শুক্রবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০
Online Edition

রিহ্যাব মেলা : ওয়ালটন এলিভেটর বুকিং দিলেই থাইল্যান্ডের এয়ার টিকিট

 

রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে চলছে রিহ্যাব (রিয়েল এস্টেট অ্যান্ড হাউজিং অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ) উইন্টার মেলা-২০১৯। ২৪ ডিসেম্বর থেকে শুরু হওয়া এই মেলা চলবে ২৮ ডিসেম্বর পর্যন্ত। চলমান এই মেলায় মাল্টিন্যাশনাল ইলেকট্রনিক্স জায়ান্ট ওয়ালটন তাদের তৈরি এলিভেটর (লিফট) বুকিং-এ দিচ্ছে বিশেষ সুবিধা। মেলায় রিহ্যাব সদস্য বা যে কোনো ক্রেতা ওয়ালটন লিফট বুকিং দিলেই পাচ্ছেন ক্যাশ ডিসকাউন্ট এবং থাইল্যান্ড যাওয়ার সুবর্ণ সুযোগ। ওয়ালটনের ডেপুটি ডিরেক্টর আব্দুল কাদির জানান, মেলায় ১৭৬ ও ১৭৮ নম্বর স্টলে প্রদর্শিত হচ্ছে ওয়ালটন পণ্য। যেখানে ওয়ালটনের তৈরি এলিভেটর বা লিফট এবং সুইচ, সকেট, সার্কিট ব্রেকার, এলইডি লাইট ও বিভিন্ন ধরনের ফ্যানসহ অন্যান্য পণ্য রয়েছে। 

উল্লেখ্য, ইউরোপীয় প্রযুক্তিতে বাংলাদেশেই লিফট তৈরি করছে ওয়ালটন। এর ডিজাইন, উৎপাদন এবং স্থাপনে দক্ষ প্রকৌশলীরা কাজ করছেন। ওয়ালটন কারখানা এবং করপোরেট অফিসসহ সব ধরনের স্থাপনায় ব্যবহৃত হচ্ছে নিজেদের তৈরি লিফট। নিজেদের চাহিদা মিটিয়ে বাণিজ্যিকভাবে এলিভেটর বিক্রি করছে ওয়ালটন। 

ওয়ালটন ইলেকট্রিক অ্যাপ্লায়েন্স এর ব্র্যান্ড ম্যানেজার জাকিবুর রহমান সেজান জানান, দেশের বাজারে ওয়ালটন ইলেকট্রিক ফ্যানের আশাতীত বিক্রি হচ্ছে। চলতি বছর সারা দেশে ৬ লাখেরও বেশি ফ্যান বিক্রি হয়েছে। ফ্যানের পাশাপাশি সুইচ, সকেট, সার্কিট ব্রেকার, এলইডি লাইট ইত্যাদি পণ্যগুলো দেশেই ওয়ালটনের নিজস্ব ফ্যাক্টরিতে তৈরি হচ্ছে। একমাত্র ওয়ালটন সিলিং ফ্যানেই সেফটি ওয়ার এর পাশাপাশি ১০ বছরের রিপ্লেসমেন্ট ওয়ারেন্টি সুবিধা রয়েছে।  ওয়ালটনের এলিভেটর ও কন্সট্রাকশন ম্যাটারিয়াল বিভাগের কর্মকর্তা জেনান-উল-ইসলাম বলেন, ওয়ালটন লিফট বাণিজ্যিকভাবে বিক্রি শুরুর পর থেকেই ক্রেতাদের কাছ থেকে ভালো সাড়া পাচ্ছেন তারা। ওয়ালটন এলিভেটর কেনায় রয়েছে পাঁচ বছর পর্যন্ত বিশেষ কিস্তি সুবিধা। এলিভেটরের এই সুবিধা রিহ্যাব মেলার পাশাপাশি থাকবে আগামি বাণিজ্য মেলাতেও। তিনি জানান, একমাত্র ওয়ালটনই ইউরোপিয়ান স্ট্যান্ডার্ড অনুযায়ী বাংলাদেশে এলিভেটর তৈরি করছে। লিফটের মূল্য রাখা হচ্ছে ক্রেতাদের হাতের নাগালে।

বাজারে রয়েছে ওয়ালটনের দুই ধরণের এলিভেটর। প্যাসেঞ্জার লিফট ও কার্গো এলিভেটর। প্যাসেঞ্জার এলিভেটরে ৩০০ কেজি থেকে শুরু করে ৩ হাজার কেজি পর্যন্ত ধারণক্ষমতা রয়েছে। এসব এলিভেটরে ৪ থেকে ৪০ জন প্যাসেঞ্জার একই সময় বহন করার সক্ষমতা রয়েছে। অন্যদিকে কার্গো এলিভেটরে ধারণক্ষমতা ৮০০ কেজি থেকে ৪ হাজার ৫০০ কেজি পর্যন্ত। সর্বোত্তম বিক্রয়োত্তর সেবায় ওয়ালটনের রয়েছে নিজস্ব সার্ভিস টিম ও ডেডিকেটেড কাস্টমার কেয়ার নম্বর (১৬২৬৭, ০১৬৮৬৬৯০১৩৭ ও ০১৬৮৬৬৯৪৩১২)। রয়েছে ফ্রি ইন্সটলেশন সুবিধা। এলিভেটর কেনার এক বছরের মধ্যে কোনো যন্ত্রাংশে সমস্যা হলে ঠিক করে দেয়া হচ্ছে সম্পূর্ণ ফ্রিতে। এ ছাড়াও আছে এক বছরের ফ্রি মেইনটেনেন্স সুবিধা। এলিভেটরের যে কোনো সমস্যায় তাৎক্ষণিকভাবে সার্ভিস টিম পৌঁছে যায় গ্রাহকের কাছে। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ