শুক্রবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০
Online Edition

সিটি নির্বাচনের তারিখ পেছানোর দাবিতে ঢাবি শিক্ষার্থীদের আমরণ অনশন 

 

স্টাফ রিপোর্টারা : সরস্বতী পূজার দিনে ঢাকার দুই সিটি নির্বাচনের তারিখ পেছানোর দাবিতে আমরণ অনশন শুরু করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। গতকাল বৃহস্পতিবার বিশ্ববিদ্যালয়ের সন্ত্রাসবিরোধী রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে এই অনশন শুরু করেন তারা। এর আগে মঙ্গল ও বুধবার শাহবাগ মোড়ে অবস্থান নিয়ে অবরোধ কর্মসূচি পালন করেন আন্দোলনকারীরা। বুধবার নির্বাচন কমিশন ভবন ঘেরাও কর্মসূচি পালনকালে তারা শাহবাগে পুলিশি বাধার মুখোমুখি হন। পরে শাহবাগে সড়ক অবরোধ করেন তারা। বৃহস্পতিবার দুপুরে রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে আমরণ অনশনে বসেন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রায় ৫০ শিক্ষার্থী।

শিক্ষার্থীদের প্রতিবাদী প্ল্যাকার্ডে লিখা ছিল- পূজার দিন নির্বাচন মানি না, মানবো না, ৩০ তারিখ নির্বাচন মানি না, সোনার বাংলায় বৈষম্যের ঠাঁই নাই, হিন্দু মুসলিম ভাই ভাই, পূজার দিনে নির্বাচন নাই! উল্লেখ্য, ৩০ ডিসেম্বর ঢাকার দুই সিটিতে ভোটের তারিখ ঘোষণা করেছে নির্বাচন কমিশন। পূজার দিনে ভোটের প্রতিবাদে ফুঁসে ওঠে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা।

এর আগে জগন্নাথ হল ইউনিয়নের সহসভাপতি ও হল শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক উৎপল বিশ্বাস এবং জগন্নাথ হল ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক কাজল দাসের নেতৃত্বে রাজু ভাস্কর্যের সামনে প্ল্যাকার্ড হাতে জড়ো হতে থাকেন শিক্ষার্থীরা। দুপুর ২টা ১০ মিনিটে তারা অনশন শুরু করেন।  এর আগে ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনের নির্বাচনের তারিখ পরিবর্তনের দাবিতে ঢাবির একদল শিক্ষার্থী বুধবার দুপুরে নির্বাচন কমিশন (ইসি) অভিমুখে অগ্রসর হওয়ার চেষ্টা করলে তাতে বাধা দেয় পুলিশ। 

পূর্ব ঘোষিত কর্মসূচি অনুযায়ী দেড়টায় শিক্ষার্থীরা নির্বাচন কমিশন কার্যালয়ের দিকে পদযাত্রা শুরু করলে শাহবাগ মোড়ে তাদেরকে বাধা দেয় পুলিশ। পরে শাহবাগ মোড়ে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ করেন শিক্ষার্থীরা। তারও আগে নির্বাচন পেছানোর নির্দেশনা চেয়ে একটি রিট আবেদন হাইকোর্ট খারিজ করলে মঙ্গলবার বিকাল ৫টার পর শাহবাগ মোড় অবরোধ করেন শিক্ষার্থীরা।

এদিকে আগামী ৩০ জানুয়ারি অনুষ্ঠেয় ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন পেছানোর দাবি জানিয়েছে জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল। এ দাবিতে গতকাল দুপুরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিক্ষোভ সমাবেশ করেছেন সংগঠনের নেতারা। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যান্টিনে ছাত্রদলের কয়েকশো নেতাকর্মী জড়ো হন। পরে সেখান থেকে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের হয়। মিছিলটি ক্যাম্পাসের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে টিএসসি সংলগ্ন রাজু ভাস্কর্যের সামনে সমাবেশে মিলিত হন। 

এসময় ছাত্রদলের সভাপতি ফজলুর রহমান খোকন, সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন শ্যামল, রওনকুল ইসলাম শ্রাবণ, আমিনুর রহমান, তানজিল হাসান, ঢাবি ছাত্রদলের আহ্বায়ক রাকিবুল ইসলাম, সদস্য সচিব আমান উল্লাহ আমান, তরিকুল ইসলাম, রাজু আহমদ, গাজী সাদ্দাম হোসেন, মিনহাজ আহমেদ প্রিন্স সহ কেন্দ্রীয় ও বিশ্ববিদ্যালয়ের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

সমাবেশে সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় সভাপতি ফজলুর রহমান খোকন বলেন, আগামী ৩০ জানুয়ারি হিন্দু সম্প্রদায়ের স্বরসতী পূজা। কিন্তু সেদিন ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ভোট গ্রহণের দিন ধার্য করেছে নির্বাচন কমিশন। যা সমীচীন নয়। হিন্দু সম্প্রদায়ের স্বরসতী পূজার দিনে ভোটের তারিখ নির্ধারণ করার মাধ্যমে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত দেয়া হয়েছে। আমরা সাধারণ ছাত্র সমাজের প্রতিনিধি হিসেবে জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল সিটি নির্বাচনের তারিখ পরিবর্তন করার দাবি জানাই।

খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবি করে বলেন, বর্তমান অবৈধ সরকার দেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে সম্পূর্ণ মিথ্যা মামলা দিয়ে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে কারাগারে বন্দি রেখে নির্যাতন করছে। অথচ কতো বড় দাগী অপরাধী জামিনে মুক্ত হয়েছে। সেখানে দেশনেত্রীর প্রাপ্য অধিকার জামিন না দিয়ে তাকে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দিচ্ছে সরকার। কিন্তু আমরা হুঁশিয়ার করে দিতে চাই যদি দেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় নেত্রী সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার কিছু হয় সরকার পার পাবেনা। এদেশের সাধারণ ছাত্র জনতাকে ঐক্যবদ্ধ করে সরকার পতনের আন্দোলন গড়ে তোলা হবে। তখন সরকার ক্ষমতা ছেড়ে পালাতে বাধ্য হবে ইনশাআল্লাহ।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ