শনিবার ১৬ অক্টোবর ২০২১
Online Edition

বিচার বিভাগকে ক্ষমতাসীন আ’লীগ সম্পূর্ণভাবে করায়ত্ত করে রেখেছে

গতকাল শনিবার জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে বিএনপি ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আয়োজিত বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে আয়োজিত মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর -সংগ্রাম

স্টাফ রিপোর্টার: ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ বিচার বিভাগকে দলীয়করণ করেছে অভিযোগ করে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, এখানে একটি বিচার বিভাগ আছে। আমরা তথা জনগণ যার ওপর নির্ভর করার কথা। এখন এ বিচার বিভাগের কাছে আমরা কোনো বিচার পাই না। এই বিচার বিভাগকে অবৈধ আওয়ামী লীগ সরকার সম্পূর্ণভাবে তাদের করায়ত্ত করে রেখেছে। তিনি বলেন, সরকারের ইচ্ছাতেই দেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় নেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার জামিন আটকে আছে। গতকাল শনিবার সকালে এক মানববন্ধন কর্মসূচি বিএনপি মহাসচিব এইসব কথা বলেন।
জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে ঢাকা মহানগর দক্ষিণের উদ্যোগে দলের চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া ও দক্ষিনের সভাপতি হাবিব উন নবী খান সোহেলের মুক্তির দাবিতে এই মানববন্ধনের আয়োজন করা হয়। সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক কাজী আবুল বাশারের সভাপতিত্বে মানববন্ধনে অন্যান্যের মধ্যে বিএনপির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুস সালাম আজাদ, মহানগর দক্ষিনের সহসভাপতি শামসুল হুদা, নবী উল্লাহ নবী, মোশাররফ হোসেন খোকন, মীর হোসেন মীরু, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রশীদ হাবিবসহ নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখেন।
ক্ষমতাসীনরা দেশে নৈরাজ্য সৃষ্টি করেছে অভিযোগ করে মির্জা ফখরুল বলেন, সারাদেশে আজকে তারা (ক্ষমতাসীন) একটা নৈরাজ্য সৃষ্টি করেছে। আইনশৃঙ্খলা ব্যবস্থা চরমভাবে ভেঙে পড়েছে। আপনারা দেখছেন দিনে-দুপুরে মানুষকে কুঁপিয়ে হত্যা করা হচ্ছে। কয়েকদিন আগে পত্রিকায় বেরিয়েছে প্রতি ঘন্টায় ১২ জন লোক মারা যাচ্ছে, নিহত হচ্ছে হয় সড়ক দুর্ঘটনায় অথবা হত্যা করার মধ্য দিয়ে। আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির পরিস্থিতি দেশে ধর্ষন বেড়েছে, ডাকাতি বেড়েছে, লুটপাট বেড়েছে। মানুষের জীবনের এখন আর কোনো নিরাপত্তা নেই।
মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, আজকে সারাদেশ একটা কারাগারে পরিণত হয়েছে। এখানে একটি বিচার বিভাগ আছে আমরা তথা জনগণ যার ওপর নির্ভর করার কথা। এ বিচার বিভাগের কাছে আমরা কোনো বিচার পাই না। এই বিচার বিভাগ সম্পূর্ণভাবে আওয়ামী লীগের অবৈধ সরকারের করায়ত্ত করা হয়েছে।
তিনি বলেন, আপনারা দেখেছেন যে, পাবনাকে কয়েকদিন আগে ‘৯৪ সালে একটি ট্রেনে হামলার বিষয় নিয়ে যে রায় হয়েছে- এটা আমার মনে হয় না যে, কোনো সভ্য সমাজে, আইনের শাসনের দেশে এই ধরনের একটা ন্যক্কারজনক রায় হতে পারে। আমরা এই রায়ে শুধু হতাশ নই, বিক্ষুব্ধ। এখানে ন্যায় বিচার সম্পূর্ণ বঞ্চিত হচ্ছে।
বিএনপি মহাসচিব বলেন, শুধু তাই নয়, আজকে সংবাদ পত্রের স্বাধীনতা নেই বললেই চলে। একেবারে শূন্যের কোঠায় এসে গেছে।আমরা পরিষ্কার করে বলতে চাই, একাত্তর সালে আমরা যে চেতনা নিয়ে, যে আদর্শ নিয়ে স্বাধীনতা যুদ্ধ করেছিলাম গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র ব্যবস্থার জন্য, সেই রাষ্ট্র ব্যবস্থাকে আমরা ফিরে পেতে চাই, আমরা গণতন্ত্রকে ফিরে পেতে চাই।
মির্জা ফখরুল বলেন, উন্নয়নের কথা বলা হচ্ছে। মেগা প্রজেক্ট, মেগা দুর্নীতি। আজকে পত্র-পত্রিকা খুলে দেখবেন ব্যাংকগুলো থেকে কিভাবে টাকা চলে যাচ্ছে। গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধি করেছে। গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধি করার একমাত্র কারণ হচ্ছে তারা এলএমজি আমদানি করতে চায়। এই এলএমজি আমদানি করে সেখানে যে ভুতর্কি দেবে সেই ভুতর্কির টাকা জনগণের পকেট থেকে নিতে চায়। এর বিরুদ্ধে বাম সংগঠনগুলো আগামীকাল হরতালের ডাক দিয়েছে। আমরা বিএনপি সিদ্ধান্ত নিয়েছি যে, এই হরতালকে সমর্থন করবো। কারণ এটা জনগণের দাবি, জনগণের দাবিকে অবশ্যই আমরা সবসময় সমর্থন করবো।
খালেদা জিয়ার মুক্তির প্রসঙ্গ টেনে ফখরুল বলেন, দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে কারাগারে আটক রেখে এই সরকার এটা প্রমাণ করেছে তারা গণতন্ত্রকে আটক রাখতে চায়। কারণ দেশনেত্রী গণতন্ত্রের প্রতীক। যে নেত্রী তার রাজনৈতিক জীবনের পুরোটাই গণতন্ত্রের উন্নয়ন ও গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করার জন্য ত্যাগ স্বীকার করেছেন তাকে তারা অন্যায়ভাবে তাকে কারারুদ্ধ করে রেখেছে।
সাবেক এই মন্ত্রী বলেন, দেশনেত্রী বেগম থালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মামলাগুলো সম্পূর্ণভাবে সাজানো মামলা মিথ্যা মামলা। অতীতে ঠিক এ্কই ধরনের মামলা আপনাদের (আ’লীগ) নেতা-নেত্রীদের বিরুদ্ধে হয়েছে। আজকের প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে ছিলো ১/১১’র সময়। সেই ১৫ টা মামলা তারা খারিজ করে দিয়েছে, বাতিল করে দিয়েছে। যারা আপনাদের অনুসারী তাদেরকে আপনারা জামিন দিয়ে যাচ্ছেন। ফখরুল বলেন, আজকে বেগম খালেদা জিয়াকে যে মামলায় সাজা দেওয়া হয়েছে,একই ধরনের মামলা ছিল বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর বিুরদ্ধেও। কিন্তু তারগুলো বতিল না করে উল্টো খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে নতুন করে আরো মামলা যোগ করা হয়েছে। এছাড়া আমাদের দেশনেত্রীকে আপনারা জামিন দিচ্ছেন না। এটা সম্পূর্ণভাবে বেআইনি অবৈধ। সরকার সম্পূর্ণভাবে এই জামিন আটকিয়ে রেখেছে। আমরা আইনসম্মতভাবে যেটা পাওনা তার জামিন চাই, তার মুক্তি চাই, গণতন্ত্রের মুক্তি চাই।
তিনি বলেন, এই অবৈধ সরকার দেশে গণতন্ত্রের বিশ্বাস করে না, তারা একনায়কতন্ত্র ও কর্তৃত্ববাদ ও স্বৈরতন্ত্রে বিশ্বাসী বলে তারা দেশে একদলীয় শাসন ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠা করতে চায় বলে মন্তব্য করেন বিএনপি মহাসচিব।
সরকারের বিরুদ্ধে গণঐক্য গড়ে তোলা প্রসঙ্গে বিএনপি মহাসচিব বলেন, ভয়ংকর গণতন্ত্র বিনাশী সরকার মানুষের অধিকার যে কেড়ে নিচ্ছে, তাকে অপসারণ করতে হলে জনগণের ঐক্যের কোনো বিকল্প নেই। আজকে সেই ঐক্য আমাদেরকে সৃষ্টি করতে হবে।
তিনি বলেন, আমাদের ভাইদেরকে মুক্ত করতে হলে, দেশনেত্রীকে মুক্ত করতে হলে, হাবিব উন নবী খান সোহেলকে মুক্ত করতে হলে আমাদেরকে অবশ্যই জনগণের ঐক্যের মধ্য দিয়ে গণঐক্য তৈরি করতে হবে, সমস্ত রাজনীতিক দলগুলোকে ঐক্যবদ্ধ করে জনগণকে ঐক্যবদ্ধ করে, একটা গণজোয়ারের মধ্য দিয়ে আন্দোলনের মধ্য দিয়ে এ সরকারকে আমাদের পরাজিত করতে হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ