বৃহস্পতিবার ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০
Online Edition

আরাধ্য অরণ্যের কবি স্মারকগ্রন্থ

শাহাদাৎ সরকার : কবি মোশাররফ হোসেন খান ষাট বছরে পদার্পণ করেছেন। এই সময়টিকে ধরে রাখার জন্য কবি আবদুল হাই ইদ্রিছীর সম্পাদনায় প্রকাশিত হয়েছে কবি মোশাররফ হোসেন খান-এর ৬০ তম জন্মবার্ষিকী স্মারক ‘আরাধ্য অরণ্যের কবি’। স্মারকটি যাদের লেখায় সমৃদ্ধ হয়েছে তাদের অনেকেই প্রতিষ্ঠিত লেখক; আছেন কিছু তরুণ লেখকও। এই দুইয়ের সমন্বয়ে নতুন ভাবে উপস্থাপিত প্রশংসিত হয়েছেন কবি মোশাররফ হোসেন খান। স্মারকটিতে স্মৃতি-চারণমূলক লেখা দিয়ে স্মারকটির সমৃিদ্ধ আনয়নে সহায়তা করেছেন কবি মোশাররফ হোসেন খানের ছোট ভাই কবি ও সাহিত্যিক হেলাল আনওয়ার। এছাড়া মোশারফ হোসেন কে নিয়ে গদ্য লিখেছেন প্রাবন্ধিক ও গবেষক ড. ইয়াহ্ইয়া মান্নান, কবি শাহ আলম বাদশা ও কবি আবদুল হাই ইদ্রিছী। তাঁরা এক একজন কবি মোশাররফ হোসেনকে উপস্থাপক করেছেন ভিন্নভাবে ভিন্ন আঙ্গিকে।
আমাদের দেশের অধিকাংশ কবিই যখন কবিতা লেখা শুরু করেন মোটামুটি তখন থেকেই তারা হয়ে উঠেন ধর্ম বিদ্বেষী; কিন্তু কবি মোশাররফ হোসেন খানের ক্ষেত্রে তার বিপরীত। কবি মোশাররফ হোসেন খান সৃজিত ‘স্বপ্নের সানুদেশ’ কাব্য গ্রন্থটি নিয়ে আলোচনা করেছেন গবেষক ড. ইয়্হাইয়া মান্নান। তিনি গ্রন্থটির শিল্পমূল্য আলোচনা প্রসঙ্গে বলেন,
“কবি মোশাররফ হোসেন খান রচিত স্বপ্নের সানুদেশ কাব্যগ্রন্থটি তাঁর পরিণত বয়সে লেখা অনুপম এক কাব্যগ্রন্থ। মাতৃভূমি ও মাতৃভাষার প্রতি কবির প্রগাঢ় ভালবাসা এখানে ছন্দবদ্ধ বাণীশিল্পে রূপান্তরিত হয়েছে।”
কবিকে নিবেদিত করে কবিতা লিখেছেন, কবি আবদুল হালীম খাঁ, আবদুল হাই শিকদার, নাসির হেলাল, সায়ীদ আবুবকর, মাহমুদুল হাসান নিজামী, মহিবুর রহিম, আবু তাহের বেলাল, মাহফুজুর রহমান আখন্দ, ফজলুল হক তুহিন, নয়ন আহমেদ, তমসুর হোসেন, মুহাম্মদ ওবায়দুল্লাহ, হাসনাইন সাজ্জাদী, বান্দা হাফিজ, মুসা আল হাফিজ, মির্জা মুহাম্মদ নূরুন্নবী নূর, ইতি রহমান, সীমান্ত আকরাম, হালিমা খাতুন মুক্তা।
ছড়া লিখেছেন মহিউদ্দিন আকবর, আহমেদ কায়সার, মাসুদা সুলতানা রুমি, আসলাম প্রধান, আমিন আল আসাদ, রুমান হাফিজ, আহসান হাবিব ইমরোজ খান, ইসলাম তরিক, মো. আনোয়ার হোসেন ফারুক, শাকেরা বেগম শিমু ও জয়নব জোনাকি।
কবি মোশাররফ খানকে নিবেদিত কবিতার কিছু অসাধারণ পঙতি-
মীর নন মোশাররফ, তিনি পুরো খান,
কবিতা ও ইতিহাসে আমাদের প্রাণ।
প্রেম প্রীতি তাকে নিয়ে বিজয়ের গান,
আমাদের সংহতি দৃঢ় অফুরান।

তাকে নিয়ে হইচই তাকে নিয়ে কথা,
আমাদের প্রিয় কবি প্রিয় সফলতা।
আলোকের পাখি তিনি, আলো পুরোটাই
ঘরে ঘরে তিনি সব মানুষের ভাই। (সব মানুষের ভাই : আবদুল হাই শিকদার)

কবিও কবিতা যে নামে ডাকো নদী অনন্ত বহমান
প্রিয় কবি মোশাররফ হোসেন খান। (কবি : মাহমুদুল হাসান নিজামী)
তার কলমে সোনা ফলে লেখেন জাতির টানে
গদ্যে-পদ্যে দেশের কথা দশের কথা গানে। (জাতির টানে : নাসির হেলাল)

বিরল বাতাসে উড়েছিল পাল;
পার হয়ে সাত সুমুদ্দুর তের নদী খাল,
পৌঁছোলেন অবশেষে
যেন কলম্বাস, ভিন্নতর এক দেশে।
আজ তাঁকে দেখলেই মনে হয়
আরেক বিস্ময়। ( বিরল বাতাসের কবি : সায়ীদ আবুবকর)
তুমি যে আমার শব্দ সহচরী চেতনায় দীপ্ত বহমান
তোমাকে বিনম্র শ্রদ্ধা কবি অগ্রজ মোশাররফ হোসেন খান। (শব্দের আত্মজা : আবু তাহের বেলাল)

কবি সে, শ্রমী সে, শিল্পের কিষাণ
মোশাররফ হোসেন খান! ( ঈগল : মুসা আল হাফিজ)
অগ্রজ কবি বন্ধু, শুভাকাক্সক্ষীদের লেখায় এবং সমসাময়িক ও অনুজ কবি লেখকদের মূল্যায়নে মোশাররফ হোসেন খান আমাদের সামনে আলোর ঝর্ণাধারার মত জ্বলজ্বল করছেন।
স্মারকটির পরিশিষ্টিতে সম্পাদক ইদ্রিছী সংযোগ করেছেন কবি-জীবনী, তাঁর সৃজিত তিনটি সুখপাঠ্য কবিতা ও বেশকিছু আলোকচিত্র। যা পাঠকের জন্য অবশ্যই উপরি পাওনা। চার রঙা প্রচ্ছদে তিন ফর্মার এই স্মারকগ্রন্থটি কবি মোশাররফ হোসেন খানকে আমাদের সামনে তুলে ধরেছে নতুন করে।
কিছু লেখায় ত্রুটি থাকলেও স্মারকটি কবির ভক্তকুলের জন্য সংগ্রহে রাখার মত মনোরম সংকলন। বিনিময় রেখেছেন মাত্র ৫০ টাকা। লেখাটি কবি ও  কথাকার মহিউদ্দিন আকবরের ছড়ার পঙতি দিয়ে শেষ  করতে চাই-
দিন গড়িয়ে এবার তিনি
পা রাখলেন ষাটে
এমনি করেই রয়ে যাবেন
যুগান্তরের হাটে। (মোশাররফ হোসেন খান: মহিউদ্দিন আকবর)

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ