শুক্রবার ৩০ অক্টোবর ২০২০
Online Edition

অভ্যাসচারিতায় কোন বিষয় মনে যখন দোলা দেয় তা নিয়েই লিখতে বসি ----চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার মোঃ আব্দুল মান্নান

 

 ব্রাহ্মণবাড়িয়া সংবাদদাতা: গত বুধবার বিকেল সাড়ে ৩টায় সুরসম্রাট দি আলাউদ্দিন সঙ্গীতাঙ্গন মিলনায়তনে দৈনিক সমতট বার্তা পত্রিকার আয়োজনে বরেণ্য লেখক ও জননন্দিত জনপ্রশাসক মো. আবদুল মান্নান এর স্মৃতিকথামূলক বই ‘দুইবর্ণ’ এর প্রকাশনা উৎসব অনুষ্ঠিত হয়েছে। জেলা প্রশাসক রেজওয়ানুর রহমান এর সভাপতিত্বে প্রকাশনা উৎসবে প্রধান অতিথি ছিলেন বইটি’র লেখক, বিভাগীয় কমিশনার, চট্টগ্রাম মো. আবদুল মান্নান। বিশেষ অতিথি ছিলেন ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌরসভার মেয়র মিসেস নায়ার কবীর, ব্রাহ্মণবাড়িয়া সরকারি মহিলা কলেজ এর অধ্যক্ষ প্রফেসর এ.এস.এম শফিকুল্লাহ, জেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা আল মামুন সরকার, জেলা পরিষদ এর প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ নওয়াব আসলাম হাবীব, মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক অ্যাডঃ হামিদুর রহমান ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া গবেষক মুহম্মদ মুসা। 

নির্ধারিত আলোচক হিসেবে ‘দুইবর্ণ’ বই এর উপর আলোচনা করেন কবি ও মুক্তিযুদ্ধের গবেষক জয়দুল হোসেন, কবি ও সংস্কৃতিজন আবদুল মান্নান সরকার, প্রাবন্ধিক ও গবেষক মানবর্দ্ধন পাল, কবি ও লোক গবেষক মহিবুর রহিম ও লেখক অধ্যক্ষ সোপানুল ইসলাম। ‘দুইবর্ণ’ পাঠ পর্বে বইটির ‘চিঠি’ লেখাটি পাঠ করেন বিশিষ্ট বাচিক শিল্পী ও কবি মোঃ মনির হোসেন। প্রধান অতিথি ‘দুইবর্ণ’ এর লেখক বিভাগীয় কমিশনার, চট্টগ্রাম মো. আবদুল মান্নান বলেন, পরিকল্পনা ও ছক করে লেখালেখি করা আমার হয়ে উঠেনা। দৈনন্দিন অভ্যাসচারিতায় কোন বিষয় মনে যখন দোলা দেয় তা নিয়েই লিখতে বসি। এ রকম চিন্তা-ভাবনার উপজাতই হচ্ছে আমার ‘দুই বর্ণ’। বইটির সবলেখাই সত্য ঘটনা থেকে উৎসারিত। পাঠক সমাবেশ কর্তৃক প্রকাশের পর ‘দুইবর্ণ’ নিয়ে বোদ্ধা মহলে যে সাড়া পড়েছে তাতে আমি ব্যাপকভাবে মুগ্ধ হয়েছি। ইতিপূর্বে আমার লেখা ‘অন্তরালে দৃশ্যপট’ ও ‘সক্রেটিসের জল্লাদ’ বই দু’টিতে যে দুর্বলতা ছিল আমার মনে হয়েছে তা দুইবর্ণে অতিক্রম করতে পেরেছি। রবীন্দ্রনাথও বলেছেন প্রথমদিকের লেখায় কিছুটা দুর্বলতা  থাকে।’ সভাপতির বক্তব্যে জেলা প্রশাসক রেজওয়ানুর রহমান বলেন, ‘দুইবর্ণ’ বই এর প্রথম লেখাটি ‘মুক্তি’ এবং শেষ লেখাটি ‘মৃত্যু’। বইটিতে ২০টি লেখা রয়েছে। 

লেখকের একেকটি লেখা আমাদের কাছে একেকভাবে প্রতিভাত হয়েছে। চাকরি জীবনে এই লেখক অত্যন্ত ব্যস্ত সময় কাটিয়ে থাকেন। এরই মাঝে লিখে ফেলেছেন ঋদ্ধ ৩টি বই। তাঁর প্রতিটি লেখাই আমাদেরকে আলোড়িত করে এবং ভাবনার খোরাক জুগায়। 

আমার বিশ্বাস- লেখালেখির জগতে তিনি অব্যাহতভাবে আরো অনেক পথ পাড়ি দেবেন, লেখক হিসেবে তাঁকে নিয়ে আমরা যেন আরো গর্ব করতে পারি- আমি এ প্রত্যাশা জানাই।’ প্রকাশনা উৎসবে স্বাগত বক্তব্য রাখেন দৈনিক সমতট বার্তা’র সম্পাদক ও প্রকাশক মনজুরুল আলম। অনুষ্ঠান উপস্থাপনা করেন কবি ও সাংবাদিক মোঃ মনির হোসেন। পরে অনুষ্ঠিত হয় দোয়া ও ইফতার মাহফিল।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ