ঢাকা, বুধবার 23 September 2020, ৮ আশ্বিন ১৪২৭, ৫ সফর ১৪৪২ হিজরী
Online Edition

বিতর্কিত মেটাল ডিটেক্টর সরাচ্ছে ইসরায়েল

অনলাইন ডেস্ক: ইসরায়েলের দখলকৃত পূর্ব জেরুজালেমের প্রাচীন শহরে অবস্থিত মুসলিমদের তৃতীয় পবিত্রতম স্থান আল-আকসা মসজিদ প্রাঙ্গণে স্থাপিত মেটাল ডিটেকটর সরানো হচ্ছে। এর পরিবর্তে নজরদারি ক্যামেরা বসানো হচ্ছে।

স্থানীয় সময় সোমবার ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহুর নেতৃত্বে মন্ত্রিপরিষদের এক বৈঠকে মেটাল ডিটেক্টর সরানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

এই সিদ্ধান্ত ঘোষণার ঘণ্টা কয়েক আগে জাতিসংঘের মধ্যপ্রাচ্য বিষয়ক দূত, নিকোলাই ম্লাদেসনভ সতর্ক করে দিয়ে বলেছেন জেরুজালেমের পবিত্র ধর্মীয় স্থান নিয়ে দ্বন্দ্ব শিথিল না হলে তা এই প্রাচীন শহর ছাড়িয়ে আরো ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়তে পারে।

পূর্ব জেরুজালেমের পবিত্র এই স্থানটি মুসলিমদের কাছে হারাম আল শরিফ এবং ইহুদিদের কাছে টেম্পল মাউন্ট নামে পরিচিত। সেখানে ঢোকার মুল পথে দুজন পুলিশ কর্মকর্তার মৃত্যুকে ঘিরে মেটাল ডিটেক্টরের মতো নিরাপত্তা ব্যবস্থা চালু করা হয়। যা ফিলিস্তিনীদের ক্ষুব্ধ করে তোলে। এই পটভূমিতে ইসরায়েলি কর্তৃপক্ষ এমন সিদ্ধান্ত নিলো।

তার কয়েক ঘণ্টা আগে সোমবার এ সঙ্কট নিয়ে রুদ্ধদ্বার বৈঠক করে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ। বৈঠকের পরই জাতিসংঘের মধ্যপ্রাচ্য বিষয়ক দূত বলেন, বিষয়টির সমাধান না হলে মুসলিম বিশ্বে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়তে পারে।

"কারোই ভুল করে ভাবা উচিত হবে না যে, এটি শুধুমাত্র একটি স্থানীয় সমস্যা। যদিও এটি মাত্র কয়েক'শ বর্গমিটারের মধ্যে ঘটছে, তবে এর প্রভাব পড়ছে সারাবিশ্বের কোটি-কোটি মানুষের ওপর। এর সর্বনাশা প্রভাব প্রাচীন শহরের দেয়াল ছাড়িয়ে, ইসরায়েল এবং ফিলিস্তিন, এমনকি মধ্যপ্রাচ্যের সীমানা ছাড়িয়ে আরো অনেকদূর যেতে পারে" বলেন মধ্যপ্রাচ্য বিষয়ক জাতিসংঘের দূত নিকোলাই ম্লাদেসনভ।

ইসরায়েলি নিরাপত্তা ব্যবস্থাকে কেন্দ্র করে গত ২১শে জুলাই, শুক্রবার পূর্ব জেরুজালেম এবং অধিকৃত পশ্চিম তীরে হাজার-হাজার বিক্ষোভকারী রাস্তায় নামলে ইসরায়েলি নিরাপত্তা বাহিনীর সাথে সংঘর্ষে তিনজন ফিলিস্তিনী নিহত হয়।

একইদিনে অধিকৃত পশ্চিম তীরের একটি ইহুদি বসতিতে হামলা চালিয়ে তিনজন বেসামরিক ইসরায়েলি নাগরিককে হত্যা এবং অপর একজন আহত করে একজন ফিলিস্তিনী।

জেরুজালেমের পুরনো শহরের আল-আকসা মসজিদ প্রাঙ্গণটি মুসলিমদের কাছে তৃতীয় পবিত্রতম স্থান এবং ইহুদি ধর্মের সবচয়ে পবিত্র স্থান হিসেবে স্বীকৃত। ১৯৬৭ সালের মধ্যপ্রাচ্য যুদ্ধের পর থেকে পূর্ব জেরুজালেম ইসরায়েলের দখলে রয়েছে।

ইসরায়েলের এ সিদ্ধান্তের বিষয়ে সোমবার দিবাগত রাতে আল-আকসা মসজিদের পরিচালক শেখ নাজেহ বাকিরাত বলেন, শুধু মেটাল ডিটেকটর সরানোর মধ্য দিয়ে মুসলিমদের দাবি পূরণ হয়নি। মসজিদ প্রাঙ্গণে এখনো নিরাপত্তা ক্যামেরা রাখা হচ্ছে।

আল-আকসা মসজিদ পরিচালনা কমিটির অন্যতম কর্মকর্তা শেখ রায়েদ সালেহ বলেন, ১৪ জুলাইয়ের পর নিরাপত্তার স্বার্থে যেসব উপকরণ স্থাপন করা হয়েছে, সেগুলো সরানোর আগপর্যন্ত কোনো ব্যবস্থা ফিলিস্তিনিরা মেনে নেবে না।

‘এখন পর্যন্ত পরিস্থিতি পরিষ্কার নয়, তারা মধ্যরাতে, আঁধারে  বাদুড়ের মতো এই কাজ (মেটাল ডিটেকটর সরানো) করছে। আগামীকাল (মঙ্গলবার) সকালে ঘুম থেকে উঠে আমরা কী দেখব, তা আল্লাহই ভালো জানেন’, যোগ করেন রায়েদ।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ