বুধবার ২৫ মে ২০২২
Online Edition

বন্দরের সংক্ষিপ্ত সংবাদ

নারায়ণগঞ্জ সংবাদাদাতা, ২৮ জানুয়ারি) : নারায়ণগঞ্জের বন্দর উপজেলা পরিষদের নির্বাহী কর্মকর্তা পিন্টু বেপারী বলেছেন, ২০ বছর পূর্বে আমি আমিও তোমাদের মত এসএসসি পরিক্ষার্থী ছিলাম। খারাপ লাগে ছাত্র জীবনে এত সুন্দর করে আমি বিদায় অনুষ্ঠান পাইনি। যা তোমরা পেয়েছ। আমাদের অল্প পরিসরে বিদায় হয়েছে।  আমার ঐ সময় হারিকেন জ্বালিয়ে পড়া লেখা করেছি। তোমরা কিন্তু তা করনি।
২৭ জানুয়ারী রোববার বন্দরে সরকারি হাজী ইব্রাহিম আলম চাঁন মডেল স্কুল এন্ড কলেজের ৬ষ্ঠ শ্রেণী শিক্ষার্থীদের বরণ এসএসসি পরিক্ষার্থীদের বিদায় ও কৃতী শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ সব কথা বলেন। সরকারি হাজী ইব্রাহিম আলম চাঁন স্কুল এন্ড কলেজ গভর্নিং বডির সভাপতি আলহাজ্ব মঞ্জুর হাসান মঞ্জুর সভাপতিত্বে বিদায় ও কৃতী ছাত্রছাত্রীদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন গভর্নিং বডি সদস্য খালিদ হাসান, মোঃ আশরাফ উদ্দিন, রবিউল আউয়াল, প্রাক্তন শিক্ষক প্রতিনিধি মোঃ আশরাফু উজ্জামান ও স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ আলহাজ্ব আহাম্মদ হালিম মজহার প্রমুখ।
আসামী রিমান্ড শেষে : নারায়ণগঞ্জের বন্দরে মদনপুরে পুলিশ উপর হামলা ও  সন্ত্রাসী ২ গ্রুপের সংঘর্ষের ঘটনায় আশিক নিহত মামলার এজাহারভূক্ত ৬ আসামীকে ১ দিনের রিমান্ড শেষে আদালতে প্রেরণ করেছে পুলিশ। ২৭ জানুয়ারী সকালে তাদেরকে নিবিড় ভাবে জিজ্ঞাসাবাদের পর তাদেরকে পুনরায় আদালতে প্রেরণ করা হয়। এ ব্যাপারে মামলার তদন্তকারি কর্মকর্তা বন্দর ফাঁড়ী ইনর্চাজ ইন্সেপেক্টর মোঃ আহসান উল্ল্যাহ জানান, গ্রেপ্তারকৃতদের জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ১ দিনের রিমান্ডে আনা হয়েছে। রিমান্ডে আসামীরা গুরুত্বপূর্ণ তথ্য প্রদান করেছে। জিজ্ঞাসাবাদ শেষে রোববার দুপুরে তাদেরকে পুনরায় আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।
৩ পলাতক আসামী  গ্রেপ্তার : নারায়ণগঞ্জের বন্দর থানা পুলিশ ওয়ারেন্ট তামিল অভিযান চালিয়ে বিভিন্ন মামলার ওয়ারেন্টভুক্ত ৩ পলাতক আসামীকে গ্রেপ্তার করেছে। গত ১৬ জানুয়ারী শনিবার রাতে বন্দর থানার বিভিন্ন স্থান থেকে এদেরকে গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তারকৃতরা হলো, বন্দর হরিপুর এলাকার মনির হোসেন মিয়ার ছেলে আব্দুল্লাহ (৪০) বন্দর ঝাউতলা এলাকার সুরুজ মিয়ার ছেলে রবিন (৩৫) ও কলাবাগ এলাকার মৃত আম্বর আলী মিয়ার ছেলে জুম্মান (৩০)। গ্রেপ্তারকৃতদের রোববার দুপুরে আদালতে প্রেরণ করেছে পুলিশ।
ইয়াবা ব্যবসা : নারায়ণগঞ্জের ঢাকা-চট্রগ্রাম মহাসড়কের বন্দরের কামতাল তদন্ত কেন্দ্রের সামনে অবস্থিত হুমায়ুনের মালিকানাধীন ট্রাক পার্কিং স্ট্যান্ডে প্রকাশ্যে চলছে জমজমাট মাদক ব্যবসা। ট্রাক পার্কিং প্লেজ ভাড়া নিয়ে তবলপাড়া গ্রামের জামাই মজিদ মরণনেশা ইয়াবা ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে র্নিবিঘ্ন পার্কিং প্লেজে গাড়ি রেখে নিরাপদে চালক-হেলপারসহ মাদক সেবনকারীরা ইয়াবা সেবন করছেন প্রতিনিয়ত।  ট্রাক পার্কিং  হিসাবে ব্যবসা শুরু করলেও এর আড়ালে চলছে ইয়াবা ব্যবসা। প্রকাশ্যে এসব ব্যবসা করলেও তার প্রতিবাদে কেউ কোনো কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহন করছেন না বলে এলাকাবাসীর অভিযোগ।  এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, বন্দর উপজেলার মদনপুর হইতে লাঙ্গলবন্দের উপর দিয়ে বয়ে গেছে ঢাকা-চট্রগ্রাম মহাসড়ক। মহাসড়ক ঘেষে প্লানা পেট্রল পাম্প সংলগ্ন অবস্থিত  কামতাল তদন্ত কেন্দ্র। তদন্ত কেন্দ্রের বিপরিত পশ্চিম পার্শে বনলতা পেট্রল পাম্প। পাম্প সংলগ্ন অবস্থিত সিদ্ধিরগঞ্জ আদমজী নগর এলাকার বিশিষ্ট ব্যবসায়ী হুমায়ুনের  মালিকাধীন  ট্রাক পার্কিং  প্লেজ। এই পার্কিং প্লেজটি ভাড়া নেয় উপজেলা মুছাপুর ইউপি তবলপাড়া গ্রামের  মৃত কুদ্দুছ মিয়ার মেয়ের জামাই মজিদ। প্রথমে মজিদ মিয়া একটি  হোটেল ভাড়া নিলেও আস্তে আস্তে পুরো মাঠ ভাড়া নিয়ে ট্রাক পার্কিং প্লেজ করে। তার পর থেকে এখানে মাদকের স্বর্গরাজ্য গড়ে তুলে মজিদ। এ ব্যাপারে অভিযুক্ত মজিদ মিয়ার সঙ্গে মোবাইল ফোনে কথা বললে তিনি তার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ অস্বীকার করেন। এবং বলেন, আমার এখানে কোনো প্রকার মাদক ব্যবসা চলে না। তবে কোনো ট্রাক ড্রাইভার ও হেলপার মাদক দ্রব্য নিজে এনে এখানে পান করে থাকলে সেই বিষয়ে আমার কোনো কিছুই করার নাই।     এ ব্যাপারে কামতাল তদন্ত কেন্দ্রের ইনর্চাজ ইন্সেপেক্টর মোস্তাফিজুর রহমান জানান, আমি এখানে প্রায় দেড় বছর ধরে চাকুরি করছি। এখানে মাদক ব্যবসার কথা শুনি নাই। আমি এখন ছুটিতে আছি। ছুটি শেষে কামতাল তদন্ত কেন্দ্র এসে বিষয়টি খতিয়ে দেখব।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ