বৃহস্পতিবার ২২ অক্টোবর ২০২০
Online Edition

সিএএ ও এনআরসি জোর করে চাপিয়ে দিলে বাংলায় বিপ্লব হবে : সিদ্দিকুল্লাহ চৌধুরী

২৩ ডিসেম্বর, পার্সটুডে : ভারতের পশ্চিমবঙ্গের জমিয়তে উলামায়ে হিন্দের সভাপতি ও রাজ্যের জনশিক্ষা প্রসার ও গ্রন্থাগার পরিসেবা দফতরের প্রতিমন্ত্রী মাওলানা সিদ্দিকুল্লাহ চৌধুরী কেন্দ্রীয় সরকারের উদ্দেশ্যে বলেছেন, সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন (সিএএ) ও এনআরসি জোর করে চাপিয়ে দিলে বাংলায় এমন বিপ্লব হবে যা পৃথিবী কোনোদিন দেখেনি!

গত রোববার পশ্চিমবঙ্গের রাজধানী কোলকাতায়  সংশোধিত   নাগরিকত্ব আইন (সিএএ) ও জাতীয় নাগরিকপঞ্জি বা এনআরসি’র বিরুদ্ধে এক বিশাল জনসমাবেশে ভাষণ দেওয়ার সময় ওই মন্তব্য করেন।

রাজ্য জমিয়ত প্রধান মাওলানা সিদ্দিকুল্লাহ চৌধুরী উগ্রহিন্দুত্ববাদী আরএসএস ও বিজেপি’র সমালোচনা করে বলেন, আরএসএস-বিজেপি ভারতের সংবিধান তৈরি করেনি। ১৯৪৯ সালে সংবিধান প্রণয়নে জমিয়তে উলামায়ে হিন্দের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অংশগ্রহণ করেছিলেন। জমিয়তে উলামায়ে হিন্দ সেসময় নাগরিকত্ব নিয়ে বক্তব্য দিয়েছিল। এটা গর্বের বিষয়।’

তিনি বলেন, ‘নিজের ছেলেকে মা খুন করতে পারে না। এই ভারতে যদি বিজেপির ত্যাগ থাকত তাহলে ওঁরা অত্যাচার করতে পারত না। ওঁরা ব্রিটিশের দালালি করেছে! ব্রিটিশের পা চেটেছে! ইতিহাসে নেই যে, আরএসএসের লোকেরা, বিজেপির নেতারা স্বাধীনতা সংগ্রামে একজন মরেছেন বা শহীদ হয়েছেন। কিন্তু আমরা দায়িত্ব নিয়ে বলছি, ঢাকা থেকে পেশোয়ার পর্যন্ত ১৯৫৭ সালের পর তিন মাসে ৫২ হাজার ‘আলেম’ এই দেশের জন্য প্রাণ দিয়েছিলেন। আপনি উড়িয়ে দেবেন! এত বড় সাহস! বলছেন, চুন চুন কে নিকালেঙ্গে (বেছে বেছে বহিষ্কার করব)! দেশবাসীও আপনাকে দেখে নেবে। আপনার প্রতিশোধ নেবে। এই প্রতিশোধ হবে আইনি ও গণতান্ত্রিক উপায়ে।

কেন্দ্রীয় সরকার ও বিজেপি নেতাদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, ‘এখন ওঁরা পিছিয়ে যাচ্ছে। থুথু ফেলে এখন চেটে খাওয়ার সময় এসেছে। কত থুথু চাটতে হবে তার হিসাব নেই। এটা তো শান্তিপূর্ণ সমাবেশ। আমরা অশান্ত নই। কিন্তু সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন (ঈঅঅ) ও এনআরসি জোর করে চাপিয়ে দিলে এমন বিপ্লব  বাংলায় হবে যা পৃথিবী কোনোদিন দেখে নি! আমার দেশ থেকে আমাদের তাড়িয়ে দেবে? এত দুধ দিয়ে ভাত খেয়েছো তোমরা! এত বড় সাহস! এত বড় হিম্মৎ!’

মাওলানা সিদ্দিকুল্লাহ চৌধুরী বলেন, ‘আমরা ভারতকে স্বাধীন করা লোক। এটা আমাদের কুরবানি দেয়া দেশ। এই দেশ আমাদের। আমারা ভেসে আসি নি। আমরা পাকিস্তানে যাইনি। কিন্তু ওঁদের জামা তুলে দেখা যাবে যে পাকিস্তানের গন্ধ এখনও অনেকের গায়ে আছে! এই মাতৃভূমি আমাদের। আমরা সংবিধান রচনায় ছিলাম। দলিলে আমাদের নাম আছে। চোরের মত আইন পাস হয়ে গেল! সাত ঘণ্টায় বিল পাস হয়ে গেল! কিন্তু সংবিধান রচনা করতে ২ বছর ১১ মাস ১৯ দিন লেগেছিল।

তিনি বিজেপি নেতাদের কটাক্ষ করে বলেন, কী যোগ্য নেতৃত্ব! কী যে মাথায় তাঁদের আছে! আমরা খুশি যে ভারতবর্ষ উত্তাল হয়েছে। দিল্লির জামিয়া মিলিয়ায় ক্ষতি হয়েছে কিন্তু তাঁরা ভারতকে পথ দেখিয়েছে। আমরা খুশি যে লন্ডন, ইউরোপে ওই ৫৬ ইঞ্চি ছাতিওয়ালাদের (বিজেপি নেতাদের) মুখ পুড়ছে। ওরা ১৩০ কোটি মানুষের মুখ  পোড়াচ্ছেন! ওঁরা ব্যর্থ! অযোগ্য! ওরা দেশ চালাতে পারবে না।’

তিনি বলেন, সংবিধানবিরোধী সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের বিরুদ্ধে ভারতের বিভিন্ন প্রান্তে যারা শান্তিপূর্ণ গণতান্ত্রিক আন্দোলনের শরিক হয়েছেন আমরা আজকের এই মহা সমাবেশ থেকে তাঁদেরকে মুবারকবাদ জানাচ্ছি। 

জমিয়তে উলামায়ে হিন্দের পশ্চিমবঙ্গ শাখা আয়োজিত ওই সমাবেশে কমপক্ষে ১৫ লাখ মানুষ জমায়েত হয়েছিলেন বলে রাজ্য জমিয়তের সাধারণ সম্পাদক মুফতি আব্দুস সালাম জানান।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ