শুক্রবার ০২ অক্টোবর ২০২০
Online Edition

‘শিল্পকলা পদক ২০১৬’ পাচ্ছেন ৭ গুণী ব্যক্তি

স্টাফ রিপোর্টার : শিল্প-সংস্কৃতির বিভিন্ন শাখায় অসামান্য অবদানের রাখায় সাতজন গুণী ব্যক্তি ‘শিল্পকলা পদক ২০১৬’ পাচ্ছেন। আগামীকাল বৃহস্পতিবার প্রেসিডেন্ট মো. আবদুল হামিদ মনোনীত ব্যক্তিদের হাতে এ পদক তুলে দিবেন।
গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে রাজধানীর সেগুনবাগিচায় শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় নাট্যশালা মিলনায়তনে আয়োজিত এক সাংবাদিক সম্মেলনে এ তথ্য জানানো হয়। এতে উপস্থিত ছিলেন শিল্পকলা একাডেমির মহাপরিচালক লিয়াকত আলী লাকী, সচিব জাহাঙ্গীর হোসেন চৌধুরী, গবেষণা ও প্রকাশনা বিভাগের পরিচালক উৎপল কুমার দাস, প্রশিক্ষণ বিভাগের পরিচালক মো. শাওকাত ফারুক, একাডেমির চারুকলা বিভাগের পরিচালক মোঃ মনিরুজ্জামান প্রমুখ।
স্ংাবাদিক সম্মেলনে একাডেমির মহাপরিচালক জানান, ২০১৬ সালের শিল্পকলা পদকের জন্য মনোনীত হয়েছেন যন্ত্রসঙ্গীতে     পবিত্র মোহন দে, নৃত্যকলায় মোঃ গোলাম মোস্তফা খান, ফটোগ্রাফিতে গোলাম মুস্তাফা, চারুকলায় কালিদাস কর্মকার, লোকসংস্কৃতিতে সিরাজ উদ্দিন খান পাঠান, নাট্যকলায় ড. সৈয়দ জামিল আহমেদ এবং কণ্ঠ সঙ্গীতে মিতা হক। তারা প্রত্যেকে একটি স্মর্ণপদক, ১ লাখ টাকা সম্মানী ও একটি করে সনদ পাবেন।
বিগত বছরের ধারাবাহিকতায় আগামীকাল বিকাল ৩টায় শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় নাট্যশালা মিলনায়তনে প্রধান অতিথি থেকে প্রেসিডেন্ট মো. আবদুল হামিদ ৭ জন গুণীশিল্পীর হাতে পদক তুলে দিবেন। সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব মোঃ ইব্রাহীম হোসেন খানের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি থাকবেন সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর।
সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন শিল্পকলা একাডেমির উদ্যোগে ২০১৩ সাল থেকে ‘শিল্পকলা পদক’ প্রদান করা হচ্ছে। দেশের শিল্প ও সংস্কৃতির ক্ষেত্রে জাতীয় পর্যায়ে বিশেষ অবদানের জন্য গুণীজন এবং তাঁদের কর্মকে চিহ্নিত করে সংস্কৃতির পৃষ্ঠপোষকতা ও বিকাশ সাধনের লক্ষ্যে ‘শিল্পকলা পদক’ প্রদান করা হয়ে থাকে। সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট নীতিমালা অনুযায়ী ১৬ সদস্যের কমিটি প্রতি বছর পদক প্রদানের ক্ষেত্রে এবং পদকের জন্য গুণীজন নির্বাচন করে থাকেন। পদক প্রদানের জন্য তালিকাভূক্ত ১০ টি ক্ষেত্র থাকলেও আবৃত্তি, যাত্রাশিল্প ও চলচ্চিত্রে এবার পুরষ্কার দেয়া হচ্ছে না।
এদিকে, শিল্পকলা একাডেমির উদ্যোগে সঙ্গীত, নৃত্য ও আবৃত্তি বিভাগের ব্যবস্থাপনায় সঙ্গীতজ্ঞ, স্বরলিপিকার এবং নজরুল গবেষক সুধীন দাশ, কন্ঠযোদ্ধা মিহির নন্দী এবং গবেষক ড. করুণাময় গোস্বামী স্মরণে গতকাল সন্ধ্যায় একাডেমির জাতীয় সঙ্গীত ও নৃত্যকলা কেন্দ্র মিলনায়তনে আলোচনা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। আলোচনা পর্বে শিল্পকলা একাডেমির মহাপরিচালক জনাব লিয়াকত আলী লাকীর সভাপতিত্বে আলোচক ছিলেন গবেষক ও শিক্ষাবিদ অধ্যাপক ড. আবম নূরুল আনোয়ার, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি গোলাম কুদ্দুছ এবং লেখক ও সংস্কৃতিকর্মী নিশাত জাহান রানা। আলোচনা শেষে সাংস্কৃতিক পর্বে রবীন্দ্র সংগীত পরিবেশন করেন শিল্পী অনিমা রায় ও মহাদেব ঘোষ এবং নজরুল সংগীত শিল্পী শারমিন সাথী ইসলাম ও ফাতেমা তুজ জোহরা।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ