শুক্রবার ১০ জুলাই ২০২০
Online Edition

প্রধান শিক্ষিকার দীর্ঘ অনুপস্থিতি বামনখালী প্রাইমারী স্কুলে অচলাবস্থা

কলারোয়া (সাতক্ষীরা) সংবাদদাতা: প্রধান শিক্ষিকার দীর্ঘ অনুপস্থিতির কারণে কলারোয়ার বামনখালী প্রাইমারী অচল অবস্থা স্কুলে বিরাজ করছে। এলাকাবাসি জানায়, ২০১৬ সালের ২০ ডিসেম্বর এই স্কুলের প্রধান শিক্ষক নাদিরা বেগম সড়ক দূঘটনায় গুরুতর আহত হন। একটি পা ভেঙ্গে যাওয়ার কারণে তিনি দুই দফা চিকিৎসা জনিত ছুটি নেওয়ার পরে গত জুন মাসে কাজে যোগদান করেন। কাজে যোগদান করলেও সপ্তাহে একদিন স্কুলে এসে সারা সপ্তাহের হাজিরা খাতায় স্বাক্ষর করেন। এদিকে প্রধান শিক্ষকের অনুপস্থিতির কারণে স্কুলের প্রশাসনিক ব্যবস্থা ভেঙ্গে পড়েছে। অনেক শিক্ষক ইচ্ছা মাফিক স্কুলে আসেন। সহকারী শিক্ষকরা কেউ অনুপস্থিত থাকলে প্রশাসনিক শূনতার কারণে বিকল্প ব্যবস্থা গ্রহণের অভাবে পাঠদান ব্যহত হয়। ফলে শিক্ষকরা পাঠদানে অমনোযোগি হয়ে পড়েছে। ক্রুটিপূর্ণ পাঠদানের সংগে সংগে স্কুলের পিয়ন কাম নাইট গার্ড মোকলেছেুর রহমানকে বিনা ছুটিতে এক সপ্তাহ অনুপস্থিত থাকলেও দেখার কেউ নেই। পিয়ন মোকলেছুর প্রায়শঃ স্কুল বাদ দিয়ে কলারোয়া উপজেলা চত্বরে ঘোরাফেরা করেন বলে অভিযোগ রয়েছে। প্রধান শিক্ষক অনুপস্থিত থাকায় জরুরী রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে স্কুলের আসবাব পত্র সহ মূল্যবান জিনিস পত্র বিনষ্ট হচ্ছে। গত ২১ সেপ্টম্বর বেলা আনুঃ ১টায় দ্বিতীয় শ্রেণীর পাঠদান কক্ষে সিলিং ফ্যান ছিড়ে পড়ে। এসময় শিক্ষার্থীরা বাইরে বের হওয়ায় কেউ হতাহত হয় নি। তবে প্রায় তিন মাস আগে শ্রেণী কক্ষের ফ্যান ছিড়ে পড়ে বদ্দীপুর গ্রামের মুক্তিযোদ্ধ শওকাত আলী পৌত্রি অরনা (৯) গুরুতর আহত হন। কিন্তু প্রধান শিক্ষক অনুপস্থিতিতে স্কুলের পুঞ্জিভূত সমাস্য দেখার কেউ নেই। ফলে স্কুলের শিক্ষার্থীদের জীবনের নিরাপত্তা চরম হুমকির মুখে পড়েছে। বামনখালী প্রাইমারী স্কুলের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেন।
উপজেলা শিক্ষা অফিসার আকবর হোসেন বিষয়টি জ্ঞাত নয়, তবে অবিলম্বে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে বলে জানান।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ