড়ষন্ত্র করে আমার বিরুদ্ধে  অভিযোগ দেয়া হয়েছে। আমি কোন অনিয়ম দুর্নীতি করিনি। প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) শওকত জামিল জানান, নায়েকপুর ইউনিয়নের অভিযোগটি সরেজমিনে তদন্ত করেছি পরবর্তীতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে। কর্মসৃজন কর্মসূচির ৪ ইউনিয়নের ১১ টি প্রকল্পের বিল প্রদান করা হয়েছে। বাকী ৪ ইউনিয়নের ১১ টি প্রকল্পের বিল দেয়ার প্রক্রিয়া চলছে। কর্মসৃজন কর্মসূচীর শ্রমিকদের মুজুরীর টাকা দেয়া হয়েছে কিনা এ বিষয়ে জানতে চাইলে মদন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. ওয়ালীউল হাসান বলেন, আমি এত কিছু জানি না। এ বিষয়ে আপনারা পিআইও অফিসে যোগাযোগ করেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ