মঙ্গলবার ২০ অক্টোবর ২০২০
Online Edition

পুলিশের বাধায় আবরারের বাড়িতে যেতে পারেননি বিএনপি নেতা আমান

কুষ্টিয়া সংবাদদাতা : পুলিশি বাধার কারণে নিহত বুয়েট ছাত্র আবরারের বাড়িতে যেতে পারেননি বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা, ডাকসুর সাবেক ভিপি আমান উল্লাহ আমান।
এ সময় আমান বলেন, বেগম খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের নির্দেশে আমারা দলীয় কর্মসূচী ও নিহত আবরার পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানাতে কুষ্টিয়া যাচ্ছিলাম। পুলিশি বাধার মাধ্যমে সরকার আমাদের গণতান্ত্রিক ও মানবাধিকার অধিকার কেড়ে নিলো। সরকার সংবিধানের ৩৯ ধারা লঙ্ঘন করে গণতান্ত্রিক অধিকারকে খর্ব করেছে। আজকে মানবাধিকারকে ভুলুন্ডিত করে যে অপমান করা হলো সরকার একদিন এর জবাব পাবে। আমান বলেন, গণতন্ত্রের জন্য আমাদের সংগ্রাম চলমান আছে। গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার না হওয়া পর্যন্ত এ সংগ্রাম অব্যাহত থাকবে। এবং গণতন্ত্র পূনপ্রতিষ্ঠার মাধ্যমে এই অগণতান্ত্রিক সরকারের পতন হবে। ঢাকা থেকে রওয়ানা হয়ে রবিবার বেলা সাড়ে ১১টায় লালন শাহ ব্রীজ পার হয়ে আমান উল্লাহ আমানের গাড়ী কুষ্টিয়া ঢোকার প্রবেশ মুখে আসলে জেলার ভেড়ামারা থানা পুলিশের একটি দল ব্যারিকেট সৃষ্টি করলে গণমাধ্যমকে তিনি এসব কথা বলেন। এসময় কুষ্টিয়ার দিকে যেতে বাধা দিলে গাড়ী থেকে নেমে আসা আমান উল্লাহ’র সাথে পুলিশের কথাকাটাকাটি হয়। পুলিশি বাধার মুখে ১০ মিনিট পর আমান উল্লাহ আমান গাড়ী ঘুরিয়ে ঢাকার দিকে চলে যেতে বাধ্য হন।
এসময় আমান উল্লাহ আমানের সাথে বিএনপির আর্ন্তজাতিক বিষয়ক সম্পাদক ডাকসুর সাবেক নেতা নাজিমুদ্দিন আলমও ছিলেন। তাদেরকে রিসিভ করে আনতে কুষ্টিয়া থেকে লালন শাহ ব্রীজে ছিলেন বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কুষ্টিয়া জেলা বিএনপি সভাপতি সাবেক এমপি সৈয়দ মেহেদী আহমেদ রূমী ও বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির স্থানীয় সরকার বিষয়ক সম্পাদক জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক সাবেক এমপি সোহরাব উদ্দীন, জেলা বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক আব্দুর রাজ্জাক বাচ্চুসহ অনান্য নেতৃবৃন্দ। পরে তারা কুষ্টিয়ায় চলে আসেন। এদিকে বিএনপি নেতার কুষ্টিয়া আগমন উপলক্ষ্যে লালন শাহ ব্রীজের মুখে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়। পুলিশ বিভিন্ন গাড়ী তল্লাসী করে। কুষ্টিয়ার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ভেড়ারামা সার্কেল) আল বিরুনি জানান, তার নিজের নিরাপত্তা জনিত কারনে আমান উল্লাহ আমানকে ফিরিয়ে দেয়া হয়েছে। কুষ্টিয়া জেলা বিএনপির সভাপতি জানান, রবিবার বেলা ১১টায় কেন্দ্র ঘোষিত কর্মসূচীর অংশ হিসেবে কুষ্টিয়ায় বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি ও ভারতের সাথে দেশ বিরোধী চুক্তির প্রতিবাদে এবং বুয়েটে নিহত আবরার ফাহাদের হত্যাকারীদের দ্রুত বিচার দাবীতে মানববন্ধন ছিল। এই কর্মসূচীতে অংশ নিতে আমান উল্লাহ আমান ও নাজিমুদ্দিন আলম কুষ্টিয়া আসছিলেন। দলীয় কর্মসূচী শেষে আবরার পরিবারের সাথে তাদের দেখা করার কথা ছিল। এদিকে, মানববন্ধন ভন্ডুল করতে কুষ্টিয়া জেলা বিএনপি কার্যালয় থেকেও পুলিশ দলীয় নেতাকর্মীদের বের করে দেন বলেও তিনি জানান।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ