শুক্রবার ২০ মে ২০২২
Online Edition

সিডিএ’র কাজের গতি বাড়াতে হবে ॥ উন্নয়ন আরো দ্রুত হতে হবে

চট্টগ্রাম ব্যুরো : গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রী এডভোকেট শ. ম. রেজাউল করিম বলেছেন, চট্টগ্রামের উন্নয়নে অবহেলা করা যাবে না । সিডিএ’র কাজের গতি বাড়াতে হবে। প্রকল্পের ধীর গতি মেনে নেয়া যাবে না। চট্টগ্রামের উন্নয়ন আরো দ্রুত হতে হবে। গতকাল শনিবার  দুপুরে চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (সিডিএ) কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের সাথে মতবিনিময়কালে তিনি এসব কথা বলেন।
গণপূর্ত মন্ত্রী এডভোকেট শ. ম. রেজাউল করিম বলেন, প্রত্যেক প্রতিষ্ঠানকে নিজস্ব কাজের পরিসর নির্ধারণ করে দেওয়া হয়েছে। মন্ত্রণালয় কি করবে, সিডিএ কি করবে, সিটি কর্পোরেশন কি করবে সবকিছুই নির্ধারিত। সবাইকে নিজস্ব অবস্থান থেকে কাজ করতে হবে। প্রতিটি প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশের উন্নয়নের জন্য কাজ করছে এবং প্রতিটি প্রতিষ্ঠানের উদ্দেশ্য এক। উন্নয়ন কাজ করতে গিয়ে কোনো রকম অজুহাত দেখানো যাবে না। সকলকে নিজ নিজ অবস্থান থেকে কাজের সমন্বয় করতে হবে।
মন্ত্রী বলেন, আমরা সবাই সরকারের অংশ। সবার চিন্তা করতে হবে- উন্নয়নের কথা। আত্মশুদ্ধির মাধ্যমে নিজেদের সংশোধন করতে হবে, মানসিকতার পরিবর্তন ঘটাতে হবে। যার যে দায়িত্ব, নিষ্ঠার সাথে, সততার সাথে তা পালন করতে হবে।
তিনি বলেন, দেশের উন্নয়নে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অবিরাম পরিশ্রম করে চলেছেন। সবকাজ স্বচ্ছতা ও সততার সঙ্গে সকলে দায়িত্ব পালন করবেন এটাই সবার প্রতি তার প্রত্যাশা। তিনি চট্টগ্রামকে আলাদাভাবে গুরুত্ব দিচ্ছেন। চট্টগ্রামের জন্য ঢাকার চেয়েও বেশি ফান্ড বরাদ্দ দিচ্ছেন।
মন্ত্রী বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর কাছে টাকা কোনো সমস্যা না। তিনি চান এমন প্রকল্প, যা মানুষের উপকারে আসবে, এলাকার উন্নয়ন হবে। তাহলে তিনি সেসব প্রকল্প অনুমোদন দিচ্ছেন। চট্টগ্রামের উন্নয়ন দেখে আমি খুশি হয়েছি। চট্টগ্রামের মানুষ অনেক পরিশ্রমী। নগর ও গ্রামে কোনো পার্থক্য থাকবে না।
চট্টগ্রামের উন্নয়নে মহাপরিকল্পনার অংশ হিসেবে কয়েক হাজার কোটি টাকার কাজ হচ্ছে উল্লেখ করে সিডিএ চেয়ারম্যন আবদুস ছালাম বলেন, প্রধানমন্ত্রী সব পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করছেন। চট্টগ্রামকে বাণিজ্যিক রাজধানী করার জন্য মহাপরিকল্পনা করেছি এবং চট্টগ্রামকে যানজটমুক্ত করার পরিকল্পনা করা হয়েছে। পাশাপাশি মানুষকে সচেতনও হতে হবে। তিনি বলেন, চট্টগ্রামে ৫৭টি খাল রয়েছে। এর মধ্যে ৩৬টি খাল খননের পরিকল্পনা করেছি। ১১ খালের কাজ চলছে। ধীরে ধীরে সব খাল খনন করা হবে। আগামীতে আমরা আরো সফলতা পাব।
সিডিএ চেয়ারম্যানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় উপ-প্রচার সম্পাদক আমিনুল হক আমিন, গৃহায়ণ ও গণপূর্ত সচিব শহিদুল্লাহ খন্দকার, সিডিএ সচিব তাহেরা ফেরদৌস, সিডিএ বোর্ড মেম্বার জসিম উদ্দিন শাহ, হাসান মুরাদ বিপ্লব, কে বি এম শাহজাহান, মোস্তাফা জামাল প্রমুখ।
উল্লেখ্য গণপূর্ত মন্ত্রী সিডিএর জলাবদ্ধতা নিরসন প্রকল্প,এলিভেটেড একপ্রেসওয়ে প্রকল্প,পতেংগা পর্যটন কেন্দ্র নির্মাণ প্রকল্প,আউটার রিং রোড প্রকল্প পরিদর্শন করেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ